মাহে রমজান

বিল্লাল বিন কাশেম
১৮ তম রোজার দোয়া : হে আল্লাহ! এ দিনে আমাকে সেহরীর বরকতের উসিলায় সচেতন ও জাগ্রত করে তোলেন। সেহরীর নূরের ঔজ্জ্বল্যে আমার অন্তরকে আলোকিত করে দিন। আপনার নূরের উসিলায় আমার প্রত্যেক অঙ্গ প্রত্যঙ্গে আপনার নূরের প্রভাব বিকশিত করুন। হে সাধকদের অন্তর আলোকিতকারী!
আজ ১৮ রমজান। আজ আমরা আলোচনা করবো রমজানে কোরআন তেলওয়াতের গুরুত্ব নিয়ে। মাহে রমজান আল-কোরআন নাজিলের মাস হওয়ায় এ সময় পবিত্র কোরআন তিলাওয়াতের সওয়াব অপরিসীম। এ জন্য মানবজাতির হেদায়েতের উদ্দেশ্যে অবতীর্ণ ঐশীগ্রন্থ আল-কোরআন তিলাওয়াত করা, এর মর্ম হৃদয়ঙ্গম করা এবং তদনুসারে আমল করা প্রত্যেক রোজাদার মুসলমানের অবশ্যকর্তব্য। তাই রমজান মাসকে রোজাদারেরা বিশুদ্ধ তিলাওয়াতের মাস হিসেবে গ্রহণ করতে পারেন। ঐচ্ছিক ইবাদতের মধ্যে পবিত্র কোরআন তিলাওয়াত সর্বোৎকৃষ্ট। মাহে রমজানে আল-কোরআন তিলাওয়াতের ফজিলত সম্পর্কে নবী করিম (সা.) এরশাদ করেন, ‘তোমাদের মধ্যে যে ব্যক্তি আল-কোরআন শিক্ষা করে এবং অপরকে তা শিক্ষা দেয়, সেই সর্বোত্তম।’ (বুখারি)
রাসুলুল্লাহ (সা.) নিজেও রমজান মাসে পবিত্র কোরআন তিলাওয়াত করতেন। পবিত্র কোরআন নিয়ে গভীরভাবে চিন্তাভাবনা ও গবেষণা করতেন। এমনকি প্রতিবছর মাহে রমজানে ফেরেশতা জিবরাইল (আ.) বারবার রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর কাছে আল-কোরআন পুনরাবৃত্তি করতেন। এ সম্পর্কে হজরত আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত ক হাদিসে৷ বলা হয়েছে, ‘রমজান মাসের প্রতি রাতে ফেরেশতা জিবরাইল (আ.) নবী করিম (সা.)-এর খেদমতে হাজির হতেন এবং তাঁরা উভয়ই কোরআন তিলাওয়াত করে একে অপরকে শোনাতেন।’ (বুখারি)
রাসুলুল্লাহ (সা.) তাঁর উম্মতদের রমজান মাসে বেশি বেশি কোরআন তিলাওয়াতের দিকনির্দেশনা প্রদান করেছেন। হািদস শরিফে বর্ণিত আছে, ‘যদি কেউ আল্লাহর সঙ্গে বাক্যালাপ করার ইচ্ছা করে, তাহলে সে যেন আল-কোরআন তিলাওয়াত করে।’ নবী করিম (সা.) বাণী প্রদান করেছেন, ‘যে ব্যক্তি কোরআনের একটি অক্ষর পাঠ করে, সে একটি নেকি পায়, আর প্রত্যেকটি নেকি ১০টি নেকির সমান।’ (তিরমিজি) তিনি আরও বলেছেন, ‘অন্তরের কলুষতা পরিষ্কার করার উপায় হলো বেশি বেশি মৃত্যুকে স্মরণ করা এবং কোরআন তিলাওয়াত করা।’ (মিশকাত)
মাহে রমজানে বেশি বেশি পবিত্র কোরআন তিলাওয়াত নফল ইবাদতের মধ্যে সর্বশ্রেষ্ঠ। এ জন্য মাহে রমজানে রোজাদার ব্যক্তি বেশি বেশি পবিত্র কোরআন তিলাওয়াত করেন। তাই রোজা ও কোরআন শরিফ কিয়ামতের দিন রোজাদারের জন্য আল্লাহর দরবারে সুপারিশ করবে এবং আল্লাহ তাদের সুপারিশ কবুল করবেন।
রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘রোজাসমূহ এবং আল-কোরআন বান্দার জন্য সুপারিশ করবে। রোজাসমূহ বলবে, হে প্রতিপালক! আমি এ ব্যক্তিকে দিনে খাবার ও অন্যান্য কামনা-বাসনা থেকে ফিরিয়ে রেখেছি। আপনি আমার সুপারিশ গ্রহণ করুন। আল-কোরআন বলবে, আমি এ ব্যক্তিকে রাতের নিদ্রা থেকে ফিরিয়ে রেখেছি। আপনি আমার সুপারিশ কবুল করুন। আল্লাহ তাদের সুপারিশ কবুল করবেন।’ (বায়হাকি, মুসনাদে আহমাদ)
