রায়হানের গ্রেপ্তার মালয়েশিয়ার প্রতিশোধ: এইচআরডব্লিউ

সমাজের কথা ডেস্ক॥ মালয়েশিয়া সরকারের হাতে আল-জাজিরার তথ্যচিত্রে আসা বাংলাদেশি অভিবাসীর গ্রেপ্তারকে অভিবাসীদের প্রতি সরকারি নীতির সমালোচনার পাল্টা ‘প্রতিশোধ’ হিসেবে দেখছে হিউম্যান রাইটস ওয়াচ (এইচআরডব্লিউ)।
অবিলম্বে মোহাম্মদ রায়হান কবির নামে ২৫ বছর বয়সী ওই তরুণকে মুক্তি দিয়ে তার ‘ওয়ার্ক পারমিট’ পুনর্বহালের দাবি জানিয়েছে নিউ ইয়র্কভিত্তিক মানবাধিকার সংগঠনটি।

এইচআরডব্লিউর উপপরিচালক (এশিয়া) ফিল রবার্টসন এক বিবৃতিতে বলেন, “রায়হান কবিরের প্রতি মালয়েশীয় কর্তৃপক্ষের আচরণ সব অভিবাসী শ্রমিকদের প্রতি রোমহর্ষক বার্তা দিচ্ছে, যেখানে অধিকার লঙ্ঘন, নির্বিচার গ্রেপ্তার, প্রত্যাবাসন ও তালিকাভুক্তির কথা উঠে এসেছে।

“একটি তথ্যচিত্রে সূত্রকে গ্রেপ্তার মালয়েশিয়ায় মুক্তবাক ও গণমাধ্যমের স্বাধীনতার উপর বিধ্বংসী দমন-পীড়নে নতুন মাত্রা যোগ করেছে।”

করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যে অভিবাসী শ্রমিকদের প্রতি মালয়েশিয়ার সরকারে আচরণের সমালোচনে আল-জাজিরার ডকুমেন্টারিতে দেওয়া সাক্ষাৎকার প্রকাশের পর ২৪ জুলাই রায়হানকে গ্রেপ্তার করা হয়।

পরে দেশটির অভিবাসন মহাপরিচালক খায়রুল জাইমি দাউদ এক বিবৃতিতে তাকে দেশে ফেরত পাঠানো হবে বলে জানান।

তিনি বলেন, “বাংলাদেশি এই নাগরিককে ফেরত পাঠানো হবে এবং তাকে কালো তালিকাভুক্ত করা হবে, যাতে আর কখনোই মালয়েশিয়ায় ঢুকতে না পারে।”

রায়হানকে গ্রেপ্তারের কারণ কিংবা তিনি কোনো অপরাধের সাথে জড়িত কিনা,সে বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেননি তিনি।

গত ৩ জুলাই আল জাজিরা টেলিভিশনে সম্প্রচারিত প্রামাণ্য প্রতিবেদনে মহামারীর মধ্যে অবৈধ অভিবাসী শ্রমিকদের চিকিৎসা সেবা দেওয়ার বিষয়ে সরকারের কর্মকা-ের সমালোচনা করে বক্তব্য দেন রায়হান কবির।

আল জাজিরাকে তিনি বলেন, মহামারীর মধ্যে অবৈধ শ্রমিকদের আটক ও জেলে পাঠানোর মাধ্যমে মালয়েশিয়া সরকার বৈষম্যমূলক আচরণ করছে। এটা কোনো মানবিক আচরণ হতে পারে না।

তবে দেশটির সরকারের কর্মকর্তারা আল জাজিরার ওই খবর ‘ভুল, বিভ্রান্তিকর এবং অন্যায্য’ বলে দাবি করেন।

ওই প্রতিবেদন সম্প্রচারের পর দেশটিতে ক্ষোভের সঞ্চার হলে রায়হানের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়।

এ ঘটনায় পুলিশ আল জাজিরার সাংবাদিকদের জিজ্ঞাসাবাদে তলব করার পর মানবাধিকার সংগঠনগুলো অভিযোগ তুলেছে, দেশটির সরকার গণমাধ্যমের প্রতি দমনমূলক আচরণ করছে।

রায়হান কবিরের গ্রেপ্তারের বিষয়ে কাতারভিত্তিক আল জাজিরা কোনো বক্তব্য না দিলেও টেলিভিশনটির কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, তাদের কর্মী এবং ওই প্রতিবেদনে যাদের সাক্ষাৎকার নেওয়া হয়েছিল, তাদেরকে হয়রানি, হত্যার হুমকি এবং ব্যক্তিগত তথ্য সামাজিক মাধ্যমে ফাঁস করার হুমকি দেওয়া হচ্ছে।

করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে লকডাউন শুরু হলে মালয়েশিয়া সরকার শিশু, রোহিঙ্গা শরণার্থীসহ কয়েকশ অবৈধ শ্রমিককে আটক করে।

মালয়েশিয়া সরকারের কর্মকর্তারা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতেই অবৈধ অভিবাসীদের আটকের পক্ষে যুক্তি তুলে ধরলেও অধিকারকর্মীরা এ ধরনের ধরপাকড়কে ‘অমানবিক’ বলছেন।

দেশটির স্থানীয়রাও অভিবাসী শ্রমিকদের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছেন। করোনাভাইরাস ছড়ানোর জন্য অভিবাসী শ্রমিকদের দায়ী করার পাশাপাশি তাদেরকে দেশটির সরকারের জন্য বোঝা মনে করছেন মালয়েশিয়ার জনগণ।

শেয়ার