শার্শা ও বৈকারী সীমান্তে ২৩টি স্বর্ণের বার উদ্ধার ॥ নারীসহ দুই পাচারকারী আটক

সমাজের কথা ডেস্ক ॥ যশোরের শার্শা সীমান্তে ১৩টি ও সাতক্ষীরার বৈকারি সীমান্তে ১০টি স্বর্ণেরবার উদ্ধার করেছে বিজিবি। যার ওজন ৩ কেজি ৭০ গ্রাম। উভয় ঘটনায় এক নারীসহ দুই চোরাকারবারীকে আটক হয়েছে। প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর:
বেনাপোল (যশোর) প্রতিনিধি জানান, ভারতে পাচারকালে যশোরের শার্শা পাচভুলোট সীমান্তে অভিযান চালিয়ে দেড়কেজি ওজনের ১৩টি স্বর্ণের বারসহ পপি খাতুন নামে এক চোরাকারবারীকে আটক করে বিজিবি। সে পুটখালি গ্রামের কালাম হোসেনের স্ত্রী।
খুলনা ২১ বিজিবি ব্যাটলিয়নের অধিনায়ক লে: কর্নেল মঞ্জুর ই এলাহি জানান, পাটভুলোট সীমান্ত দিয়ে একটি সংঘবদ্ধ পাচারকারীদল ভারতে স্বর্ণ পাচার করছে জানতে পারে বিজিবি। মঙ্গলবার বিকালে একদল বিজিবি সীমান্ত এলাকায় অভিযান চালিয়ে পপি নামে এক নারীকে আটক করে। তার কাছ থেকে উদ্ধার করা হয় ১ কেজি ৫শ’ গ্রাাম ওজনের ১৩টি স্বর্ণের বার। জব্দকৃত স্বর্ণের মূল্য প্রায় ৭৮ লাখ টাকা। আটককৃত স্বর্ণসহ পাচারকারীকে শার্শা থানায় সোপর্দ করা হয়েছে বলে জানায় বিজিবি।
সাতক্ষীরা প্রতিনিধি আব্দুল জলিল জানান, ভারতে পাচারকালে সাতক্ষীরার বৈকারি সীমান্তে ১০টি স্বর্ণের বারসহ এক চোরাচালানীকে গ্রেফতার করে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। এর ওজন ১ কেজি ৫৭০ গ্রাম। দাম ৯৪ লাখ টাকারও বেশি।
মঙ্গলবার সকাল ৯টার দিকে মোটরসাইকেলে বৈকারির মোড় হয়ে যাবার পথে বিজিবি তাকে চ্যালেঞ্জ করে। এসময় তার দেহ তল্লাশি করে একটি প্যাকেটে মোড়ানো ১০টি স্বর্ণের বার জব্দ করা হয়। এ ঘটনায় আটক চোরাচালানী শাবিব হোসেনের বাড়ি ছয়ঘরিয়া গ্রামে। স্বর্ণসহ তাকে সাতক্ষীরায় বিজিবির ৩৩ ব্যাটেলিয়ন সদর দপ্তরে নিয়ে আসা হয়।
ব্যাটেলিয়ন অধিনায়ক লে. কর্নেল গোলাম মহিউদ্দিন খন্দকার জানান, শাবিব একজন কুখ্যাত স্বর্ণ চোরাচালানী। সে দীর্ঘদিন ভারতে পালিয়ে ছিল। সম্প্রতি বাড়ি ফিরে আবারও স্বর্ণ পাচারের চেষ্টা করছিল। তাকে সাতক্ষীরা সদর থানায় সোপর্দ করা হয়েছে।

 

 

শেয়ার