নির্বাচনের দিন সাবেক খেলোয়াড়দের মিলনমেলায় পরিণত

ইমরান হোসেন পিংকু
এক সময় মাঠে ঝড় তুলেছেন ফুটবল, ক্রিকেট হকিসহ বিভিন্ন ইভেন্টে। পেয়েছে দর্শকের বাহবা। তবে সময়ের পরিক্রমায় তুলে রেখেছেন খেলা সরঞ্জাম। পরিবার অথবা ব্যবসা নিয়ে হয়ে পড়েছেন ব্যস্ত। কিন্তু এখনো ভুলতে পারেননি খেলার স্মৃতিগুলো। তাইতো শত কাজ ফেলে যশোর জেলা ক্রীড়া সংস্থার নির্বাচনের দিন দূরদুরান্ত থেকে ছুটে এসেছেন তারা। মিলিত হয়েছেন খেলাকালীন সময়ের বন্ধুদের সাথে। করেছে বিভিন্ন স্মৃতিচারণ। তাদের হৈ হুল্লোড়ে জমজমাট হয়ে উঠে স্টেডিয়াম এলাকা।
বুধবার যশোর জেলা ক্রীড়া সংস্থার নির্বাচনের দিন শামস্-উল-হুদা স্টেডিয়াম পরিণত হয় জাতীয় ও জেলা দলের সাবেক খেলোয়াড়দের মিলনমেলায়। এক সময় মাঠ কাঁপানো সাবেক জাতীয় দলের ফুটবলার সৈয়দ মাশুক মুহম্মদ সাথী, জাতীয় দলের হকি ও ফুটবলার কাওছার আলী, জাতীয় পর্যায়ের ফুটবলার টনি, কাজী জামাল, ক্রিকেটার তুষার ইমরান ও সৈয়দ রাসেলসহ জাতীয় দলের ও জেলা দলের বিভিন্ন বয়স ভিত্তিক খেলোয়াড়েরা আসেন। এসকল খেলোয়াড়ের উপরে ভর করেই জেলা, জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে জিতেছে বাংলাদেশ।
জাতীয় দলের সাবেক ক্রিকেটার সৈয়দ রাসেল বলেন, দীর্ঘদিন পরে সাবেক ও বর্তমান খেলোয়াড়দের সাথে মিলিত হতে পেরে ভালো লাগছে। অনেক হৈ হুল্লোড় করছি। তবে সব শেষে বলতে চাই, যশোর থেকে এক সময় অনেক ভালো মানের ক্রিকেটার বের হয়ে আসছে। বর্তমানে জাতীয় দলের খেলার মতো খেলোয়াড়ে সংখ্যা কমে গেছে। আশা করছি নতুন কমিটির হাত ধরেই আবারো মাঠে খেলা ফিরে আসবে। আর জাতীয় পর্যায়ে নেতৃত্ব দিবে আমার জেলার খেলেয়াড়েরা।
একসময় মাঠ কাঁপানো জাতীয় পর্যায়ের ফুটবলার কাজী জামাল বলেন, একদিকে জেলা ক্রীড়া সংস্থার নির্বাচন, অন্যদিকে দীর্ঘদিন পরে বন্ধুদের সাথে এক জায়গায় হয়েছি। দিনটা অনেক আনন্দের। ঠিক তেমনিভাবে আশা করি খেলাধুলার মাধ্যমে সরগম হয়ে উঠুক জেলা ক্রীড়া সংস্থা। বের হয়ে আসুক জাতীয় দলের নেতৃত্ব দেওয়ার মতো খেলোয়াড়।

শেয়ার