যশোরে চাঞ্চল্যকর ১৭ লক্ষ টাকা ছিনতাই ॥ টাকা ভাগ করার বিষয়ে তিন সাক্ষীর আদালতে জবানবন্দি

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ যশোর কোতোয়ালি থানার পাশে বোমা ফাটিয়ে ও ছুরিকাঘাত করে ব্যবসায়ীর ছিনতাই করা টাকা ভাগ বাটোয়ারার বিষয়ে তিনজন সাক্ষী আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন। আরাফাত ও শুভ নামে দুই সন্ত্রাসীসহ কয়েকজন গত ২৯ সেপ্টেম্বর বিকেল ৩টার দিকে শহরের পূর্ব বারান্দী মাঠপাড়ার একটি বাড়িতে ছিনতাই করা টাকা ভাগাভাগি শেষে টাকার ব্যাগ ও চাকু ফেলে রেখে যায়। শুক্রবার ওই এলাকার শাজাহানের তিন ছেলে শুকুর আলী, বিল্লাল হোসেন ও কালুর জবানবন্দি গ্রহণ করেন যশোর জুডিসিয়াল ম্যাজ্রিস্ট্রট আদালতের বিচারক মাহাদী হাসান।
মামলার বিবরণে জানা গেছে, গত ২৯ সেপ্টেম্বর দুপুরে মণিহার এলাকার আরআই এন্টারপ্রাইজের মালিক ইকবাল হোসেনের ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের সাড়ে ১৭ লাখ টাকা জমা দেয়ার জন্য কোতোয়ালি থানার পাশেই ইউনাইটেড কমার্সশিয়াল ব্যাংক লিমিটেডে আসে। ইকবাল হোসেনের ভাই এনামুল হক ও কর্মচারী ইমন হোসেন একটি মোটরসাইকেলে চড়ে ব্যাংকে আসেন। ব্যাংকের সামনে পৌছানো মাত্র একদল সন্ত্রাসী এসে এনামুলের কাছ থেকে টাকার ব্যাগ ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে। কিন্তু ব্যাগ দিতে রাজি না হওয়ায় টানা হেঁচড়া করে এনামুলকে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে। এসময় তার চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এলে একটি বোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়ে চারিদিকে আতংক সৃষ্টি করে। এক পর্যায়ে তারা টাকার ব্যাগ নিয়ে চলে যায়। চারিদিক থেকে লোকজন এসে এনামুলকে প্রথমে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে এবং অবস্থার অবনতি হলে খুলনা মেডিকেলে নেয়া হয়। এরপরও তার অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় খুলনার গাজী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
এদিকে এই ঘটনায় ইকবাল হোসেনের দায়ের করা মামলায় গত বৃহস্পতিবার ৫জনকে আটক করেছে পুলিশ। কিন্তু গতকাল ছিনতাই করা টাকা যে বাড়িতে ভাগবাটোয়ারা করা হয়েছিল সেই বাড়ির তিনজন আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন। তারা বলেছেন ২৯ সেপ্টেম্বর বিকেল তিনটার দিকে এলাকার আরাফাত ও সাঈদ ইসলাম শুভ একটি ব্যাগে অনেকগুলো টাকা এনে ভাগ করে নিয়ে চলে গেছে। তবে যাওয়ার সময় একটি ছুরি ফেলে রেখে গেছে।
এই ঘটনায় এর আগে আটককৃতরা হলো, যশোর শহরের পুলিশ লাইন টালিখোলা এলাকার শফি দারোগার বাড়ির ভাড়াটিয়া বারান্দীপাড়ার শীর্ষ সন্ত্রাসী ডিম রিপনের সহযোগী মুনসুর মোল্যার ছেলে টিপু, শহরের বারান্দী মোল্যাপাড়ার রবিউল ইসলামের ছেলে সাঈদ ইসলাম ওরফে শুভ, ধর্মতলা হ্যাচারিপাড়ার রুহুল আমিনের ছেলে বিল্লাল হোসেন ওরফে ভাগনে বিল্লাল, সিটি কলেজ ব্যাটারিপট্টির নিজাম উদ্দিনের ছেলে রায়হান এবং পূর্ব বারান্দী মালোপাড়ার মুফতি আলী হুসাইনের ছেলে ইমদাদুল হক।

শেয়ার