লোহাগড়ায় কলেজ ছাত্রকে কথিত বিয়ের ফাঁদে ফেলে ১০ লাখ টাকা দাবি !

লোহাগড়া (নড়াইল) প্রতিনিধি॥ নড়াইলের লোহাগড়ায় কলেজ ছাত্র মোঃ রেদওয়ান মাহফুজ(২৩)সহ তার পরিবারকে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে বিয়ের ফাঁদে ফেলে হয়রানি করার অভিযোগ উঠেছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্র ও অভিযোগে জানা গেছে, ইতনা ইউনিয়নের কুমারডাঙ্গা গ্রামের মোঃ ইজাবুল শেখের ছেলে মোঃ রেদওয়ান মাহফুজ লোহাগড়া সরকারি আদর্শ কলেজের অনার্স (রাষ্ট্রবিজ্ঞান) শেষ বর্ষের ছাত্র।
২০১৭ সালের ডিসেম্বর মাসে অপরিচিত একটি মোবাইল ফোন নাম্বার থেকে রেদওয়ান মাহফুজের ফোনে কল আসে। ফোনে কুন্দসী এলাকার তিশা আক্তার (২২) নামে একটি মেয়ে নিজের পরিচয় দেয়। রেদওয়ান মাহফুজ ওই মেয়ের সাথে স্বাভাবিক কথা বলেন। কয়েকদিন কথা বলার পর ওই মেয়ে রেদওয়ান মাহফুজকে দেখা করতে বলেন। কলেজ থেকে বাড়ি ফেরার পথে ওই মেয়ের সাথে মেয়ের বাড়ির সামনেই তার দেখা হয়। এ সময় তার দেওয়া প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেন রেদওয়ান মাহফুজ। তারপর ওই মেয়ের সাথে দুই বছর যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেন তিনি। পরবর্তীতে ওই মেয়ে রেদওয়ান মাহফুজের বাড়ির ঠিকানা সংগ্রহ করেন।
২০১৯ সালের মাঝামাঝিতে ওই মেয়ে পুনরায় রেদওয়ান মাহফুজ কে উত্যক্ত করা শুরু করেন। রেদওয়ান মাহফুজ বিষয়টি তার পরিবারকে জানালে মাহফুজের পরিবার বিষয়টি মেয়ের পরিবারকে জানায়। পরে দুই পরিবার বিষয়টির সমাধান করতে আগ্রহী হয়। তবে মেয়ের পরিবার ও আত্মীয় স্বজন ১০ লাখ টাকা দাবি করে বসেন।
পরবর্তীতে গত বছর ২৯ নভেম্বর ওই মেয়ের লোহাগড়া বাজারস্থ এক আত্মীয়র বাসায় মিমাংসার জন্য বসা হয়। কিন্তু মেয়ে পক্ষের লোকজন সেখানে জোর করে বিয়ের কাবিননামা ফরমসহ একশত টাকার পাঁচটি ননজুডিশিয়াল স্টাম্পে রেদওয়ান মাহফুজের স্বাক্ষর নেয়। জোর করে স্বাক্ষর নেয়া সেই কাবিননামা নিয়ে ওই মেয়ে গত ৩ সেপ্টেম্বর রেদওয়ান মাহফুজের বাড়িতে গিয়ে উঠে। রেদওয়ান মাহফুজের পিতা লোহাগড়া থানায় অভিযোগ দিলে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ওই মেয়েকে উদ্ধার করে মেয়ের পরিবারের কাছে সোপর্দ করে। গত ৪ সেপ্টেম্বর বিষয়টির সুরাহা করতে থানায় বসলে পুলিশ দু পরিবারকে সমঝোতা করে নিতে বলে। কিন্তু মেয়ে পক্ষ সেই ১০ লাখ টাকা দাবিতে অনড় থাকায় সমাধান হয়নি।
পরে মামলা করার উদ্দেশ্যে স্বামী মারপিট করেছে মর্মে বিবরণ দিয়ে তিশা আক্তার গত ১৫ সেপ্টেম্বর লোহাগড়া হাসপাতালে ভর্তি হয়ে পরের দিন হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র নিয়েছে।
এ অবস্থায় কলেজ ছাত্র রেদওয়ান মাহফুজ আশংকা করছেন মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে তাকেও তার পরিবারকে হয়রানি করার ষড়যন্ত্র চলছে। কলেজ ছাত্রের পিতা মোঃ ইজাবুল শেখ বলেন, অযথা আমার পরিবারকে হয়রানি করা হচ্ছে। মেয়ে পক্ষের লোকজন লাখ লাখ টাকা দাবি করে দেনদরবার শুরু করেছে।
ইতনা ইউনিয়নের বিবাহ রেজিস্ট্রার মোহাম্মাদ রুহুল্লা বলেন, ওই বিয়ে আমি পড়াইনি, রেজিস্ট্রিও করিনি। আমি উপস্থিতও ছিলাম না। কাবিনামায় আমি স্বাক্ষরও করিনি। অথচ কথিত কাবিনে আমার নামের সিল সহি ব্যবহার করা হয়েছে। আমি বিষয়টি পরে জেনেছি।
এদিকে এসব বিষয়ে বক্তব্য নিতে কুন্দসী এলাকার তিশা আক্তারের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করে করলেও তাকে পাওয়া যায়নি। লোহাগড়া থানার ওসি (তদন্ত) মোঃ ফিরোজ বলেন, বিষয়টির সমাধান করতে দুই পরিবারকে পরামর্শ দেয়া হয়েছিল। পরে শুনলাম তারা সমাধান করতে পারেনি। তবে সার্বিক বিষয়ে আমরা অবগত।

শেয়ার