যশোরে যৌতুক দাবিতে গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগে থানায় মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ যশোরে ১০ লাখ টাকা যৌতুক দাবিতে লিনা খাতুন নামে এক গৃহবধূকে মারপিটের পর হত্যার অভিযোগে থানায় মামলা হয়েছে। নিহত লিনার পিতা সদর উপজেলার জেলা নিমতলী গ্রামের মোশারফ হোসেন বাদী হয়ে গত রোববার রাতে জামাইসহ চারজনের বিরুদ্ধে কোতোয়ালি মডেল থানায় এই মামলা করেন। আসামিরা হলো, যশোর শহরের বারান্দীপাড়া কদমতলার মৃত মাসুদ আলী খানের চার ছেলে টগর হোসেন, খোন, সাজু ও মামুন খান বাবু।
বাদীর দায়ের করা মামলায় বলেছেন, ১৬/১৭ বছর আগে তার মেয়ে লিনা খাতুনকে আসামি টগরের সাথে পারিবারিকভাবে বিয়ে দেন। দাম্পত্য জীবনে শামিম নামে ১৩ বছরের একটি ছেলে আছে তাদের। কিন্তু বিয়ের পর থেকেই অন্য আসামিদের কুপরামর্শে স্ত্রী লিনার কাছে ১০ লাখ টাকা যৌতুক দাবিতে মারপিট শুরু করেন তার স্বামী টগর হোসেন। এক পর্যায় বাধ্য হয়ে নগদ ৫ লাখ টাকা এবং আরো ৩ লাখ টাকার আসবাবপত্র দিয়ে দেন লিনার পিতা। এরপর আবার গত ২৫ মে সন্ধ্যা ৭টার দিকে পূর্বের দাবিকৃত ১০ লাখ টাকার জন্য আবারো লিনার উপর নির্যাতন করতে থাকে স্বামীসহ অন্যরা। এক পর্যায় ঘরের মধ্যে থাকা মোটরসাইকেলের তালা দিয়ে লিনার মাথায় আঘাত করলে মাটিতে লুপিয়ে পড়ে যান। এরপর অন্যরা তাকে এলোপাতাড়ি মারপিটসহ শ্বাসরোধে হত্যা চেষ্টা করে। আশপাশের লোকজনের কাছে খবর পেয়ে লিনার পিতার বাড়ির লোকজন উদ্ধার করে প্রথমে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হয়। কিন্তু অবস্থার অবনতি দেখে সেখানে লিনাকে ভর্তি করেনি। ফলে তাকে নেয়া হয় খুলনার গাজী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। সেখানেও তার অবস্থার অবনতি হলে ২৯ মে ভোরে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ওইদিনই সকাল সাড়ে ১০টার দিকে লিনা মারা যায়। সোনাডাঙ্গা থানা পুলিশ লাশের সুরাতহাল রিপোর্ট শেষে সেখানেই ময়নাতদন্ত করা হয়। এরপর গতকাল রোববার রাতে যশোর কোতোয়ালি মডেল থানায় এই মামলা করা হয়।

শেয়ার