ধোনিকে ধুয়ে দিলেন গম্ভীর

সমাজের কথা ডেস্ক॥ দুইশর ওপরে রান তাড়া করার চ্যালেঞ্জ, সেখানে মহেন্দ্র সিং ধোনির মতো একজন অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান নামলেন কিনা সাত নম্বরে! কিছুতেই মানতে পারছেন না গৌতম গম্ভীর। এমন ‘অযৌক্তিক’ সিদ্ধান্তের জন্য চেন্নাই সুপার কিংস অধিনায়কের কড়া সমালোচনা করেছেন ভারতের সাবেক এই ওপেনার। তার মতে, সামনে থেকে নেতৃত্ব দেওয়া উচিত ছিল ধোনির।

শারজাহ ক্রিকেট স্টেডিয়ামে মঙ্গলবার আইপিএলের ম্যাচে রাজস্থান রয়্যালসের বিপক্ষে ২১৬ রান তাড়ার ম্যাচটি ১৬ রানে হেরে যায় চেন্নাই।

ইনিংসে ১৪তম ওভারে সাত নম্বর ব্যাটসম্যান হিসেবে নামা ধোনি ১৭ বলে ২৯ রানের ইনিংস খেলে অপরাজিত ছিলেন। শুরুতে ধুঁকলেও শেষ দিকে ঝড়ের আভাস দেন ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান। অবশ্য তার হাত খোলার আগেই ম্যাচ প্রায় ছিটকে গিয়েছিল। শেষ ওভারে তাদের দরকার ছিল ৩৮ রান। তাই টানা তিন ছক্কা হাঁকালেও কোনো লাভ হয়নি।

ব্যাটিং অর্ডারে এত নিচে নামায় ম্যাচ শেষে ইএসপিএনক্রিকইনফোর একটি আয়োজনে ধোনির কড়া সমালোচনা করেন গম্ভীর। বিশাল রান তাড়ার ম্যাচে এমন সিদ্ধান্তের কারণও খুঁজে পাচ্ছেন না দুইবার আইপিএল শিরোপা জেতা সাবেক এই অধিনায়ক।

“সত্যি কথা বলতে, আমি কিছুটা অবাক হয়েছি। এমএস ধোনি ৭ নম্বরে ব্যাটিং করছে? রুতুরাজ ও স্যাম কারানকে তার আগে পাঠানো হয়েছে। এর কোনো যুক্তিই খুঁজে পাচ্ছি না। অধিনায়কের সামনে থেকে নেতৃত্ব দেওয়া উচিত। কিন্তু সে যা করেছে, সেটাকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দেওয়া বলে না। যখন ২১৩ (২১৭) রান তাড়া করছে দল, তখন সে নামছে ৭ নম্বরে? ম্যাচ তো আগেই শেষ হয়ে গিয়েছিল। সম্ভবত ফাফ ছিল নিঃসঙ্গ যোদ্ধা।”

অন্য কেউ এমন সিদ্ধান্ত নিলে মানুষের রোষানলে পড়তে হতো বলে মনে করেন গম্ভীর। তার মতে, ধোনি বলেই এখনও লোকে শান্ত আছে।

“যদি এটা অন্য কেউ করত, অন্য কোনো অধিনায়ক (ব্যাটসম্যান) সাতে ব্যাটিং করত, তাকে অনেক সমালোচনা শুনতে হতো। এমএস ধোনি বলেই হয়তো কেউ কিছু বলছে না। সুরেশ রায়নার অনুপস্থিতিতে সে মানুষকে বিশ্বাস করাচ্ছে, তার চেয়ে স্যাম কারান ভালো। রুতুরাজ গাইকোয়াড, কারান, কেদার যাদব, ফাফ দু প্লেসি, মুরালি বিজয়, সবাই তার চেয়ে ভালো।”

ম্যাচে নিজের প্রথম বাউন্ডারিটি শেষ ওভারে মেরেছিলেন ধোনি। টম কারানের ওভারে ওই তিন ছক্কা। গম্ভীরের কাছে সেগুলো কেবলই কিছু ব্যক্তিগত রান।

“হ্যাঁ, শেষ ওভারে ধোনির ব্যাটিং নিয়ে কথা বলা যায় (যখন সে ৩ ছক্কা মেরেছিল)। কিন্তু সত্যি বলতে এটা কোনো কাজে আসেনি। সবই কেবল ব্যক্তিগত রান।”

গম্ভীরের মতে, আরও ওপরে নেমে ৩৭ বলে ৭২ রান করা দু প্লেসির পাশাপাশি দলকে জেতানোর চেষ্টায় শামিল হওয়া উচিত ছিল অধিনায়ক ধোনির। তার ম্যাচ জেতার তাড়না নিয়েও প্রশ্ন তোলেন ভারতের সাবেক এই ব্যাটসম্যান।

“আগে নেমে আউট হয়ে যাওয়ায় কোনো সমস্যা নেই। অন্তত সামনে থেকে নেতৃত্ব দেওয়া তো শুরু করো, দলকে উজ্জীবিত করার চেষ্টা করো। শেষ ওভারে সে যা করেছে, সম্ভবত এটা যদি ৪ বা ৫ নম্বরে নেমে ফাফের পাশাপাশি করত, তাহলে ম্যাচ বের করে নিতে পারত। সম্ভবত ম্যাচ জেতানোর কোনো অভিপ্রায়ই তার ছিল না।”

নিজের ব্যাটিং নিয়ে ভবিষ্যৎ চিন্তায় ধোনি এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলেও মন্তব্য করেন গম্ভীর।

“আমার মনে হয়, ৬ ওভার পরই তারা হাল ছেড়ে দিয়েছিল। আর ধোনি সম্ভবত শেষ পর্যন্ত ব্যাটিং করে ছন্দে ফেরার চেষ্টা করছিল। কিছু রান করতে চাইছিল, যেন এমন ইনিংস সামনের ম্যাচগুলোতে খেলতে পারে।”

ধোনির নিচে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্তকে অবশ্য সমর্থন করছেন চেন্নাইয়ের প্রধান কোচ স্টিভেন ফ্লেমিং। কারান ও রুতুরাজকে আগে নামানোর কারণও ম্যাচ শেষে ব্যাখ্যা করেন তিনি।

“ইনিংসের শেষ দিকের বিশেষজ্ঞ ব্যাটসম্যান এমএস, সে সবসময়ই তাই ছিল। আমরা যখন পিছিয়ে পড়ছিলাম, কারান চেষ্টা করছিল আমাদের ম্যাচে রাখার। আমরা আগে দেখেছি, তার হিটিং পাওয়ার ভালোৃআমরা চেয়েছি আক্রমণাত্মক ক্রিকেট খেলতে। লম্বা ব্যাটিং অর্ডার আমাদের, এটাকে স্মার্টলি ব্যবহার করার চেষ্টা করেছি।”

শেয়ার