যশোর আদালতে দুর্নীতির মামলায় চিকিৎসক ও পুলিশের এসআইয়ের নামে গ্রেফতারি পরোয়ানা

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ দুর্নীতি মামলায় এবার যশোরের এক চিকিৎসক ও পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত। বৃহস্পতিবার চার্জশিটের উপর শুনানি শেষে সিনিয়র স্পেশাল জেলা জজ আদালতের বিচারক ইখতিয়ারুল ইসলাম মল্লিক এই আদেশ দিয়েছেন। আসামিরা হলেন, যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসাপতালের তৎকালীন ইমার্জেন্সি মেডিকেল অফিসার বর্তমানে ঢাকার সোহরাওয়ার্দি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শিশু সার্জারি বিভাগের সহকারী রেজিস্ট্রার ডাক্তার আব্দুল্লাহ আল মামুন ও কেশবপুর থানার তৎকালীন এসআই ও বর্তমানে বাগেরহাট সদর থানায় কর্মরত হিরন্ময় সরকার। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন দুদকের পিপি অ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলাম। মামলার বিবরণে জানা গেছে, ২০১৫ সালে কেশবপুরের শ্রীফলা গ্রামে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় ছেরমত আলী গুরুতর আহত হন। এ ব্যাপারে ছেরমত আলীর ভাই বাদী হয়ে কেশবপুর থানায় মামলা করেন। যার নম্বর ১২, তারিখ ২৩/৩/২০১৫। তদন্তকালে এসআই হিরন্ময় সরকার ও যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের তৎকালিন চিকিৎসক আব্দুল্লাহ আল মামুন যোগসাজসে মিথ্যা জখমি সনদ তৈরি করেন। এবং আদালতে দুর্বল চার্জশিট দাখিল তদন্ত কর্মকর্তা।
বিষয়টি আহত ছেরমত আলীর নজরে আসলে ২০১৮ সালের ২১ মে জেলা ও দায়রা জজ আদালতে ওই দুইজনের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ এনে মামলা করেন। আদালতের আদেশে দুর্নীতি দমন কমিশনের সহকারী পরিচালক মাহফুজ ইকবাল তদন্ত শেষে ঘটনার সত্যতা পেয়ে ওই দুইজনকে অভিযুক্ত করে গত ১৯ জুলাই সিনিয়র স্পেশাল জজ আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেন। গতকাল বৃহস্পতিবার ধার্য্য দিনে তদন্ত প্রতিবেদনের উপর শুনানি শেষে বিচারক তা গ্রহণ করে পলাতক আসামিদের প্রতি গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির আদেশ দেন।

 

শেয়ার