দুধ বেশি পাওয়ার আশায় গরুর চোখে ভার্চুয়াল চশমা

সমাজের কথা ডেস্ক॥ ভার্চুয়াল রিয়েলিটি বা ভিআর এমন একটি কম্পিউটার নিয়ন্ত্রিত প্রযুক্তি যার মাধ্যমে কৃত্রিম ত্রিমাত্রিক ইন্দ্রিয়গ্রাহ্য পরিবেশের সঙ্গে মানুষের সংযোগ স্থাপন করা যায়। যে রিয়েলিটিতে পরিবেশ পুরোপুরি বাস্তব লাগে।
সেই ভার্চুয়াল রিয়্যালিটিতে এতদিন মানুষকে পরীক্ষা-নিরিক্ষা করা হয়ে আসলেও এবার তা পরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে গরুর ওপর।
সিএনএন জানায়, রাশিয়ায় মস্কোর বাইরে একটি ডেইরি ফার্ম সম্প্রতি গরুকে ভিআর সানগ্লাস অর্থাৎ, ভার্চুয়াল রিয়্যালিটি রয়েছে এমন চশমা পরিয়ে পরীক্ষা করছে। দুধ উৎপাদন, গুণগত মানসম্পন্ন এবং বেশি পরিমাণে গরুর দুধ পাওয়ার চেষ্টাতেই নেওয়া হচ্ছে এ পদক্ষেপ।
মস্কোর কৃষি মন্ত্রণালয় থেকে সোমবার এ সংক্রান্ত খবর প্রকাশ করা হয়েছে। দেওয়া হয়েছে গরুকে এমন চশমা পরানো একটি ছবিও।
এ চশমা পরানোর সঙ্গে গাভির বেশি দুধ দেওয়ার সম্পর্ক কি সে ব্যাপারে যুক্তি দেখিয়ে মন্ত্রণালয় বলেছে, গবেষণায় দেখা গেছে, গরুর ওপর তার আশেপাশের পরিবেশ পরিস্থিতির প্রভাব পড়ে দুধ উৎপাদনে। বিশেষ করে দুধের গুণগত মান এবং পরিমাণ বাড়ার ক্ষেত্রে।
আর সে কারণেই একটি ডেভেলপার টিম নিরামিষভোজী এবং দুগ্ধজাত পণ্য বিষয়ক কনসালটেন্টদের সহায়তায় গরুর জন্য ভিআর চশমা তৈরি করেছে। প্রতিটি গরুর মাথা এবং চোখের আকৃতি অনুযায়ী চশমাগুলো তৈরি করা হয়েছে। এ চশমা আদতে গরুদের একটা রিয়্যালিস্টিক ভিউ দিচ্ছে।
ভিআর ব্যবহারে গরুটি দেখতে পাচ্ছে ঘাসে ছাওয়া সুন্দর সবুজ এক চারণভূমিতে সে ঘুরে বেড়াচ্ছে। এতে গরুর উদ্বেগ দূর হয়ে সে অনেকবেশি শান্ত থাকছে, তার মানসিক অবস্থারও উন্নতি হচ্ছে। গরুর এই স্বস্তি দুধ উৎপাদনে কতটা প্রভাব ফেলে সেটি গবেষকরা এখন খতিয়ে দেখবেন বলে জানিয়েছেন।
গবেষকদের কথায়, গরু খুশি থাকলে তার দুধ দেওয়ার ক্ষমতা অনেকটাই বেড়ে যায়। গবেষণা করে গরুর জন্য ভিআর তৈরি করা বিশ্বে এটিই প্রথম বলে ধারণা করা হচ্ছে।

শেয়ার