প্রতিবন্ধী উন্নয়ন ফাউন্ডেশনের অফিসে ডাকাতির কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ যশোর শহরতলীর শেখহাটি হাইকোর্ট মোড়ের জাতীয় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন ফাউন্ডেশনের অফিসে ডাকাতির সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন রাশিদুল ইসলাম। বৃহস্পতিবার যশোর জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মঞ্জুরুল ইসলাম তার জবানবন্দি শেষে জেলহাজতে প্রেরণের আদেশ দিয়েছেন। আটক রাশিদুল ইসলাম বাঘারপাড়া উপজেলার আরাজি সিলুমপুর গ্রামের তোরাব আলী শেখের ছেলে।
মামলা সূত্র মতে, যশোরের শেখহাটি হাইকোর্ট মোড়ে এগ্রো ভবনের নিচতলায় জাতীয় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন ফাউন্ডেশনের অফিস থাকার সময় ২০১৯ সালের ২৭ আগস্ট ৪/৫ জন দুর্বৃত্ত মুখোশ পরে অফিসের ক্লপসিবল গেটের লট ভেঙ্গে ভেতরে ঢোকে। এরপর কর্মচারী রায়হানের হাত, পা, মুখ ও চোখ বেঁধে ড্রয়ারের কাগজ পত্র তছনছ করে। অফিসের কাজে ব্যবহৃত দেড় লাখ টাকা মূল্যের একটি মোটরসাইকেল, একটি সিপিইউ, একটি ল্যাপটপ এবং স্ক্যানার, সাতক্ষীরার স্টাফ রায়হানের আড়াই লাখ টাকা মূল্যের ইয়ামাহা কোম্পানির একটি মোটরসাইকেল, মোবাইল ফোন, হাত ঘড়ি, চশমা, ম্যানিবাগসহ অন্যান্য জিনিসপত্র নিয়ে যায়। সব মিলিয়ে ৫ লাখ ৫৭ হাজার ২৩০ টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে গেছে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় জেলা প্রতিবন্ধী উন্নয়ন বিষয়ক কর্মকর্তা মুনা আফরিন বাদী হয়ে কোতায়ালি মডেল থানায় দস্যুতা আইনে মামলা করেছেন।
প্রথমে থানা এবং পরে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) তদন্তের দায়িত্ব পায়। গত ৪ নভেম্বর পুলিশ খালিদ হোসেন নামে একজনকে এ মামলায় আটক করে। খালিদ ডাকাতির সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছিল। সেই জবানবন্দিতে দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে রাশিদুল ইসলামকে আটক করা হয়। তাকে আদালতে সোপর্দ করা হলে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে।

শেয়ার