হাসপাতালে শুয়েও ‘ভার্চুয়াল সভার পরিকল্পনায় ছিলেন’ নাসিম

সমাজের কথা ডেস্ক॥ আওয়ামী লীগ বিরোধী দলে থাকতে দলটির যে কয়েকজন নেতাকে রাজপথে বলিষ্ঠ ভূমিকায় দেখা যায়, তাদের অন্যতম মোহাম্মদ নাসিম ১৪ দলের রাজনৈতিক তৎপরতায়ও ছিলেন সামনের কাতারে।
করোনাভাইরাস আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালের শয্যায় শুয়েও তিনি জাতীয় এই সংকট থেকে উত্তরণের পথ খুঁজতে ভার্চুয়াল আলোচনা সভা করার পরিকল্পনা করেছিলেন।
সেই নাসিম ৭২ বছর বয়সে শনিবার সকালে মারা যাওয়ায় হতাশা প্রকাশ করেছেন ১৪ দলের জোট শরিক বাংলাদেশেও ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন।
বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক জাতীয় চার নেতার একজন এম মনসুর আলীর ছেলে নাসিম আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য ছিলেন। আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোটের মুখপাত্রের দায়িত্ব পালন করছিলেন তিনি।
তার মৃত্যুতে হতাশা প্রকাশ করে ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, করোনাভাইরাসের মধ্যে দেশের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে ১৪ দলের একটি ভার্চুয়াল কনফারেন্স হওয়ার কথা ছিল। হাসপাতালের বিছানায় শুয়ে মোহাম্মদ নাসিম এই বিষয়ে তার সাথে আলোচনা করেছেন।
“কয়েক দিন আগে তিনি যখন হাসাপাতালে চিকিৎসাধীন তখন তার সাথে আমার শেষ কথা হয়েছিল। কথা ছিল যে শিগগিরই আমরা একটা ভার্চুয়াল কনফারেন্সে সবাই মিলিত হয়ে দেশের অবস্থা নিয়ে কথা বলব। এই করোনাকালেও তিনি ১৪ দলের ত্রাণ সহায়তাসহ বিভিন্ন কর্মকা-ে অগ্রণী ভূমিকা রেখেছেন।”
মেনন বলেন, “প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যোগ্য সহযোদ্ধা হিসেবে ১৪ দলের সকল দলকে একত্রে ডেকে কার্যক্রম অব্যাহত রেখে গেছেন মোহাম্মদ নাসিম। সরকারের উন্নয়ন অব্যাহত রাখার ক্ষেত্রেও ভূমিকা পালন করে গেছেন তিনি।”
নাসিম তার পিতা এম মনসুর আলীর ঐহিত্য ও আদর্শ ধারণ করে এগিয়ে যাচ্ছিলেন মন্তব্য করে ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি বলেন, “আজকে তিনি আরও অনেক কিছু এই দেশকে দিতে পারতেন। কিন্তু সেই সুযোগ আর রইল না! “তার মৃত্যু অপ্রত্যাশিত, কারণ তার সেই বয়স হয়নি যে বয়সে তাকে চলে যেতে হবে।”
বিএনপি-জামায়াত জোট আমলে নাসিমের ওপর চলা নির্যাতনের কথা স্মরণ করেন রাশেদ খান মেনন।
এরপরে সেনা নিয়ন্ত্রিত তত্ত্বাবধায়ক সরকার আমলেও নাসিমকে কারাবরণ করতে হয়েছিল।
নির্যাতন-নিপীড়নের পরেও নাসিমের দৃঢ়তার সঙ্গে সামনে এগিয়ে চলার কথা স্মরণ করে মেনন বলেন, “জেলের অভ্যন্তরে তিনি নিপীড়নের শিকার হয়েছেন। সেনাশাসন আমলে জেলের ভেতরে তার স্ট্রোক হয়। বহু কষ্টে তিনি বাঁচেন।
“সেই অসুস্থ শরীর নিয়েই তিনি তার দায়িত্ব পালন করে গেছেন। বিশেষ করে আওয়ামী লীগের আন্দোলন তো বটেই অন্যদিকে ১৪ দলকে নিয়ে সামনে এগোনোর ক্ষেত্রে মোহাম্মদ নাসিম যথাযথ ভূমিকা পালন করেছেন।”

বাংলাদেশের মানুষ নাসিমকে গভীর শ্রদ্ধা ও মর্যাদার সাথে স্মরণে রাখবে বলে প্রত্যাশা জানিয়ে তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান রাশেদ খান মেনন।

শেয়ার