না ফেরার দেশে যশোরের সামাজিক, সাংস্কৃতিক অঙ্গনের পরিচিত মুখ হাসিব নেওয়াজ

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোরের সামাজিক, সাংস্কৃতিক অঙ্গনের পরিচিত মুখ, সাংবাদিক ও সাংস্কৃতিকজনেদের প্রিয় সুহৃদ, জাগরণী চক্র ফাউন্ডেশনের জনসংযোগ কর্মকর্তা হাসিব নেওয়াজ আর নেই। বৃহস্পতিবার সকালে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন (ইন্নালিল্লাহি … রাজিউন)। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৫৫ বছর।
পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার আনুমানিক সকাল ৭ টা ২০ মিনিটে উপশহর এফ ব্লকস্থ ভাড়া বাসায় তিনি হৃদরোগে আক্রান্ত হন। তাকে দ্রুত যশোর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হলে ৭টা ৪০মিনিটে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এর আগেও তিনি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়েছিলেন। পরে তাঁর জীবনযাপন ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী নিয়ন্ত্রিত ছিল।
যশোরে দীর্ঘদিন কাজ করার সুবাদে স্থানীয় সাংবাদিকদের সঙ্গে মিষ্টভাষী হাসিব নওয়াজের সুসম্পর্ক তৈরি হয়। তিনি যশোর ইন্সিটিটিউটের আজীবন সদস্য, যশোর সাহিত্য পরিষদের সদস্য, শিল্পকলা একাডেমী যশোরের সদস্য, উদীচী যশোরের সদস্য, ফ্লিম সোসাইটি যশোরের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, ককাসের সভাপতিসহ বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনেও সক্রিয় ছিলেন।
মৃত মো. ইনজাহার আলীর পুত্র হাসিব নেওয়াজ ঝিনাইদহ জেলার মহেশপুর উপজেলার খালিশপুর গ্রামে ১৯৬৪ সালে জন্মগ্রহণ করেন। নিঃসন্তান হাসিব নেওয়াজ মৃত্যুকালে স্ত্রী, ২ ভাই ও ৫ বোন রেখে গেছেন।
সকালে তার মৃত্যুর খবর শুনে বাসভবনে ছুটে যান জাগরণী চক্র ফাউন্ডেশনে উর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও কর্মীগণ, সাংবাদিক, স্থানীয় গণ্যমান্যব্যক্তিবর্গ ও শুভানুধ্যায়ীগণ।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকতা বিভাগ থেকে স্নাতকোত্তর উত্তীর্ণ হাসিব নেওয়াজ ২০০২ সালে প্রোগ্রাম রিপোর্টার হিসেবে জাগরণী চক্র ফাউন্ডেশনে যোগদান করেন। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি সংস্থায় জনসংযোগ কর্মকর্তা পদে প্রধান কার্যালয়ে কর্মরত ছিলেন।
সকাল সাড়ে ১০টায় উপশহর মারকাস মসজিদে প্রথম জানাজা শেষে হাসিব নেওয়াজের মরদেহ তাঁর কর্মস্থল মুজিব সড়কস্থ জাগরণী চক্র ফাউন্ডেশনের প্রধান কার্যালয় চত্বরে আনা হয়। সেখানে তাঁর সহকর্মীবৃন্দ শেষ শ্রদ্ধা জানান। এছাড়া সুরধুনী, জয়তী সোসাইটি, যশোর সাহিত্য পরিষদ, চাঁদেরহাট, হিউম্যান রাইটস ডিফেন্ডারস ফোরাম (ককাস), প্রতিদিনের কথা পরিবারসহ বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে মরহুমের প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানানো হয়।
মৃত্যুর আগে হাসিব নেওয়াজ তাঁর দেহ দান করে গেছেন খুলনা মেডিকেল কলেজে। আর চোখ দান করেছেন ইসলামীয়া চক্ষু হাসপাতাল ঢাকাতে। নামাজে জানাজার পর জাগরণী চক্র ফাউন্ডেশন কার্যালয় হয়ে তাঁর মৃতদেহ খুলনা মেডিকেল কলেজে নিয়ে যাওয়া হয়।
এদিকে হাসিব নেওয়াজের মৃত্যুতে গভীর শোকপ্রকাশ করেছে বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক ও পেশাজীবী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।
মৃত্যুতে গভীর শোকপ্রকাশ করেছেন প্রেসক্লাব যশোরের সভাপতি জাহিদ হাসান টুকুন ও সম্পাদক আহসান কবীর। প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দ এক যুক্ত বিবৃতিতে মরহুমের আত্মার শান্তি ও তার পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করেছেন।
তাঁর মৃত্যুতে গভীর শোকপ্রকাশ করেছে যশোর সাংবাদিক ইউনিয়ন (জেইউজে)। এক শোক বার্তায় যশোর সাংবাদিক ইউনিয়নের (জেইউজে) সভাপতি সাজেদ রহমান, সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন, সহ সভাপতি প্রণব দাস, যুগ্ম সম্পাদক রেজাউল করিম রুবেল, কোষাধ্যক্ষ মারুফ কবীর, জেইউজে নির্বাহী সদস্য শফিক সায়ীদ ও জিয়াউল হক তাঁর রুহের মাগফেরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।
পৃথক বিবৃতিতে গভীর শোকপ্রকাশ করেছেন বিএফইউজে-বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ সভাপতি মনোতোষ বসু, যুগ্ম মহাসচিব সাকিরুল কবীর রিটন, সদস্য নূর ইমাম বাবুল ও গোপীনাথ দাস।
পৃথক শোক বার্তায় সাংবাদিক ইউনিয়ন যশোরের সভাপতি শহিদ জয় ও সাধারণ সম্পাদক আকরামুজ্জামান মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন।
বাংলাদেশ হিউম্যান রাইটস ডিফেন্ডার্স ফোরাম (ককাস) যশোর জেলা শাখার সভাপতি হাসিব নেওয়াজ’র মৃত্যুতে গভীর শোকপ্রকাশ করেছে নিউজ নেটওয়ার্ক ও বাংলাদেশ হিউম্যান রাইটস ডিফেন্ডার্স ফোরাম (ককাস)।
এক শোক বার্তায় নিউজ নেটওয়ার্কের সম্পাদক ও প্রধান নির্বাহী মো. শহিদুজ্জামান, প্রধান সমন্বয়কারী রেজাউল করিম তাঁর রুহের মাগফেরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।
পৃথক বিবৃতিতে গভীর শোকপ্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ হিউম্যান রাইটস ডিফেন্ডার্স ফোরাম (ককাস) কেন্দ্রীয় সভাপতি মোশফেকা রাজ্জাক, সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন, যশোর জেলা শাখার সহ-সভাপতি জামাল উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক ইন্দ্রজিৎ রায় প্রমুখ।
যশোর ফিল্ম সোসাইটির প্রতিষ্ঠাকালীন সভাপতি হাসিব নেওয়াজ’র অকাল প্রয়াণে যশোর ফিল্ম সোসাইটি পরিবার গভীরভাবে শোকাহত। এক বিবৃতিতে সোসাইটি’র নেতৃবৃন্দ মরহুমের বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের গভীর সমবেদনা জানিয়েছে। যশোর ফিল্ম সোসাইটি পরিবার মনে করে দেহদান ও চক্ষুদানের মতো মহানুভবতা মৃত্যুর পরও তাঁকে অমর করে রাখবে। ফিল্ম সোসাইটি পরিবার তাঁকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করবে আজীবন।

শেয়ার