যবিপ্রবিতে নমুনা পরীক্ষায় নতুন ৯১ জনের করোনা শনাক্ত

যশোরে ৫৬ নড়াইলে ২৪ মাগুরায় ১১ নমুনা পজেটিভ

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) জেনোম সেন্টারে নমুনা পরীক্ষায় নতুন ৯১ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। শনিবার দিনগত রাতে পরীক্ষা শেষে রোববার সকালে এই ফলাফল প্রকাশ করা হয়। এদিন যশোর, মাগুরা এবং নড়াইলের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের অণুজীববিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ও পরীক্ষণ দলের সদস্য ড. তানভীর ইসলাম জানান, শনিবার তাদের ল্যাবে তিন জেলার মোট ২৪৭টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে ১৫৬টি নমুনা নেগেটিভ ফল দেয়। এদিন যশোরের ১৬৯টি নমুনা পরীক্ষা করে ৫৬টি পজেটিভ রেজাল্ট পাওয়া যায়। এছাড়া মাগুরার ৩৫টি নমুনা পরীক্ষা করে ১১টি এবং নড়াইলের ৪৩টি নমুনার মধ্যে ২৪টি পজিটিভ ফল দেয়। শনিবার বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত যশোর জেলায় মোট দুই হাজার ১৫২ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত করা হয়। এই সময় পর্যন্ত জেলায় মারা গেছেন ৩০ জন। সুস্থ হয়ে উঠেছেন এক হাজার ২৩৬ জন।
যশোরে যাদের করোনা শনাক্ত হলো ঃ যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের জেনোম সেন্টার রোববার যশোর জেলার যে ৫৬ জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত করেছে, তার মধ্যে সদর উপজেলার ২৫ জন রয়েছেন। এছাড়া চৌগাছা উপজেলার ছয়জন, শার্শার সাত, অভয়নগরের ছয়, ঝিকরগাছার পাঁচ, কেশবপুরের তিন, বাঘারপাড়ার দুই এবং মণিরামপুর উপজেলার দুইজনের নাম আছে। স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানা যায়, যশোর শহরসহ সদর উপজেলায় আক্রান্তরা হলেন, সরকারি মহিলা কলেজপাড়ার কামরুন নাহার (৪৭), রেল রোডের আজগর আব্দুল্লাহ (৪১) ও আসিকুর রহমান (৬০), মুড়লি মোড়ের সবুজ হোসেন (২৩) ও নবুওয়াত শেখ (২২), চাড়াতলার রুবিয়া (৫০), মিশনপাড়ার শারমিন আক্তার রনি (৩৬) ও আতিফা (১৬), পালবাড়ির আলমগীর (৫৬), উপশহরের মাসিকুর কবীর (৬০), মাছবাজারের প্রতাপ সাহা বাপি (৪৯), নীলগঞ্জের অশোক কুমার বোস (৪০), জেনারেল হাসপাতালের কর্মী নিমাইচন্দ্র দাস (৫৭), ঈতি বসু (৩৩) ও আবুল হাসান (৪০), রামকৃষ্ণ আশ্রম রোডের রাফসান জামিল (২৭), ঘোপের মিষ্টিরানি (৩৬) ও বিবেকানন্দ (৩৮), লোন অফিসপাড়ার শ্যামলী (৫০), নাজির শংকরপুরের ফজিলা (৮১), বড়োয়েলের মাসুদুর রহমান (৪৫), পোস্ট অফিসপাড়ার গোলাম মোস্তফা (৬৭) এবং মণিরামপুরের বখতিয়ার রহমান (৩৬)। শেষ ব্যক্তি যশোরে নমুনা দিয়েছিলেন। চৌগাছা উপজেলায় কোভিড-১৯ রোগাক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন শহরের বিশ্বাসপাড়ার তরিকুল ইসলাম (৩৭), মিয়াপাড়ার মফিজুর রহমান (২৭), তরিনিবাসের গহর আলী (৮৫), পাঁচনামনার ইসমাইল হোসেন (৫২) ও আসমা সুলতানা (৪৩) এবং উপজেলা কোয়ার্টারের আনোয়ার হোসেন (৫৪)। কেশবপুর উপজেলায় আছেন মজিদপুরের মতিয়ার রহমান (৪৮), উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নিলুফার ইয়াসমিন (৩০) এবং চিংড়ার আমিনুর রহমান (২৭)। শার্শায় শনাক্তরা হলেন বেনাপোল শহরের চার নম্বর ওয়ার্ডের অমল হাসান (২৫) ও ইব্রাহিম (১০), যাদবপুরের মনা (৪৭), পুলিশ সদস্য রমজান মুনশি (২৭), কাজীরবেড়ের নন্দিতা নার্গিস খান (৩৭), উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের হোসনে আরা (৪০) এবং শার্শার ছয় নম্বর ওয়ার্ডের ফজলুর রহমান (৫৫)। মণিরামপুর উপজেলায় আছেন খেদাপাড়ার সেলিম হোসেন (৪০) ও আনিস (৪০)। ঝিকরগাছা উপজেলায় আক্রান্ত হয়েছেন শহরের কৃষ্ণনগরের এসএম আকসারুল হক (৩০) ও সেলিম মিয়া (৩৩), কাশীপুরের আব্দুস সালাম (৫০) ও আরিফুল জামান (৪২) এবং মাগুরা জেলার রাকিবুল হাসান (৪০)। শেষ ব্যক্তি ঝিকরগাছায় নমুনা দিয়েছিলেন। অভয়নগর উপজেলায় শনাক্ত হয়েছেন রাজঘাটের মাসুদুল ইসলাম (৩৬), নওয়াপাড়ার আইরিন পারভীন কুইন (৪৫), গুয়াখোলা ছয় নম্বর ওয়ার্ডের নাজমুন নাহার (৪৫), পৌরসভার ছয় নম্বর ওয়ার্ডের বিথীকারানি সাহা (৪৫), বুইকারার রিপন ম-ল (৩৫) এবং নওয়াপাড়া স্টেশন বাজারের মোস্তফা সাইফুল ইসলাম (৪৩)। বাঘারপাড়া উপজেলায় আছেন রায়পুরের ইনামুল কবীর (৫৪) ও বন্দবিলার আনজুমান আরা (৫৮)।
আক্রান্তদের বাড়ি লকডাউনসহ প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ।

শেয়ার