যশোর জেলা ক্রীড়া সংস্থা দ্রুত ঘোষণা হবে নির্বাচনের তফশীল

ইমরান হোসেন পিংকু
যে কোনো দিন ঘোষণা হতে পারে যশোর জেলা ক্রীড়া সংস্থার নির্বাচনের তফশীল। জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ (এনএসসি)’র তদন্তের রিপোর্টের উপরে ভিত্তি করে চলছে নির্বাচনী কার্যকক্রম। আগামী সপ্তাহে নির্বাচন সম্পর্কে জানা যাবে বলে জানিয়েছেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) রফিকুল হাসান।
জানা যায়, যশোর জেলা ক্রীড়া সংস্থার কার্যনিবাহী কমিটি ২০১৪ সালের ২২ এপ্রিল চার বছরের জন্য দায়িত্ব গ্রহণ করে। গঠনতন্ত্রের নির্দেশনার আলোকে কার্যনির্বাহী কমিটির মেয়াদ শেষ হয় গতবছরে ২২ এপ্রিল। পরে কার্যনির্বাহী পরিষদের নির্বাচনের জন্য জেলার বিভিন্ন ক্লাব ও সংস্থার কাছে কাউন্সিলর চেয়ে চিঠি পাঠায় এডহক কমিটি। গত বছরের ২২ অক্টোবরের পর কাউন্সিলরের তালিকা তৈরি করা হয়। কিন্তু জেলা ক্রীড়া সংস্থার গঠনতন্ত্র অমান্য করে বিভিন্ন ক্লাবগুলো অনুমোদন দেয়ার বিষয়ে ক্রীড়া সংগঠক আব্দুল মান্নান ও আসাদুজামান মিঠু ১৯ সেপ্টেম্বর এনএসসি বরাবর আবেদন করেন। এরই আলোকে এনএসসি’র যুগ্ম-সচিব মাসুদ করিম স্বাক্ষরিত একপত্রে পরিষদের পরিচালক (ক্রীড়া) শাহ আলম সরদারকে তদন্তের নির্দেশ দেয়। এরই প্রেক্ষিতে গত বছরের নভেম্বরের শেষে দিকে তদন্ত করে এনএসসি। সেই তদন্ত রিপোর্টের পরে এডহক কমিটি ২১ জুলাই জেলা ক্রীড়া সংস্থার কার্যনির্বাহী পরিষদের নির্বাচনের ভোট গ্রহণের দিন ধার্য করে নির্বাচনের কাজ এগিয়ে যাচ্ছিলেন।
নির্বাচনের আগের দিন ভোটার তালিকা থেকে আজীবন সদস্য সরু চৌধুরীর নাম বাদ পড়া ও মৃত ব্যক্তির নাম তালিকায় রেখে ভোটার তালিকা করায় যশোর জজ আদালতে মামলা করা হয়। মামলার প্রেক্ষিতে আদালত ভোটার তালিকা থেকে মৃত সদস্য বিমল রায় ও আবু সাঈদের নাম বাদ দিয়ে ও বাদ পড়া জীবন সদস্য শরিফুল ইসলাম সরু চৌধুরীর নাম অন্তর্ভুক্ত করে পুনরায় তফশীল ঘোষণা করে নির্বাচন দিতে আদেশ দেন। তার প্রেক্ষিতে নির্বাচন কমিশনার নির্বাচনের কাজ এগোচ্ছিলেন। কিন্তু আবারও দ্বিতীয় দফায় ক্রীড়া সংগঠক আব্দুল মান্নান ও আসাদুজামান মিঠু জেলা ক্রীড়া সংস্থার গঠনতন্ত্র অমান্য করে বিভিন্ন ক্লাবগুলো অনুমোদন দেয়ার বিষয়ে এনএসসির বরাবর আবেদন করেন। তার প্রেক্ষিতে গত ২০ আগস্ট যশোর সার্কিট হাউজে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের যুগ্ম সম্পাদক ও তদন্ত কর্মকর্তা এবিএম নাসিরুল আলম দুই পক্ষকে নিয়ে তদন্ত করেন। আর সেই তদন্ত রিপোর্টে এখন যশোর জেলা প্রশাসকের টেবিলে।
অতিরিক্ত যশোর জেলা প্রশাসক (সার্বিক) রফিকুল হাসান বলেন ‘বিদায়ী কমিটির বিরুদ্ধে দ্বিতীয় দফায় বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগের ভিত্তিতে এনএসসি তদন্ত করে গেছে। এনএসসি’র তদন্তের রিপোর্ট ইতিমধ্যে আমাদের হাতে। তদন্তের রিপোর্টের আলোকে নির্বাচনী কার্যকক্র চলছে। আশা করা যায় আগামী সপ্তাহে নির্বাচন সম্পর্কে জানানো যাবে।