করোনা মোকাবিলায় একসঙ্গে কাজ করার অঙ্গীকার শেখ হাসিনা-মোদির

সমাজের কথা ডেস্ক॥ করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় বাংলাদেশ-ভারতের একসঙ্গে কাজ করার প্রতিশ্রুতি পুনর্ব্যক্ত করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বুধবার বিকালে (২৯ এপ্রিল) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ফোন করলে তারা এ অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করেন।
এদিকে, করোনাভাইরাস মহামারীর আগে বাংলাদেশ থেকে যে পরিমাণ তৈরি পোশাক কেনার আদেশ সুইডেন দিয়েছিল, তা বাতিল করা হবে না বলে আশ্বস্ত করেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী। সুইডেনের প্রধানমন্ত্রী স্টিফেন লোফেন বুধবার দুপুরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে টেলিফোন করে এই আশ্বাস দেন।
প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব এহসানুল করিম স্বাক্ষরিত ও উপ-প্রেস সচিব আশরাফুল আলম খোকন প্রেরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি দুই নেতাই খাদ্য উৎপাদনের ওপর গুরুত্ব দিয়েছেন।
এদিকে বাংলাদেশের এই প্রেস বিজ্ঞপ্তির পর টুইট বার্তায় শেখ হাসিনার সঙ্গে ফোনালাপের কথা জানান ভারতের প্রধানমন্ত্রী। ওই টুইট বার্তায় তিনি লেখেন, ‘বাংলাদেশের মানুষ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে পবিত্র রমজানের শুভেচ্ছা জানাতে তার সঙ্গে কথা বলেছি। আমরা কোভিড-১৯ পরিস্থিতি এবং তা মোকাবিলায় ভারত ও বাংলাদেশের সহায়তার উপায় নিয়ে আলোচনা করেছি। বাংলাদেশের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক সর্বোচ্চ অধিকার পাবে।’
এখন পর্যন্ত দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে ভারতে। দেশটিতে এখন পর্যন্ত ৩১ হাজার ৭৩৭ জন শনাক্ত হয়েছেন। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে এক হাজার আট জনের। আর বাংলাদেশে করোনা সংক্রমিত মানুষের সংখ্যা সাত হাজার ছাড়িয়েছে। আর মৃত্যু হয়েছে ১৬৩ জনের।
এদিকে, করোনাভাইরাস মহামারীর আগে বাংলাদেশ থেকে যে পরিমাণ তৈরি পোশাক কেনার আদেশ সুইডেন দিয়েছিল, তা বাতিল করা হবে না বলে আশ্বস্ত করেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী।
সুইডেনের প্রধানমন্ত্রী স্টিফেন লোফেন বুধবার দুপুরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে টেলিফোন করে এই আশ্বাস দেন। প্রায় ১৫ মিনিটের আলাপে উভয় নেতা ব্যবসা-বাণিজ্য, বিশেষ করে তৈরি পোশাক খাত নিয়ে কথা বলেন বলে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের জানিয়েছেন।
বিশ্বে করোনাভাইরাস মহামারীতে বড় সঙ্কটে পড়েছে বাংলাদেশের রপ্তানি আয়ের প্রধান খাত তৈরি পোশাক শিল্প। শিল্পোদ্যোক্তারা বলছেন, বিদেশি অনেক ক্রেতা তাদের ক্রয় আদেশ বাতিল করে দিচ্ছেন।
প্রেস সচিব বলেন, “টেলিফোন আলাপে সুইডেনের প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে আশ্বস্ত করে বলেছেন, তার দেশ তৈরি পোশাক সম্পর্কিত বাংলাদেশের কোনো ক্রয়াদেশ বাতিল করবে না। তিনি বলেন, আমরা বাংলাদেশ থেকে তৈরি পোশাক আমদানি অব্যাহত রাখব।”
প্রধানমন্ত্রী আশা প্রকাশ করেছেন, এই সঙ্কটেও বাংলাদেশ তৈরি পোশাক খাতে বৈশ্বিক ক্রেতাদের ক্রয় আদেশ পূরণ করতে সক্ষম হবে।
বাংলাদেশে পোশাক শিল্পের মালিকরা স্বাস্থ্যবিধি বজায় রেখে কারখানা চালু করেছেন বলেও সুইডেনের প্রধানমন্ত্রীকে জানান শেখ হাসিনা।
দুই দেশের করোনাভাইরাস সংক্রমণের পরিস্থিতিও উভয় নেতার আলোচনায় উঠে আসে বলে জানান প্রেস সচিব ইহসানুল করিম। তিনি জানান, উভয় প্রধানমন্ত্রী কোভিড-১৯ মহামারী মোকাবেলায় দুই দেশের গৃহীত পদক্ষেপের প্রশংসা করেন।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কোভিড-১৯ মোকাবেলায় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে একযোগে কাজ করার আহ্বান পুনর্ব্যক্ত করেন।

শেয়ার