যশোরে ব্যবসায়ীকে অপহরণের পর চাঁদা দাবি, দুর্বৃত্ত আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ যশোরে এক ব্যবসায়ীকে পাওনা টাকা পরিশোধের কথা বলে অপহরণের পর চাঁদা দাবিতে মারপিটের ঘটনায় শামিম হোসেন নামে এক দুর্বৃত্তকে আটক করেছে পুলিশ। সোমবার বিকেলে শহরের চুয়াডাঙ্গা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় এই ঘটনার পর ওই ব্যবসায়ী বাদী হয়ে ৪ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা আরো ৩/৪ জনের বিরুদ্ধে কোতোয়ালি মডেল থানায় মামলা করেছেন। আটক শামিম শহরের পুরাতন কসবা এলাকার মৃত মনির হোসেনের ছেলে।
এই মামলার পলাতক আসামিরা হলো, পুরাতন কসবার আব্দুস সাত্তারের ছেলে রিয়াদ, আরবপুরের আব্দুল খালেকের ছেলে বিষে এবং এরবপুর রেললাইন এলাকার সাগর।
মামলার বাদী সদর উপজেলার ইছালী ইউনিয়নের রামকৃষ্ণপুর গ্রামের তালাত মাহমুদ সাবু যশোর শহরের ঘোপ এলাকার কুইন্স হাসপাতালের সামনে চা সিগারেটের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। আসামি রিয়াদ ১২ সেপ্টেম্বর বিকেলে সাবুর কাছ থেকে বাকিতে ৩৭ হাজার ২শ’ টাকার সিগারেট নেয়। গত ১৪ সেপ্টেম্বর বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে চুয়াডাঙ্গা বাসস্ট্যান্ডে সাতক্ষীরা ঘোষ ডেয়ারি মিষ্টির দোকানের সামনে বাকি টাকা আনার জন্য সাবুকে মোবাইল ফোনে জানায় রিয়াদ। সেখানে যাওয়ার পরে সকল আসামিরা সাবুকে অপহরণ করে একটি ইজিবাইকে তুলে নিয়ে বালিয়া ভেকুটিয়া গ্রামে একটি পুকুর পাড়ে যায়। সেখানে তাকে আটক রেখে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবিতে মারপিট করে। এসময় সাবুর কাছে থাকা ৩ হাজার এবং তার মোবাইলে বিকাশে থাকা ১০ হাজার টাকা সেন্ড মানি করে নেয়। এছাড়া সাবুর মামা নূর ইসলামের কাছ থেকে বিকাশের মাধ্যমে নিয়েছে ৯ হাজার ৯শ’ টাকাসহ সর্বমোট ২২ হাজার ৯শ’ টাকা চাঁদা স্বরুপ আসামিরা নিয়েছে। পরে রাত ৯টার দিকে তাকে ছেড়ে দেয়। এই বিষয় নিয়ে থানা পুলিশ বা কাউকে জানানো হলে সাবুকে জীবননাশের হুমকি দেয়া হয়েছে। এরপর সাবু যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল থেকে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে থানায় অভিযোগ করেন। মঙ্গলবার আটক শামিমকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। তবে এই ঘটনার সঠিক তথ্য উদঘাটনের জন্য তাকে ৫ দিনের রিমান্ডের জন্য আদালতে আবেদন জানাবেন তদন্ত কর্মকর্তা এসআই শহিদুল ইসলাম।

 

শেয়ার