প্রথম বিতর্কে জয়ী বাইডেন: সিএনএন জরিপ

সমাজের কথা ডেস্ক॥ যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের কয়েক সপ্তাহ আগে রিপাবলিকান পার্টির প্রার্থী প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে প্রথম মুখোমুখি বিতর্কে ডেমোক্র্যাটিক পার্টির প্রার্থী জো বাইডেন বেশি ভাল করেছেন বলে মনে করছেন বেশির ভাগ দর্শক- এমনটিই দেখা গেছে সিএনএন জরিপে।

টেলিভিশনে সরাসরি বিতর্ক দেখা দর্শকদের ওপর পরিচালিত জরিপের ভিত্তিতে মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন জানিয়েছে, ১০ জনে ৬ জন দর্শকই বাইডেন বেশি ভাল করেছেন বলে মনে করছে। আর ট্রাম্পকে জয়ী মনে করছেন মাত্র ২৮ শতাংশ দর্শক।

এসএসআরএস এর মাধ্যমে ফোন এবং সাক্ষাৎকারের ভিত্তিতে সিএনএন এই জরিপ চালিয়েছে। জরিপের এবারের ফল ২০১৬ সালের নির্বাচনের সময়কার হিলারি ক্লিনটন এবং ডনাল্ড ট্রাম্পের মধ্যে হওয়া প্রথম বিতর্ক-পরবর্তী জরিপের ফলের মতোই হয়েছে। ওইবছরের জরিপে ৬২ শতাংশ ভোটার হিলারি জয়ী হয়েছেন বলে মত দিয়েছিলেন। আর ট্রাম্পকে জয়ী মনে করেছিলেন ২৭ শতাংশ ভোটার।

সিএনএন-এর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ৬৫ শতাংশ ভোটারই বিতর্কে বাইডেন সত্য বলেছেন বলে মত দিয়েছেন। আর ট্রাম্পের কথাকে সত্য বলেছেন ২৯ শতাংশ ভোটার। তাছাড়া, বাইডেন যেভাবে ট্রাম্পকে আক্রমণ করেছেন তা ঠিক বলে মনে করছেন ৬৯ শতাংশ ভোটার। অন্যদিকে, ট্রাম্প যেভাবে বাইডেনকে আক্রমণ করেছেন তা ঠিক বলে মনে করছেন ৩২ শতাংশ ভোটার।

যদিও সিএনএন বলছে, এই জরিপ সব মার্কিনির মতের প্রতিফলন নয়। কারণ, ট্রাম্প-বাইডেনের মঙ্গলবারের বিতর্কটি যেসব নিবন্ধিত ভোটার দেখেছেন, কেবল তাদের মতই নেওয়া হয়েছে জরিপে। বিতর্কটি যারা দেখেছেন তারা সামগ্রিকভাবে সাধারণ মার্কিনিদের তুলনায় একটু বেশি দলীয় রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি সম্পন্ন।

জরিপে অংশ নেওয়াদের মধ্যে নিরপেক্ষ ভোটার হিসেবে পরিচয় দিয়েছেন ৩৬ শতাংশ, সাধারণ মার্কিনিদের হিসাবে যা ৪০ শতাংশের মতো। তাছাড়া, নিবন্ধিত ভোটারদের যারা বিতর্ক দেখেছেন, তাদের ৩৯ শতাংশই ছিল ডেমোক্রেটিক পার্টির সমর্থক। আর রিপাবলিকান সমর্থক ছিল ২৫ শতাংশ।

তবে এর বাইরেও জরিপে দেখা গেছে, বৃহত্তর পরিসরে যেসব ভোটার বিতর্ক দেখেছেন, তাদের বেশির ভাগই বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের ওপর আস্থা রেখেছেন। জাতিগত বৈষম্যের ক্ষেত্রে বাইডেনের ওপর আস্থাশীল ৬৬ শতাংশ ভোটার। আর ট্রাম্পের ওপর আস্থা রাখেন ২৯ শতাংশ ভোটার।

স্বাস্থ্য পরিষেবায় বাইডেন এবং ট্রাম্পের ওপর ভোটারদের আস্থার হার যথাক্রমে ৬৬ ও ৩২ শতাংশ। করোনাভাইরাস মোকাবেলায় বাইডেন এবং ট্রাম্পের ওপর এই আস্থা যথাক্রমে ৬৪ ও ৩৪ শতাংশ। আর সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি মনোনয়নের ক্ষেত্রেও বাইডেনের ওপর আস্থা রাখেন ৫৪ শতাংশ ভোটার। আর ট্রাম্পের ওপর আস্থা রাখেন ৪৩ শতাংশ ভোটার।

তবে অর্থনীতির ক্ষেত্রে বাইডেনের সঙ্গে ট্রাম্পের ব্যবধান অনেকটাই কম দেখা গেছে। এক্ষেত্রে, ট্রাম্পের ওপর আস্থা রাখেন ৪৮ শতাংশ ভোটার। আর বাইডেনের ওপর আস্থা রাখেন ৫০ শতাংশ ভোটার।

কিন্তু বিতর্কে যে প্রার্থী যেমনই করুন, তাতে অধিকাংশ দর্শকেরই মত পরিবর্তন হয়নি। জরিপে অংশগ্রহণকারীদের ৫৭ শতাংশই জানিয়েছেন, বিতর্কের কারণে তাদের মত বদলাবে না। আর যারা মন পরিবর্তন করতে পারেন বলেছেন, তাদেরও ৩২ শতাংশ বাইডেনকে ভোট দিতে পারেন বলে জানিয়েছেন। অন্যদিকে, ট্রাম্পের দিকে ঝুঁকে যাওয়ার সম্ভাবনা আছে ১১ শতাংশ ভোটারের।

বিতর্ক-পরবর্তী জরিপে ট্রাম্প এবং বাইডেনের প্রতি ভোটারদের অনুকূল দৃষ্টিভঙ্গি আগের জরিপের মতো একইরকম থাকতে দেখা গেছে। বাইডেনের ক্ষেত্রে এই হার ৬২ শতাংশ এবং ট্রাম্পের ক্ষেত্রে ৩৫ শতাংশ। একই ভোটারদের ওপর বিতর্কের আগে পরিচালিত জরিপগুলোতে যে হার ছিল- বাইডেনের ক্ষেত্রে ৬০ শতাংশ এবং ট্রাম্পের ক্ষেত্রে ৩৭ শতাংশ।

 

শেয়ার