যশোর শহরের নতুন মানচিত্র

 আয়তন বৃদ্ধির ফলে বাড়বে নতুন বিনিয়োগ

যশোর শহরের নতুন মানচিত্র সালমান হাসান রাজিব
বিদেশি বিনিয়োগে যশোর পৌরসভার উন্নয়ন সক্ষমতা ক্রমশ বাড়ছে। দাতা সংস্থার অর্থায়নে সাম্প্রতিক বছরগুলোয় প্রতিষ্ঠানটি শহরের অবকাঠামোর অনেক উন্নয়ন ঘটিয়েছে। আর প্রতিষ্ঠানটির এই উন্নয়ন সামর্থ্য আরো বৃদ্ধির জন্য সম্প্রতি যশোর পৌর এলাকার আয়তন বাড়ানো হয়েছে। আর আয়তন বেড়ে যাওয়ায় চলমান উন্নয়ন প্রকল্পে বিনিয়োগ আরো বাড়বে। পাশাপাশি নতুন বিনিয়োগকারী আকৃষ্ট করাও সম্ভব হবে।
জানা গেছে, এশিয়ান ডেভলপমেন্ট ব্যাংকের অর্থায়নে যশোর পৌরসভার অবকাঠামো উন্নয়নে দেড়শ কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন চলছে। পৌরসভার আয়তন বৃদ্ধির ফলে উন্নয়ন প্রকল্পটিতে এবার বিনিয়োগের পরিমাণ আরো বাড়বে। এমনকি যশোর পৌরসভা বিশ্ব ব্যাংকের মতন বড় আর্থিক প্রতিষ্ঠানের বিনিয়োগ টানতেও সক্ষম হবে।
যশোর পৌরসভার সচিব আজমল হোসেন জানান, পৌর এলাকার আয়তন সম্প্রসারণ হওয়ায় চলমান উন্নয়ন প্রকল্পে এশিয়ান ডেভলপমেন্ট ব্যাংক বিনিয়োগ আরো বাড়াবে। সেই সাথে বিশ্বব্যাংকের মতন বড় আর্থিক সংস্থার বিনিয়োগ আকৃষ্ট করা সম্ভব হবে।
চূড়ান্ত গেজেট প্রকাশ করে সীমানা সম্প্রসারণের পর এবার যশোর শহরের মানচিত্র বদলের কাজ শুরু হয়েছে। শহরের নতুন মানচিত্র কর?ছে য?শোর পৌরসভা। এগারটি মৌজা সংযুক্ত করে নতুন এই মানচিত্র তৈরি চলছে। আর মানচিত্র তৈরি শেষে পৌরসভার সম্প্রসারণের আওতায় আসা এলাকাগুলো নিয়ে নতুন ওয়ার্ড ঘোষণা হবে। যার জন্য পৌর এলাকায় নতুন অর্ন্তভূক্ত এলাকাগুলোর এখন সীমানা নির্ধারণের পাশাপাশি নতুন মানচিত্র তৈরি চলছে। শিগগিরিই নতুন এই মানচিত্র সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে। আর তার পরপরই নতুন ওয়ার্ড ঘোষণা করা হবে।
জানা গেছে, কোন পৌরসভায় বিদেশি দাতা সংস্থার অর্থায়ন নির্ভর করে মূলত সংশ্লিষ্ট পৌরসভাটির আয়তনের উপর। আয়তনে বড় হলে সেই পৌরসভায় উন্নয়ন বিনিয়োগ তুলনামূলক বেশি হয়। আর আয়তন ছোট হলে অর্থ বিনিয়োগ কম হয়। তবে প্রথম শ্রেণির মর্যাদার যশোর পৌরসভা আয়তনে অনেকটাই ছোট। যার জন্য এখানে চলমান উন্নয়ন কাজে বিদেশি বরাদ্দ তেমন বাড়ছে না। আর আয়তন ছোট হওয়ায় জন্য নতুন বিনিয়োগকারীরাও আকৃষ্ট হচ্ছে না। যশোর পৌরসভায় সিটি রিজন ডেভলপমেন্ট (সিআরডিপি) প্রকল্পের আওতায় দেশে বর্জ্য ব্যবস্থাপনার রোল মডেল ওয়েস্ট ট্রিটমেন্ট এন্ড কম্পোষ্ট প্লান্ট নির্মিত হয়েছে। পাশাপাশি এই প্রকল্পের মাধ্যমে শহরের অনেকগুলো রাস্তা পুনঃনির্মানসহ সেখানে ড্রেন ও ফুটপাত নির্মিত হয়েছে। প্রকল্পটির অর্থায়নে লালদীঘি খনন-সংস্কার ও পৌরপার্কের ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। এছাড়া তৃতীয় নগর পরিচালন ও অবকাঠামো উন্নতিকরন সেক্টর প্রকল্প (ইউজিপআইআই-৩)’র মাধ্যমে অবকাঠামো উন্নয়ন কাজ চলমান রয়েছে।

শেয়ার