চিতলমারীতে গ্রাম আদালতের বিচার পেয়ে নিশিকান্ত খুশি !

চিতলমারী (বাগেরহাট) প্রতিনিধি॥ দরিদ্র কৃষক নিশি কান্ত মৃধা (৫০)। স্ত্রী ও ছেলে-মেয়েকে নিয়ে ৪ সদস্যর পরিবার তার। বাস করেন বাগেরহাটের চিতলমারী উপজেলার আড়–য়াবর্নী চরপাড়া গ্রামে। জায়গা জমি নিয়ে বিরোধ চলছিল প্রতিবেশী জামাল সরদারের সাথে। এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে মারামারি হয়। তাই তিনি সুবিচারের আশায় ছুটে যান চিতলমারী সদর ইউনিয়ন পরিষদ গ্রাম আদালতে। সেখানে পান ন্যায্য বিচার। এমনটাই জানিয়েছেন দরিদ্র কৃষক নিশি কান্ত মৃধা। তিনি আরও জানান, জামাল সরদারের সাথে তার দীর্ঘদিন জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। এ নিয়ে দু’জনের মধ্যে তুমুল ঝগড়াঝাটি ও মারামারি হয়। তাই ন্যায় বিচার পাওয়ার জন্য তিনি চিতলমারী সদর ইউনিয়ন পরিষদ গ্রাম আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা করে তিনি তার চিকিৎসা বাবদ ৫ হাজার টাকা পেয়েছেন। এই টাকা ও নায্য বিচার পেয়ে তিনি খুব খুশি।
এ ব্যাপারে অভিযুক্ত জামাল সরদার গ্রাম আদালতের প্রতি সন্তোষ প্রকাশ করে জানান, তিনি তার ভুল বুঝতে পেরেছেন। তাই নিশি কান্তর চিকিৎসা বাবদ ৫ হাজার টাকা পরিশোধ করেছেন। ভবিষ্যতে তারা দুইজনে শান্তিপূর্ণ ভাবে পাশাপাশি বসবাস করবেন।
চিতলমারী সদর ইউনিয়ন পরিষদ গ্রাম আদালত সহকারী মোঃ হাবিবুর রহমান জানান, বিচারটি নিরপেক্ষ হয়েছে। অভিযুক্ত ব্যক্তি আবেদনকারীর নিকট তার অপরাধের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করেছেন। আবেদনকারীও তাতে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন। তারা উভয়ে মিলেমিশে বসবাস করবেন বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। এ ব্যাপারে সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও গ্রাম আদালতের বিচারক মোঃ নিজাম উদ্দিন শেখ জানান, সুবিচার করা হয়েছে। বিচারে উভয়পক্ষই খুশি।

শেয়ার