যশোরে অ্যাথলেটিক্স কাগজে-কলমেই!

স্বপ্ন দেখাচ্ছেন নতুন কমিটির নতুন নেতৃত্ব

ইমরান হোসেন পিংকু
ক্রীড়াক্ষেত্রে অ্যাথলেটিক্সকে বলা হয় রানী। এটি একটি প্রতিযোগিতাপূর্ণ ট্র্যাক ও ফিল্ড ইভেন্ট। সময়ের কালক্রমে সেই অ্যাথলেটিক্স এখন যশোর ক্রীড়া সংস্থার কাগজে- কলমেই আবদ্ধ। সঠিক নির্দেশনা, পৃষ্ঠপোষকতা ও অর্থনৈতিক দূরবস্থার কারণেই এমন দশায় পরিণত বৃহত্তম ক্রীড়ার এ আসরটি। তবে বর্তমানে অ্যাথলেটিক্স পরিষদের নতুন কমিটি প্রথম সভায় নেয়া হয়েছে উদ্যোগ। করোনাভাইরাসের আশঙ্কামুক্ত হলে চলতি বছরে ২৫ অথবা ২৬ ডিসেম্বর মাঠে গড়াবে জেলা অ্যাথলেটিক প্রতিযোগিতা। আর এই প্রতিযোগিতায় আমন্ত্রিত দল হিসেবে খেলবে ভারতের বারাসাত আইডিয়া সিনিয়র অ্যাথলেটিক্স দল জানিয়েছেন সম্পাদক নিবাস হালদার।
সর্বশেষ কবে জেলায় অ্যাথলেটিক্স’র আসর বসেছিলো তা আজ অনেকেই ভুলে গেছেন। তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, সর্বশেষ জেলায় অ্যাথলেটিক্স’র আসর বসেছিলো ২০১০ সালে। সে আসরে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার কৃতিত্ব দেখিয়েছিলো ডিডি স্পোর্টিং ক্লাব। জেলায় সীমিত পরিসরে অ্যাথলেটিক্স’র চর্চা অব্যাহত রয়েছে। কিন্তু জেলা পর্যায়ে প্রতিযোগিতা নেই। অ্যাথলেটরা জাতীয় পর্যায়ের প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে থাকেন। অ্যাথলেটিক্স পরিষদ গঠন করা হয়েছে। দীর্ঘ বছর ধরে অবহেলিত এ ইভেন্টটি পরিচালনা করার যারা দায়িত্ব পেয়েছেন তাদের মধ্যে অনেকেই বিগত সময়েও দায়িত্বে ছিলেন। এবার কিছুটা পরিবর্তন করা হয়েছে। তাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব কতটা পালন করতে পারেন সেটিই এখন দেখার বিষয়। পরিষদের সভাপতি হয়েছেন জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুজ্জামান পিকুল, সম্পাদক হয়েছেন নিবাস হালদার। এছাড়া সহসভাপতি হয়েছেন জাহিদ হাসান টুকুন, পবিত্র কাপুড়িয়া, তানভিরুল ইসলাম সোহান, যুগ্ম সম্পাদক তৌহিদুর রহমান ও শহিদুল ইসলাম। সদস্য হয়েছেন সুব্রত সরকার, এস এম কামরুজ্জামান, তবিবর রহমান, বিরেশ্বর মন্ডল, বাজেদ আলী, এহসানুর রহমান, জাফর ইকবাল, কামাল হোসেন, জিল্লুর রহমান, সালাউদ্দিন দিলু, গুলশান আরা, আ ফ ম আশাফুদ্দৌলা টিটো ও আনসার আলী। এছাড়া সংস্থার সকল নির্বাহী কমিটির সদস্য ও উপজেলা ক্রীড়া পরিষদের সম্পাদকগণ পদাধিকার বলে সদস্য হয়েছেন। অ্যাথলেটিক্স পরিষদের সম্পাদক নিবাস হালদার বলেন, ‘করোনা পরিস্থিতি এবছরে স্বাভাবিক হলে ডিসেম্বর ২৫ অথবা ২৬ তারিখে মাঠে গড়াবে জেলা অ্যাথলেটিক্স প্রতিযোগিতা। আর এই প্রতিযোগিতায় আমন্ত্রিত দল হিসেবে খেলবে ভারতের বারাসাত আইডিয়া সিনিয়র অ্যাথলেটিক্স দল। ইতিমধ্যে যশোর কালেক্টরেট চত্বরে অ্যাথলেটদের প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে। এছাড়াও উপজেলা পর্যায়ে যেয়েও অ্যাথলেটদের প্রশিক্ষণ দিচ্ছে তারা। আগামী ২০-২১ সালে জাতীয় অ্যাথলেটিক্স প্রতিযোগিতায় স্বর্ণপদক জয়ের আশায় কাজ করছে পরিষদ বলে তিনি জানিয়েছেন।’

শেয়ার