করোনাভাইরাসের চিকিৎসায় এইচআইভি’র ওষুধ ব্যবহার করছে চীন

সমাজের কথা ডেস্ক॥ প্রাণঘাতী নভেল করোনাভাইরাস সংক্রমণ রুখতে মরিয়া চীন আক্রান্তদের জন্য জরুরিভিত্তিতে এইচআইভি বা এইডস রোগীদের চিকিৎসায় ব্যবহৃত ওষুধ কাজে লাগাচ্ছে।

চীনে করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা সাড়ে পাঁচশ ছাড়িয়েছে, আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়ে গেছে ২৮ হাজার। ভাইরাস আক্রান্তদের জন্য কোনও টিকা ও রোগ উপশমকারী ওষুধ না থাকায় চীনকে এইচআইভি’র ওষুধ দিয়ে এর চিকিৎসা করতে হচ্ছে।

ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে ওষুধটির কার্যকারিতার কোনো প্রমাণ না থাকার পরও চীনের ‘ন্যাশনাল হেলথ কমিশন’ (এনএইচসি) বলেছে, এইচআইভি-র চিকিৎসায় ব্যবহৃত ‘লোপিনাভির’ ও ‘রিটোনাভির’ করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগীদেরকেও দেওয়া যেতে পারে। যদিও এ ওষুধ কিভাবে কাজ করবে সে ব্যাপারে সুনির্দিষ্ট কিছু জানায়নি তারা।

আবভিয়ে কোম্পানি ‘লোপিনাভির’ ও ‘রিটোনাভির’ এর সমন্বয়ে তৈরি ওষুধ কালেট্রা নামে বাজারজাত করে থাকে,একে অ্যালুভিয়াও বলা হয়।এ ওষুধ সাধারণত এইচআইভি/এইডস রোগীদের চিকিৎসায় ব্যবহার করা হয়। আবভিয়ে কোম্পানি গতমাসে জানিয়েছিল,চীন এ ওষুধটি করোনাভাইরাসের লক্ষণের চিকিৎসায় পরীক্ষামূলকভাবে ব্যবহার করে দেখছে।

চীনের ‘ন্যাশনাল হেলথ কমিশন’ বলেছে, কার্যকর কোনো এন্টি-ভাইরাল ওষুধ না থাকায় করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগীদেরকে দিনে দুইবার দুটি লোপিনাভির ও রিটোনাভির ট্যাবলেট এবং দিনে দুইবার এক ডোজ আলফা-ইন্টারফেরন নেবুলাইজার দিয়ে চিকিৎসা করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

ল্যানসেট মেডিক্যাল জার্নাল গত শুক্রবার জানিয়েছে, নভেল করোনাভাইরাসের চিকিৎসায় লোপিনাভির ও রিটোনাভির ওষুধের কার্যকারিতা পরীক্ষায় ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল চলছে।

এ পরীক্ষা চলতে থাকার মধ্যেই চীনের ‘সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল এন্ড প্রিভেনশন’ একটি টিকা তৈরির কাজ শুরু করবে বলে জানিয়েছে দ্য গ্লোবাল টাইমস পত্রিকা।

শেয়ার