বাগেরহাটে ইউপি মেম্বারের নেতৃত্বে হামলাসহ মোটরসাইকেল ভাংচুর

বাগেরহাট প্রতিনিধি ॥ বাগেরহাটে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে হামলা ও মোটরসাইকেল ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। এ বিষয়ে বাগেরহাট সদর উপজেলার রড়বাশবাড়িয়া গ্রামের মৃত শামছুর রহমান হাওলাদারের ছেলে সাইফুর রহমান হালাদার টোটো (৩৮) সদর উপজেলার ডেমা ইউনিয়নের ৯নং ইউপি সদস্য রিপন হালাদারকে (৪২) প্রধান আসামি করে ৯ জনের নামে বাগেরহাট মডেল থানায় মামলা দায়ের করেছেন।
মামলা সূত্রে জানা যায়, বুধবার রাত ৮টার দিকে বাগেরহাট শহর হতে বাড়ির উদ্দেশে রওনা দেয় টোটো। সদর উপজেলার রড়বাশবাড়িয়া গ্রামের জাহাঙ্গীর শেখের মাছের ঘেরের পশ্চিম পাশে সরকারি পাকা রাস্তার পর্যন্ত পৌঁছালে ্পূর্ব থেকে ওত পেতে থাকা স্থানীয় ইউপি সদস্য রিপন হালাদার (৪২) এর নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী আমার পথরোধ করে রোহার রড ও বিভিন্ন দেশীয় অস্ত্র দিয়ে হামলা চালিয়ে আমার শরীরের বিভিন্ন স্থানে ফোলা ও রক্তাক্ত জখম করেছে। তাদের মারপিটে ডান হাত হাড় ভেঙ্গে গেছে। জখম অবস্থায় আমাকে ধাক্কা মেরে নদীতে ফেলে দেয় এবং আমার ব্যবহৃত ও পরিবারের একমাত্র আয়ের সম্বল আমার মোটরসাইকেলটি ভাংচুর করে নদীতে ফেলে দেয়। স্থানীয়রা আমাকে উদ্ধার করে বাগেরহাট সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন।
এদিকে সাইফুর রহমান হালাদার টোটোসহ স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেন, ইউপি সদস্য রিপন হালাদারের নেতৃত্বে এলাকায় চাঁদা, মাদক বিক্রি ও ১০২ নং রড়বাশবাড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কাম সাইক্লোন সেন্টারে নিজের প্রভাব খাটিয়ে জুয়ার ব্যবসা করে। এর প্রতিবাদ করায় এলাকায় শিক্ষকসহ অনেকেই মেম্বর ও তার ভাইয়ের কাছে ইতিপূর্বে হামলাও মারপিটের স্বীকার হয়েছেন।
নাম প্রকাশ না করা শর্তে স্থানীয় এক ব্যক্তি জানান, ইউপি সদস্য ও তার ভাই ১০২ নং রড়বাশবাড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কাম সাইক্লোন সেন্টারে দপ্তরী শাহিন হাওলাদার বিদ্যালয় থেকে অবৈধভাবে বাইরে বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়েছে। ছাদের উপরে এন্টিনা বসিয়ে অবৈধ ভাবে ডিসের ব্যবসা করছে। রাতে বিদ্যালয়ের তিন তলায় চলে জুয়ার আসর। তাদের ভয়ে এলাকায় কেউ মুখ খুলতে সাহস পায় না। কেউ এর প্রতিবাদ করলে তার উপর নেমে আসে নির্যাতন।
১০২ নং রড়বাশবাড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কাম সাইক্লোন সেন্টারের প্রধান শিক্ষক (ভারপ্রাপ্ত) প্রভাষ কুমার মল্লিক বলেন, তাদের অপকর্মের বিষয় এলাকাবাসি জানলেও ভয়ে কেউ মুখ খুলতে সাহস পায় না। আমাদের প্রতিষ্ঠানে তাদের এই অপকর্মের বিষয় আমি প্রতিবাদ করায় স্থানীয় ইউপি সদস্য ও তার ভাই দ্বারা আমাকে নির্যাতন ও হামলার শিকার হতে হয়েছে।
বাগেরহাট মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বলেন, হামলা ও মোটরসাইকেল ভাংচুরের বিষয়ে মামলা দায়ের করা করেছে। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। ভাঙ্গা মোটরসাইকেল উদ্ধার করে পুলিশের হেফাজতে নেয়া হয়েছে। ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানান তিনি।

শেয়ার