যশোরে বিভিন্ন কর্মসূচিতে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উদ্যাপিত

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ নানা কর্মসূচি পালনের মধ্য দিয়ে যশোরে সরকারি- বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উদ্যাপিত হয়েছে। শনিবার দিবসটি উদ্যাপন উপলক্ষে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। পাশাপাশি এদিন চিত্রাঙ্কন, আবৃতি ও ৭ মার্চের ভাষণ উপস্থাপন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। এদিকে সকালে শহরের বঙ্গবন্ধু ম্যুরালে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছে বিভিন্ন সংগঠন।

যশোর জেলা প্রশাসন ও শিশু একাডেমি
দিবসটি উদ্যাপন উপলক্ষে জেলা প্রশাসন ও শিশু একাডেমির উদ্যোগে চিত্রাঙ্কন, আবৃত্তি ও ৭ মার্চ’র ভাষণ উপস্থাপন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। দেড় শতাধিক শিশু এসব প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়। এদের মধ্যে বিজয়ী ২৭ জনকে পুরস্কার বিতরণ করা হয়েছে। জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে শনিবার বিকেলে এই পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়। এসময় ‘২০৪১ নয় ২০৩৬ সালের মধ্যে বাংলাদেশ উন্নত রাষ্ট্রে পরিণত হবে’ শীর্ষক একটি বিতর্ক অনুষ্ঠিত হয়। মাইকেল মধুসূদন ডিবেট ফেডারেশনের বিতার্কিকরা এতে অংশ নেয়। বিতর্কের পর ৭ মার্চ উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে জেলা প্রশাসক শফিউল আরিফের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার আশরাফ হোসেন, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুজ্জামান পিকুল, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন, সাবেক সাংসদ অ্যাডভোকেট মনিরুল ইসলাম মনির, মুক্তিযুদ্ধকালীন মুজিব বাহিনীর যশোর অঞ্চলের প্রধান আলী হোসেন মনি, দৈনিক কল্যাণের সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা একরাম উদ-দ্দৌলাহ ও প্রেসক্লাব যশোরের সভাপতি জাহিদ হাসান টুকুন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা সাধন কুমার দাস।

সরকারি মাইকেল মধুসূদন কলেজ
৭ মার্চ উদ্যাপন কমিটির আহবায়ক প্রফেসর শামীম রেজার সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন কলেজের ভারপ্রাপ্ত উপাধ্যক্ষ প্রফেসর শেখ আবুল কওসার। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক মো. মহিউদ্দিন। এছাড়া অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সহযোগী অধ্যাপক আব্দুল মমিন, অসীম দত্ত, ছোলজার রহমান প্রমুখ।

সরকারি সিটি কলেজ
দিবসটি উদ্যাপন কমিটির আহবায়ক সহযোগী অধ্যাপক আব্দুল হালিমের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন অধ্যক্ষ প্রফেসর আবু তোরাব মো. হাসান। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন উপাধ্যক্ষ জুবাইদা গুলশান আরা ও শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক জাকির হোসেন। এছাড়া অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সহযোগী অধ্যাপক অসীম কুমার দাস। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন প্রভাষক নাসরিন আক্তার।

সরকারি মহিলা কলেজ
দিবসটির আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন কলেজের অধ্যক্ষ ড. আহসান হাবীব। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন উপাধ্যক্ষ ড. মিয়া আব্দুর রশিদ ও শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক হুমায়ূন কবির। এছাড়া বক্তব্য রাখেন বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক হোসনে আরা বেগম। সভাপতিত্ব করেন ৭ মার্চ উদযাপন কমিটির আহবায়ক সহযোগী অধ্যাপক মর্জিনা আক্তার।

জিলা স্কুল
দিবসটির আলোচনা সভায় স্কুলের প্রধান শিক্ষক একেএম গোলাম আযমের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা এএসএম আব্দুল খালেক। এছাড়া অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সহকারী শিক্ষক অখিল চন্দ্র লস্কর, সাজেদুর রহমান ও জামাল উদ্দিন।

শিক্ষা বোর্ড সরকারি মডেল স্কুল এন্ড কলেজ
দিবসটির আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন উপাধ্যক্ষ কল্যাণ সরকার। সভাপতিত্ব করেন ৭ মার্চ উদ্যাপন কমিটির আহবায়ক সহকারী শিক্ষক মাসুমা খাতুন। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন সহকারী শিক্ষক আলী নেওয়াজ, মতিয়ার রহমান প্রমুখ।
নিউটাউন উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়
দিবসটি উপলক্ষে স্কুলটির প্রধান শিক্ষক সুরাইয়া শিরিনের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন সহকারী শিক্ষক সেলিম রেজা, আনোয়ার ইকবাল প্রমুখ।

শেয়ার