যশোর জেলা ক্রীড়া সংস্থা
ভোট নির্ভর ৪৫ ক্লাব ধরাশায়ী

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ ভোট নির্ভর ক্রীড়া প্রতিষ্ঠানগুলো (ক্লাব) অবশেষে ধরাশায়ী হয়েছে। অনিয়মতান্ত্রিকভাবে অনুমোদন পাওয়া এমন ৪৫ ক্লাবের অধিভুক্তি দু’দফায় বাতিল করেছে জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ (এনএসসি)। এসব ক্লাবের অধিকাংশ নামের শেষে রয়েছে লাল-সবুজ-হলুদ-ব্লু। এত রংয়ের সমাহারে গড়া ক্লাবগুলির আধিপত্য শেষ হয়েছে বলে মনে করছে জেলার অধিকাংশ ক্রীড়া সংগঠকরা। তবে কেন ক্লাবগুলোকে বাতিল করা হলো তা নিয়ে এসব প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা প্রশ্ন তুলেছেন।
জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের এনএসসি/১১৯/৫২/জেন/২১০২ স্মারক মোতাবেক জানা যায়, পরিষদের পরিচালক (প্রশাসন) ক্লাবগুলোর বিভিন্ন অভিযোগ তদন্ত করেন। এর তদন্ত প্রতিবেদন ১৭ অক্টোবর দাখিল করেন। এর আলোকে ৪ নভেম্বর ৪৫ ক্লাবের এফিলিয়েশন বাতিলপূর্বক ভোটার তালিকা থেকে ক্লাবের প্রতিনিধির নাম বাতিল করা হয়। সেই আলোকে জেলা প্রশাসন ভোটার তালিকা হালনাগাদ করে ডিএফএ’র ভোট গ্রহণের প্রস্তুতি নিচ্ছে।
বাতিলকৃত ক্লাব ও তাদের প্রতিনিধিরা হলেন, রেইনবো ক্রীড়া সংস্থা (লাল) প্রতিনিধি আসাদুজ্জামান অপু, রেইনবো ক্রীড়া সংস্থা (সবুজ) সাহানা সুলতানা জামান, সৌখিন ক্রীড়া চক্র (লাল) সাফায়াত কামাল বুলবুল দিব্য, সৌখিন ক্রীড়া চক্র (সবুজ) আব্দুর রহিম কালু, আসাদ স্মৃতি সংঘ (হলুদ) আবুল বাশার সাইফুল্লাহ, আরএন রোড ক্রীড়া চক্র (সবুজ) জাহাঙ্গীর শিকদার, থ্রী ব্রাদার্স ক্লাব (লাল) আবু মোতর্জা ছোট, থ্রী ব্রাদার্স ক্লাব (সবুজ) ইঞ্জিঃ জহিরুল ইসলাম, ইয়াকুব আলী স্মৃতি সংসদ (লাল) নওশীন সুলতানা, ইয়াকুব আলী স্মৃতি সংসদ (সবুজ) ফেরদৌস আহমেদ, ম্যাগপাই ক্লাব (লাল) ফারিয়া তাবাসুম বর্ষা, ম্যাগপাই ক্লাব (সবুজ) সরোয়ার হোসেন, নব দিশারী ক্রীড়া চক্র (লাল) হারান চন্দ্র দে, নব দিশারী ক্রীড়া চক্র (সবুজ) মোস্তাফিজুর রহমান টিপু, মিতালী সংঘ (হলুদ) মোজাফফর হোসেন, আসাদ স্মৃতি সংঘ (সবুজ) ওবায়দুল ইসলাম, আসাদ স্মