উষ্ণ প্রধান অঞ্চলের জন্য করোনা নিয়ে আতঙ্কের কিছু নেই : যবিপ্রবি উপাচার্য

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ার হোসেন বলেছেন, বাংলাদেশসহ উষ্ণ প্রধান অঞ্চলের মানুষের জন্য করোনা ভাইরাস নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। জলবায়ু ও আবহাওয়াগত কারণে বাংলাদেশে এই ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব সেভাবে দেখা দেবে না।
শনিবার দুপুরে যবিপ্রবির বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব একাডেমিক ভবনের গ্যালারিতে অণুজীববিজ্ঞান বিভাগ আয়োজিত নবীন বরণ ও বিদায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ার হোসেন এসব কথা বলেন।
অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, আপনারা হয়তো জেনে থাকবেন, চীনে যে নভেল করোনা ভাইরাস ছড়িয়েছে, সেটা করোনা গ্রুপের মধ্যে সবচেয়ে দুর্বল ভাইরাস। কিন্তু চীন যেহেতু বিশে^র দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ। সুতরাং চীন এই ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হওয়ার ফলে সারা বিশে^র অর্থনীতিতে এর প্রভাব পড়েছে। ফেব্রুয়ারি মাস চলে গেলেই বাংলাদেশে গরম শুরু হবে। তখন এটা নিয়ে বাংলাদেশের মানুষের আতঙ্কের কিছু থাকবে না। তবে চীনে যাওয়া আসা মানুষের দ্বারা অন্যদের আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকলেও একজন অণুজীববিজ্ঞানী হিসেবে আমি মনে করি, সেটা মহামারী আকার নেবে না।
অণুজীববিজ্ঞান বিভাগের বিদায়ী শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, বিশ^বিদ্যালয়ের সাথে কখনো সম্পর্ক শেষ হয় না। এ বিশ^বিদ্যালয় তোমাদের লালন-পালন করেছে, এখন তোমরা বিশ্ববিদ্যালয়কে লালন-পালন করবে। তোমরা পরিবার-সমাজ ও রাষ্ট্রের দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করবে। তাহলেই আমাদের সার্থকতা। নবীন শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, যবিপ্রবির অণুজীববিজ্ঞান বিভাগের যে ল্যাবরেটরি সুবিধা তা বাংলাদেশের অনেক বড় বিশ^বিদ্যালয়ের নেই। সুতরাং তোমরা নিয়মিত ক্লাস ও ল্যাব করবে। তাহলে পড়াশোনার সাথে তোমাদের সংযোগ থাকবে। সিনিয়র ও জুনিয়রদের মধ্যে মধুর সম্পর্ক থাকবে, কোনো র‌্যাগিং থাকবে না। বড়রা যেমন ছোটদের ¯েœহ করবে, মায়া-মমতা দিয়ে ভালোবাসবে, তেমনি ছোটদেরও বড় ভাই-বোনদের সম্মান করতে হবে।
অণুজীববিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মো. ইকবাল কবীর জাহিদের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য দেন ডিনস কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. মো. আনিছুর রহমান, জীববিজ্ঞান ও প্রযুক্তি অনুষদের ডিন ড. কিশোর মজুমদার, অণুজীববিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক ড. তানভীর ইসলাম, ড. সেলিনা আক্তার, প্রভাষ চন্দ্র রায়, নিগার সুলতানা মেঘলা প্রমুখ। অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করেন অণুজীববিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী আব্দুল্লাহ আল তারিক ও তামান্না জেরিন অনন্যা। বিকেলে অণুজীববিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হয় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

শেয়ার