রাজগঞ্জের আলোচিত জিএম বাবুসহ ৫ জনের নামে আদালতে মামলা

ভুয়া কাবিননামা তৈরি করে শিক্ষিকাকে স্ত্রী দাবি

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ জালিয়াতির মাধ্যমে ভুয়া কাবিননামা তৈরি করে এক শিক্ষিকাকে স্ত্রী দাবি করার অভিযোগে আদালতে মামলা হয়েছে। ওই মামলায় মণিরামপুরের জিএম বাবু নামে এক প্রতারকসহ ৫জনকে আসামি করা হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার মণিরামপুর উপজেলার রাজগঞ্জ এলাকার ওই গৃহবধূ যশোর জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলী আদালতে এই মামলা দায়ের করেন। বিচারক মামলাটি তদন্ত পূর্বক প্রতিবেদন দাখিলের জন্য পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) আদেশ দিয়েছেন। আসামিরা হলো, মণিরামপুর উপজেলার রাজগঞ্জের হানুয়ার কলেজপড়ার মৃত ইরফান আলী গাজীর ছেলে বাবর আলী গাজী ওরফে জিএম বাবু, রামনাথপুর গ্রামের মৃত আব্দুল আজিজের ছেলে আব্দুল ওয়াদুদ, মোবারকপুর গ্রামের মৃত আব্দুল খালেক দাড়িয়ার ছেলে আব্দুল হালিম, মনোহরপুর গ্রামের মৃত ইমান আলী গাজীর ছেলে আবুল বাসার ও ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুর উপজেলা শহরের মৃত আমির হামজার ছেলে সাইফুল ইসলাম।
মামলার বাদী মণিরামপুর এলাকার একটি প্রাইমারি স্কুলের সহকারী শিক্ষিকা। ২০১৪ সালে স্বামীর সাথে তার সম্পর্ক ছিন্ন হয়। দুই মেয়ে ও এক ছেলে নিয়ে রাজগঞ্জ এলাকার একটি বাড়ি ভাড়া নিয়ে বসবাস করেন। প্রতারক বাবু ওই শিক্ষিকাকে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ করেন বলে অভিযোগ এবং এ অভিযোগে তার বিরুদ্ধে মামলা হয়। ওই মামলায় বর্তমানে বাবু জেলহাজতে রয়েছেন।
কিন্তু মামলায় জামিন নিতে জালজালিয়াতির মাধ্যমে বাবু ওই শিক্ষিকাকে দুই লাখ টাকা দেনমোহরে বিয়ে করেছেন বলে একটি ভুয়া কাবিননামা তৈরি করে আদালতে উপস্থাপন করেছেন। ওই কাবিননামায় গত ১৩ জানুয়ারি রেজিস্ট্রি হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়। ফলে বিষয়টি জানতে পারেন ওই শিক্ষিকা। এছাড়া মণিরামপুরের চালুয়াহাটি ইউনিয়ন পরিষদ থেকেও নিয়েছেন একটি প্রত্যয়নপত্র। সেখানে বাবু ওই শিক্ষিকার স্বামী বলে পরিচয় দিয়েছেন। এভাবে একের পর এক উদ্দেশ্যমূলক ভাবে ওই শিক্ষিকার সাথে প্রতারণা চালিয়ে আসছেন জিএম বাবু। বিষযটি জানার পর ওই শিক্ষিকা বাদী হয়ে গত বৃহস্পতিবার যশোর জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলী আদালতে মামলা করেছেন।

শেয়ার