উন্নয়ন আর অগ্রগতির ধারাবাহিকতা রক্ষায় নৌকা প্রতীকের কোনো বিকল্প নেই : শাহীন চাকলাদার

এস আর সাঈদ, কেশবপুর (যশোর) থেকে ॥ যশোর-৬ কেশবপুর সংসদীয় আসনের উপ-নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী ও যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীন চাকলাদার বলেছেন, উন্নয়ন আর অগ্রগতির ধারাবাহিকতা রক্ষায় নৌকা প্রতীকের কোনো বিকল্প নেই। তৃণমূলের হতদরিদ্র মানুষের ভাগ্যের উন্নয়নে নৌকায় ভোট দিতে হবে। বিএনপি আর জাতীয় পার্টির আমলে দেশে কোনো উন্নয়ন না হওয়ায় দেশের শতকরা ৮০ ভাগ মানুষ উন্নয়ন আর অগ্রগতির প্রতীক নৌকাকে বেছে নিয়েছে।
তিনি আরো বলেন, কেশবপুরে আওয়ামী লীগের মধ্যে যে সমস্যা ছিল, নেত্রী আমাকে দলীয় মনোনয়ন দেওয়ায় ইতিমধ্যে সে সকল সমস্যা দূর হয়ে গেছে। কেশবপুরের আওয়ামী লীগ এখন ঐক্যবদ্ধ। ঐক্যবদ্ধ আওয়ামী লীগ এখন অনেক বেশি শক্তিশালী। আগামী ২৯ মার্চ যশোর-৬ কেশবপুর সংসদীয় আসনের উপনির্বাচনে ঐক্যবদ্ধভাবে নৌকায় ভোট দিয়ে আওয়ামী লীগের বিজয় সুনিশ্চিত করতে হবে। রোববার সন্ধ্যায় কেশবপুর উপজেলার মজিদপুর ইউনিয়ন, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের বর্ধিতসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
মজিদপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মশিয়ার রহমান পিরুর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক গাজী গোলাম সরোয়ারের সঞ্চালনায় উপজেলার আটন্ডা শ্রীফলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত কর্মীসভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন কেশবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এস এম রুহুল আমীন, সহসভাপতি উপজেলা চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব কাজী রফিকুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক গাজী গোলাম মোস্তফা, সহসভাপতি অ্যাডভোকেট রফিকুল ইসলাম পিটু, পৌর মেয়র রফিকুল ইসলাম। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক পৌর কাউন্সিলর শেখ এবাদত সিদ্দিক বিপুল, সুফলাকাটি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুস সামাদ মাস্টার, সাগরদাঁড়ী ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান শাহাদাৎ হোসেন, সাংবাদিক আশরাফ-উজ-জামান খান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-দপ্তর সম্পাদক মনোজ তরফদার, মজিদপুর ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম, মজিদপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাওলানা আব্দুল হালিম, মজিদপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্মসম্পাদক জিয়াউর রহমান জিয়া, যুবলীগ নেতা তরিকুল ইসলাম টুটুল, আশরাফুল ইসলাম প্রমুখ।
অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব একে.এম খয়রাত হোসেন, সহসভাপতি আব্দুল খালেক, সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম আফজাল হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক পৌর মেয়র জহিরুল ইসলাম চাকলাদার রেন্টু, যশোর জেলা পরিষদের সদস্য সোহরাব হোসেন, যশোর শহর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদ হাসান বিপু, যশোর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি নিয়ামত উল্লাহ, সাবেক সভাপতি রওশন ইকবাল শাহী, সিনিয়র আওয়ামী লীগনেতা সন্তোষ দাস, আলতাফ হোসেন বিশ্বাস, মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী, মুক্তিযোদ্ধা মোসলেম উদ্দীন, কেশবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ইউপি সদস্য গৌতম রায়, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাগরদাঁড়ী ইউপি চেয়ারম্যান কাজী মুস্তাফিজুল ইসলাম মুক্তো, পৌর আওয়ামী লীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট মিলন মিত্র, যুগ্ম-আহ্বায়ক পৌর কাউন্সিলর জামাল উদ্দীন সরদার, বিদ্যানন্দকাটি ইউপি চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন, গৌরীঘোনা ইউপি চেয়ারম্যান এস এম হাবিবুর রহমান হাবিব, উপজেলা আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ স্বপন মুখার্জী, দপ্তর সম্পাদক মফিজুর রহমান মফিজ, কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক এস এম বাবর আলী, শিক্ষা ও মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক মহিবুর রশিদ, সদস্য শাহাদাৎ হোসেন, উপজেলা কৃষকলীগের সভাপতি সৈয়দ নাহিদ হাসান, সাধারণ সম্পাদক রমেশ চন্দ্র দত্ত, উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক প্যানেল মেয়র বিশ্বাস শহিদুজ্জামান শহিদ, উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী রাবেয়া ইকবাল, সাধারণ সম্পাদক মমতাজ খাতুন, পৌর মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ফাতেমা খাতুন, উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক কাজী আজাহারুল ইসলাম মানিক, আওয়ামী লীগ নেতা কবির হোসেন, মশিয়ার দফাদার, আব্দুর রশিদ, শামসুর রহমান, আমিন উদ্দীন, হাবিবুর রহমান হাবিব, নজরুল ইসলাম, আক্তারুজ্জামান, সাবেক পৌর কাউন্সিলর মনোয়ার হোসেন মিন্টু, উজ্জ্বল, স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা আবুল বাসার খান, মাসুদুর রহমান, পৌর কাউন্সিলর মেহেরুন নেসা মেরী, পৌর কাউন্সিলর মনিরা খানম, ইউপি সদস্য কামাল হোসেন, ইউপি সদস্য হাফিজুর রহমান হাফিজ, ইউপি সদস্য নাদিরা বেগম, মহিলা আওয়ামী লীগের মঞ্জুয়ারা বেগম, যুবলীগ নেতা আল আলাল দিলু, ওবায়দুর রহমান নীল, তৌহিদুজ্জামান তহিদ, লিটন হোসেন প্রমুখ।

শেয়ার