পরকীয়ার কারণে খুন হন পাইকগাছার মৎস্যজীবী সালাম, হত্যার দায় স্বীকার

পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি ॥ পাইকগাছায় ৩ দিন পর মৎস্যজীবী সালাম হত্যার রহস্য উন্মোচন করেছে পুলিশ। মামলার ৩নং স্বাক্ষী আবুল হোসেন এ খুনের দায়ভার স্বীকার করেছে। মায়ের পরকীয়ার কারণে মৎস্যজীবী সালামকে কুড়াল দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে বলে পুলিশের কাছে আবুল স্বীকার করেছে। তার স্বীকারোক্তি মোতাবেক পুলিশ মিনহাজ নদী থেকে হত্যায় ব্যবহৃত কুড়ালটি উদ্ধার করেছে।
উল্লেখ্য, গত বুধবার রাতে উপজেলার পূর্ব চর গজালিয়া গ্রামের মৃত মোহর আলী গাজীর ছেলে মৎস্যজীবী সালাম গাজীকে (৫৫) কুপিয়ে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় নিহতের ছেলে সেলিম হোসেন বাদী হয়ে ১০/১২ জনকে আসামি করে থানায় হত্যা মামলা করেন। পুলিশ প্রাথমিকভাবে ৩জনকে আটক করলেও হত্যার রহস্য উদঘাটন করতে পারেনি। ব্যাপক তদন্ত ও তথ্য অনুসন্ধান শেষে পুলিশ মামলার ৩নং স্বাক্ষী একই এলাকার আনিছ গাজীর ছেলে আবুল হোসেনকে সন্দেহজনকভাবে শুক্রবার রাতে গ্রেফতার করে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে সালাম হত্যার দায় স্বীকার করে। ওসি এমদাদুল হক শেখ জানান, মামলার স্বাক্ষী আবুল সালামকে খুন করেছে বলে স্বীকারোক্তি দিয়েছে। তার মায়ের সাথে সালামের পরকীয়া রয়েছে। এ জন্য সে কুড়াল দিয়ে সালামকে কুপিয়ে হত্যা করে। তার স্বীকারোক্তি মোতাবেক হত্যায় ব্যবহৃত কুড়ালটি শনিবার বিকালে মিনহাজ নদীতে অভিযান চালিয়ে উদ্ধার করা হয়। এ ব্যাপারে তার মাকেও জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে বলে ওসি জানিয়েছেন। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডি-সার্কেল) মো. আছাদুজ্জামান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। আবুল বর্তমানে থানা পুলিশের হেফাজতে রয়েছে।

শেয়ার