বঙ্গবন্ধু ও তাঁর কন্যা শেখ হাসিনা শিক্ষাকে জনমুখী ও সম্প্রসারণ করতে কোনো কৃপণতা করেননি : এমপি শাহীন চাকলাদার

কেশবপুরে প্রাথমিক শিক্ষা পরিবারের পক্ষ থেকে সংবর্ধনা প্রদান

এস আর সাঈদ, কেশবপুর (যশোর) থেকে॥ কেশবপুর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা পরিবারের পক্ষ থেকে যশোর-৬ কেশবপুর সংসদীয় আসন থেকে নবনির্বাচিত সংসদ সদস্য ও যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীন চাকলাদারকে সোমবার বিকেলে শহরের পাবলিক ময়দানে সংবর্ধনা প্রদান করা হয়েছে। উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আব্দুল জব্বারের সভাপতিত্বে ও উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক নাজমূল হুদা বাবুর পরিচালনায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সংবর্ধিত নবনির্বাচিত সংসদ সদস্য শাহীন চাকলাদার। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আব্দুল মজিদ, কেশবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এস এম রুহুল আমিন, সহসভাপতি উপজেলা চেয়ারম্যান যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব কাজী রফিকুল ইসলাম, সহসভাপতি সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান এইচ এম আমির হোসেন, সাধারণ সম্পাদক গাজী গোলাম মোস্তফা ও কেশবপুর পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি পৌর মেয়র রফিকুল ইসলাম। শিক্ষকদের মধ্য থেকে বক্তব্য রাখেন প্রধান শিক্ষক নওশাদ আলী মোড়ল, প্রধান শিক্ষক সুদেব কুমার দেবনাথ, প্রধান শিক্ষক হযরত আলী, প্রধান শিক্ষক জহুরুল ইসলাম, প্রধান শিক্ষক কল্পনা রানী শীল, সহকারী শিক্ষক কে এম ফিরোজ সুলতান, সহকারী শিক্ষক জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি তপন কুমার ঘোষ মন্টু, যুগ্ম-সম্পাদক ভাইস চেয়ারম্যান নাসিমা সাদেক, সাংগঠনিক সম্পাদক সাগরদাঁড়ী ইউপি চেয়ারম্যান কাজী মুস্তাফিজুল ইসলাম মুক্ত, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কার্ত্তিক চন্দ্র সাহা, উপজেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক মফিজুর রহমান মফিজ, সদস্য শাহাদাৎ হোসেন, ত্রিমোহিনী ইউপি চেয়ারম্যান আনিসুর রহমান আনিস, বিদ্যানন্দকাটি ইউপি চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন, পাঁজিয়া ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম মুকুল, সুফলাকাটি ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুস সামাদ মাস্টার, গৌরীঘোনা ইউপি চেয়ারম্যান এস এম হাবিবুর রহমান হাবিব, উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক প্যানেল মেয়র বিশ্বাস শহিদুজ্জামান শহিদ, যুগ্ম-আহ্বায়ক আবু সাঈদ লাভলু, উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রাবেয়া ইকবাল, সাধারণ সম্পাদক মমতাজ খাতুন, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের আহ্বায়ক আব্দুল গফফার, উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক কাজী আজাহারুল ইসলাম মানিক, পৌর ছাত্রলীগের সাইফুল ইসলাম প্রমুখ।
সংবর্ধিত প্রধান অতিথি সংসদ সদস্য শাহীন চাকলাদার বলেন, শিক্ষা ছাড়া জাতির উন্নতি অসম্ভব। তা অনুধাবন করেছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তাই তিনি একটি শিক্ষিত জাতির স্বপ্ন দেখেছিলেন। বঙ্গবন্ধু শিক্ষাকে জনমুখী ও সম্প্রসারণ করতে কোনো কৃপণতা করেননি। সেইলক্ষ্যে ১৯৭৩ সালে বঙ্গবন্ধু ৩৭ হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয়কে জাতীয়করণ, ১১ হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপন, ৪৪ হাজার শিক্ষক নিয়োগ ও চাকরি সরকারিকরণ, পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে বই ও গরিব মেধাবী শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে পোশাক প্রদানের ব্যবস্থা করেছিলেন। শিক্ষাব্যবস্থা ঢেলে সাজিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু। সংবিধানে শিক্ষা বাধ্যতামূলক, শিক্ষা কমিশন, বিশ^বিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনসহ নানা কার্যক্রম বাস্তবায়ন করেছেন। শিক্ষাব্যবস্থাকে বৈষম্যহীন ও যুগোপযোগী করার জন্য কাজ করেছেন বঙ্গবন্ধু।
তিনি আরো বলেন, জাতির জনকের পথেই হেঁটেছেন তাঁর সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পিতার মতো তিনিও বেসরকারি ও রেজিস্টার প্রাথমিক বিদ্যালয়কে জাতীয়করণ করেন। প্রতিবছর ১ জানুয়ারি শিক্ষার্থীদের হাতে বিনামূল্যে নতুন বই তুলে দিয়ে শিক্ষাব্যবস্থাকে আমূল পরিবর্তন করেন।

শেয়ার