কোভিড-১৯: শনাক্ত রোগী ৫৫ হাজার ছাড়াল

সমাজের কথা ডেস্ক॥ একদিনে আরও ৩৭ জনের মৃত্যুর মধ্য দিয়ে বাংলাদেশে নতুন করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৭৪৬ জন।

বুধবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় আরও ২ হাজার ৬৯৫ জনের মধ্যে সংক্রমণ ধরা পড়েছে। তাতে দেশে এ পর্যন্ত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫৫ হাজার ১৪০ জনে।

সারা দেশে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি রোগীদের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন আরও ৪৭০ জন। সব মিলে এ পর্যন্ত মোট ১১ হাজার ৫৯০ জন সুস্থ হয়ে উঠলেন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত বুলেটিনে যুক্ত হয়ে অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা বুধবার দেশে করোনাভাইরাস পরিস্থিতির এই সবশেষ তথ্য তুলে ধরেন।

নাসিমা সুলতানা বলেন, গত এক দিনে যারা মারা গেছেন, তাদের মধ্যে ২৮ জন পুরুষ, ৯ জন নারী। এর মধ্যে ৩১ জন হাসপাতালে, ৫ জন বাড়িতে মারা গেছেন। একজনকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে নেওয়া হয়েছিল।

তাদের ১৯ জন ঢাকা বিভাগের, ১৩ জন চট্টগ্রাম বিভাগের, ১ জন সিলেট বিভাগের, ১ জন খুলনা বিভাগের, ১ জন রাজশাহী বিভাগে এবং ২ জন রংপুর বিভাগের বাসিন্দা ছিলেন।

এই ৩৭ জনের মধ্যে ৪ জনের বয়স ছিল ৭০ বছরের বেশি। এছাড়া ১২ জনের বয়স ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে, ১২ জনের বয়স ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে, ৫ জনের বয়স ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে, ৩ জনের বয়স ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে এবং ১ জনের বয়স ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে ছিল।

বুলেটিনে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ৫০টি পরীক্ষাগারে ১২ হাজার ৫১০টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। নমুনা পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ২১ দশমিক ৫৪ শতাংশ। আর শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বিবেচনায় সুস্থতার হার ২১ দশমিক ০২ শতাংশ, মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৩৫ শতাংশ।

আগের দিন মোট ৫২টি ল্যাবে নমুনা পরীক্ষা হলেও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষাগারে আর করোনাভাইরাস পরীক্ষা করা হবে না। এছাড়া কারিগরি ত্রুটির কারণে জামালপুরের শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আরটি-পিসিআর ল্যাবে নমুনা পরীক্ষা আপাতত বন্ধ রয়েছে বলে নাসিমা সুলতানা জানান।

তিনি বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে আনা হয়েছে ৩৯৫ জনকে। বর্তমানে সারা দেশে আইসোলেশনে রয়েছেন ৬ হাজার ৪৯৮ জন রোগী।

ঢাকার বসুন্ধরা কনভেনশন সিটিতে ফিল্ড হাসপাতালটি ইতোমধ্যে সেবা দিতে শুরু করেছে বলে জানান নাসিমা সুলতানা। সেখানে ২ হাজার শয্যা রয়েছে বলে জানান তিনি।

শেয়ার