যশোরের ১৮ পশুহাটে ক্রেতা বিক্রেতাকে সচেতন করতে ব্র্যাকের ব্যাপক কার্যক্রম

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ করোনাভাইরাসের মধ্যে ক্রেতা বিক্রেতাকে সতর্ক ও সচেতন করতে ব্যাপক প্রচার চালাচ্ছে বেসরকারি উন্নয়ন প্রতিষ্ঠান ব্র্যাক। ‘গরু খাসি যাই কিনি, মাস্ক পরে কোরবানি’ এমন স্লোগান দিয়ে তারা যশোরের ১৮টি পশুহাটে প্যানা টাঙিয়েছেন। করছেন মাইকিং। বিতরণ করে চলেছেন লিফলেট।
‘মহামারী’ করোনাভাইরাসের প্রকোপ সারা বিশ্ব। এ ভাইরাস থেকে নিজেদের রক্ষা করতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গাইড লাইন অনুসরণ করে বাংলাদেশ সরকার বেশ কিছু দিক নির্দেশনা দিয়েছে। সরকারের সেই নির্দেশনা পালনে জনগণকে উদ্বুদ্ধ করতে ব্র্যাকসহ বিভিন্ন এনজিও এবং স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন মাঠ পর্যায়ে প্রচারণা চালাচ্ছে। ওই সব প্রতিষ্ঠান প্রথম থেকে লিফলেট বিতরণ করে সচেতনতামূলক প্রচার চালায়। তারা স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী ও ঘরবন্দি কর্মহীনদের মাঝে সাধ্য মতো খাদ্য সামগ্রীও বিতরণ করা হয়েছে। এরই মধ্যে মুসলমানদের অন্যতম প্রধান ধর্মীয় উৎসব ঈদুল-আজহা উদযাপনে চলছে কোরবানির পশু কেনাকাটা। পশুহাটে লোকসমাগম এড়াতে তাই বেশকিছু কার্যক্রম করে চলেছে এনজিও ব্র্যাক। তারা যশোরের চৌগাছা, ঝিকরগাছা, ছুটিপুর ও কায়েমকোলা, মণিরামপুর ও রাজগঞ্জ, কেশবপুর, মঙ্গলকোট ও ভান্ডারখোলা, শার্শার নাভারন ও বাগআঁচড়া, অভয়নগর ও বাঘারপাড়ায় ২ টিসহ ১৮টি পশুহাটে প্যানা টাঙিয়েছে। প্যান সাইনবোর্ডে স্বাস্থ্য সুরক্ষায় করণীয়, স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী ব্যবহার, একটি গরু বা ছাগল কিনতে দুই জনের বেশি না যেতে উদ্বুদ্ধ করা হয়েছে। মাইকিং ও লিফলেট বিতরণ করেও সতর্ক ও সচেতনা বাড়ানোর চেষ্টা করছে ব্র্যাকের মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তা ও কর্মীবৃন্দ। গত ২৭ জুলাই থেকে এ কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে বলে জানিয়েছেন ব্র্যাকের যশোর জেলা প্রতিনিধি অমরেশ চন্দ্র দাস।

শেয়ার