৩০ কোটি টাকা ব্যয়ে যশোরে নির্মাণ চলছে বাফার গোডাউন

সালমান হাসান রাজিব
সর্বোচ্চ চাহিদার সময়ে সারের সরবরাহ নিশ্চিতের জন্য যশোরে নির্মাণ চলছে বাফার গোডাউন। সারের আপদকালীন মজুদের জন্য এই বাফার গোডাউন নির্মাণ করছে সরকার। যশোর-মাগুরা মহাসড়কের পাঁচবাড়িয়ায় ১০ হাজার মেট্রিকটন ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন সারের এই গোডাউনের নির্মাণ কাজ চলছে। সর্বাধিক চাহিদার মৌসুমে সারের সুষ্ঠু সরবরাহ নিশ্চিত ও সংরক্ষণের জন্য ৩৪ জেলায় এই রকমের ৩৪টি গোডাউন নির্মাণ করা হচ্ছে।
জানা গেছে, ‘সার সংরক্ষণ ও বিতরণের সুবিধার্থে দেশের বিভিন্ন জায়গায় জায়গায় ৩৪ টি নতুন বাফার গুদাম নির্মাণ’ শীর্ষক একটি শিল্প মন্ত্রণালয়ের অধীন প্রতিষ্ঠান বিসিআইসি। বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ করপোরেশ (বিসিআইসি) প্রকল্পটির বাস্তবায়ন করবে। যার অংশ হিসেবে যশোরসহ ১৩টি জেলায় বাফার গোডাউন নির্মাণ কাজ চলছে।
যশোরে গোডাউন নির্মাণের এই প্রকল্পটির বাস্তবায়ন করছে সেনা কল্যাণ সংস্থা ও তাওফিকা ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিটেড। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, ৩ দশমিক ৬৫ একক আয়তনের জমির উপর এই বাফার গোডাউনের নির্মাণ চলছে। যেখানে সার সংরক্ষণের জন্য ৮৮ হাজার ২০০ স্কয়ার ফিটের গোডাউন থাকবে। পাশপাশি একটি দ্বিতল অফিস ভবন, বিদ্যুতের একটি সাব-স্টেশন ও নিরাপত্তার জন্য একতলা বিশিষ্ট একটি আনসার বিল্ডিং নির্মিত হবে। এর জন্য প্রায় ৩০ কোটি টাকার উপরে ব্যয় করা হচ্ছে। চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে এই নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে। ২০২০ সালের আগস্ট মাসে এর নির্মাণ কাজ শেষ হবে।
রোববার সরেজমন গিয়ে দেখা যায়, বাফার গোডাউন নির্মাণের কাজ পুরোদমে চলছে। অফিস ভবন, বিদ্যুতের সাবস্টেশন ভবন ও আনসার বিল্ডিং নির্মাণের কাজ প্রায় শেষের দিকে। অন্যদিকে বাফার গোডাউনের পিলার নির্মাণের কাজ করছেন শ্রমিকরা।
এদিকে গতকাল যশোরের এই বাফার গোডাউনের নির্মাণ কাজ পরিদর্শন করেন শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার। শিল্প মন্ত্রী সাংবাদিকদের জানান, আপদকালীন মজুদ বৃদ্ধির জন্য দেশের ৬৪ জেলাতেই সারের বাফার গোডাউন নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। যার অংশ হিসেবে দফায় ১৩টি ও দ্বিতীয় দফায় ৩৪টি গোডাউন নির্মাণ হবে। তিনি আরও বলেন, ফসল উৎপাদনে সারের কোন বিকল্প নেই। তাই সংকট দুর করতে প্রধানমন্ত্রী সার মজুদের নির্দেশ দিয়েছেন। সেকারণে আমদানি করা ও নিজস্ব উৎপাদিত সার চাহিদা অনুযায়ী প্রত্যেকটি জেলায় মজুদ রাখা হবে। এজন্য বিসিআইসির নিজস্ব গোডাউন নির্মাণ করা হচ্ছে।