যশোর শিক্ষা অফিসের সহকারী পরিদর্শকের নামে যৌতুক মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ যশোর মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের সহকারী পরিদর্শক হুমায়ুন কবীরের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা হয়েছে। যৌতুক হিসেবে শ্বশুরের দেয়া বাড়ি ও জমি লিখে না দেয়ায় নির্যাতনের অভিযোগে যশোর জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হুমায়ুন কবীরের স্ত্রী আসমা খাতুন এই মামলা করেন। বিচারক সাইফুদ্দীন হোসাইন মামলাটি আমলে নিয়ে আসামির বিরুদ্ধে সমনজারির আদেশ দিয়েছেন।
মামলার বিবরণে জানা গেছে, ২০০৫ সালে খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার শাহপুর গ্রামের গাজী নুরুল ইসলামের ছেলে এবং যশোর মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের সহকারী পরিদর্শক হুমায়ুন কবীরের সাথে বিয়ে হয় যশোর শহরের খড়কি কবরস্থান এলাকার আবু সিদ্দিকীর মেয়ে আসমা খাতুনের। আসমা খাতুন পেশায় স্কুল শিক্ষিকা। বিয়ের পর দাম্পত্য জীবনে তাদের একটি ছেলের জন্ম হয়। বর্তমানে ছেলের বয়স ১১ বছর। আসমা খাতুনের পিতা আবু সিদ্দিকী মেয়ের সুখের কথা চিন্তা করে একটি জমি কিনে দেন। পাশাপাশি তার পিতা ওই জমিতে একটি বিল্ডিং করার কাজ শুরু করেন। কিন্তু ৩৩ লাখ টাকা ব্যয়ের ওই বিল্ডিং বাড়িতে আসমার স্বামী হুমায়ুন কবীর মাত্র ৩ লাখ ৭৫ হাজার টাকা দিয়েছেন। আসমার স্বামী হুমায়ুন কবীর যৌতুক হিসেবে স্ত্রীর কাছে ওই জমিসহ বাড়িটি লিখে দেয়ার জন্য বেশ কিছুদিন ধরে চাপ দিয়ে আসছিলেন। বাড়ি লিখে না দেয়ায় তাকে বিভিন্ন ধরনের হুমকি দিতে থাকেন। এক পর্যায় আরো একটি বিয়ে করবেন বলেও হুমায়ুন কবীর তার স্ত্রী আসমাকে বলেন। বাধ্য হয়ে আসমা খাতুন আদালতে স্বামী হুমায়ুন কবীরের বিরুদ্ধে যৌতুক নিরোধ আইনে মামলা করেছেন। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে আগামী ২০ ডিসেম্বর পরবর্তী তারিখ ধার্য্য করেছেন।

 

শেয়ার