ইসলামের চার খলিফা মাহে রমজানে পবিত্র কোরআন তিলাওয়াত করতেন এবং কোরআন শরিফ কয়েকবার খতম দিতেন। উম্মুল মুমিনীন হজরত আয়েশা (রা.) মাহে রমজানে সুবহে সাদিকের পর থেকে সূর্যোদয় পর্যন্ত পবিত্র কোরআন তিলাওয়াত করতেন। মাহে রমজানে সাহাবায়ে কিরামগণ কোরআন শরিফ মুখস্থ করে স্মৃতিপটে সংরক্ষণ করার জন্য রাত-দিন যে অক্লান্ত পরিশ্রম ও কঠোর সাধনা করেছেন, তা ইসলামের অনুসারীদের কোরআন শরিফ বোঝার জন্য অনুকরণীয়। ইরশাদ হয়েছে, ‘তারা রাত্রিকালে আল্লাহর আয়াত আবৃত্তি করে।’ (সূরা আলে ইমরান, আয়াত-১১৩) কোরআন তিলাওয়াতকারীর জন্য শ্রেষ্ঠ পুরস্কারের কথা ঘোষণা করে রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘আল-কোরআনে সুদক্ষ ব্যক্তিগণ সম্মানিত ফেরেশতাদের সঙ্গী। আর যে ব্যক্তি কোরআন তিলাওয়াত করতে গিয়ে এর উচ্চারণ করা তার পক্ষে কঠিন হওয়ার কারণে বারবার চেষ্টা করে, সেই ব্যক্তি দ্বিগুণ সওয়াব লাভ করবে।’ (বুখারি ও মুসলিম)
রমজান মাসকে সঠিক ও বিশুদ্ধভাবে কোরআন তিলাওয়াতের মাস হিসেবে ধরে নিতে হবে। না বুঝে যদি এ মাসে কোরআন তিলাওয়াত করেন, এতেও প্রতিটি ১০টি করে নেকি দেওয়া হবে। অতএব, যাঁরা তিলাওয়াত করতে জানেন না, তাঁরা এ মাসে তিলাওয়াত শেখার মাস হিসেবে নির্ধারণ করুন। আল- কোরআন তিলাওয়াত করে তা মুখস্থ করা এবং এর নির্দেশানুযায়ী জীবন যাপন করার ফজিলত সম্পর্কে রাসুলুল্লাহ (সা.) এর ফরমান, ‘যে ব্যক্তি কোরআন তিলাওয়াত করে এবং তদনুসারে আমল করে, কিয়ামতের দিন তার পিতা-মাতাকে এমন এক উজ্জ্বল মুকুট পরানো হবে, যা দুনিয়ায় কোনো ঘরের মধ্যে অবস্থানরত সূর্যালোকের চেয়ে অধিক উজ্জ্বলতর হবে।’ (আবু দাউদ, মুসনাদে আহমাদ) নবী করিম (সা.) আরও বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি কোরআন তিলাওয়াত করে এবং তা মুখস্থ করে ফেলে, আর এতে বর্ণিত হালালকে হালাল এবং হারামকে হারাম মেনে চলে, আল্লাহ তাআলা তাকে বেহেশতে সমাসীন করবেন এবং আত্মীয়স্বজনের মধ্য থেকে ১০ ব্যক্তির জন্য তার সুপারিশ কবুল করবেন, যাদের প্রত্যেকের জন্যই দোজখ নির্ধারিত হয়ে গিয়েছিল।’ (তিরমিজি)
অতএব, আল-কোরআনের অন্তর্নিহিত মর্মবাণী বুঝতে অতি সহায়ক মাহে রমজানে রোজাদারদের পবিত্র কোরআন তিলাওয়াত অন্যান্য মাসের চেয়ে বাড়িয়ে দেওয়া প্রয়োজন। যদিও সবার পক্ষে কোরআন শরিফ হিফ্জ করা সম্ভবপর নয়, তথাপি সাধ্যমতো গুরুত্বপূর্ণ সূরা, আয়াত বা তার অংশবিশেষ অর্থ বুঝে শুদ্ধভাবে মুখস্থ করার চেষ্টা করা প্রত্যেকের জন্য অবশ্যকর্তব্য। ব্যক্তি ও সমাজজীবনে জ্ঞান-বিজ্ঞানের উৎস মহাগ্রন্থ আল-কোরআনের শিক্ষার প্রতিফলন ঘটালেই ইহকাল ও পরকালের প্রকৃত সফলতা লাভ করা সম্ভব। আল্লাহ আমাদের এ মাসে বেশি বেশি করে কোরআন তেলওয়াতের সুযোগ করে দিন ও সে অনুযায়ী আমল করার তৌফিক এনায়েত করুন। আমিন।
লেখক : উপ-পরিচালক, ইসলামিক ফাউন্ডেশন, ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়।

শেয়ার