মাগুরায় আ’লীগে অনুপ্রবেশকারী আছাদুজ্জামানের বিরুদ্ধে বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ

শালিখা (মাগুরা) প্রতিনিধি॥ মাগুরার কুচিয়ামোড়া ইউনিয়নের বড়শলই গ্রামের আওয়ামীলীগে অনুপ্রবেশকারী মোঃ আছাদুজ্জামানের বিরুদ্ধে জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সম্পাদক সহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ দিয়েছেন স্থানীয় নেতা কর্মীরা। আওয়ামীলীগ নেতা মোঃ নওশের আলী, মোঃ রাজ্জাক হোসেন, মোস্তফা মোল্যা, লাল্টু মোল্যা লিয়াকত শিকদার সহ প্রায় ৫০জন নেতা কর্মী স্বাক্ষরিত অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে ১২ নং কুচিয়ামোড়া ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মোঃ আছাদুজ্জামান বিগত দিনে বিরোধী দলে থেকে আওয়ামীলীগের নেতা কর্মীদের নানা রকম হয়রানি করেছেন। তবে বর্তমানে আওয়ামীলীগে প্রবেশ করে প্রকৃত নেতা ও কর্মীদের সাথে তিনি টক্কর দিয়ে নানা রকম বিশৃংখলা করছেন। আছাদুজ্জামানের পিতা মৃত জলিল মোল্যা ১৯৭১ সালে পিচ কমিটির সদস্য ও রাজাকারের সংগঠক ছিলেন এবং এই ইউনিয়নে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ছিলেন। আছাদুজ্জামান মাগুরা সরকারি কলেজের ছাত্র দলের সদস্য ও দক্ষিন মাগুরা যুব দলের আহবায়ক এবং মাগুরা জেলা তাঁতী দলের সাধারণ সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব পালন করে নানা কার্যক্রম করেছেন। এছাড়া ১৯৯৪ সালে মাগুরা ২ উপনির্বাচনে নৌকার ভোট ডাকাতি পরিকল্পনা হয় তার বাড়ীতে পরবর্তীতৈ আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের নানা ভাবে নির্যাতন করেন। এদিকে কয়েক বছর পর তিনি আওয়ামীলীগে নামেমাত্র যোগদান করে প্রকৃত নেতাকর্মীদের পাশ কাটিয়ে নানা রকম কার্যক্রম চালাচ্ছেন। তিনি বড়শলই পঞ্চ পল্লী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি হয়ে দুর্র্নীতি ও অনিয়মের মাধ্যমে শিক্ষক কর্মচারী নিয়োগ দিয়েছেন। গত ১৬ ডিসেম্বর বিজয় দিবস অনুষ্ঠানে সভাপতির দায়িত্ব পালন করলে এলাকার মানুষ ও মুক্তিযোদ্ধারা ক্ষেপে ওঠেন। এ অবস্থায় তার শাস্তির দাবি করেছেন এলাকার আওয়ামী পরিবারের নির্যাতিতরা।

শেয়ার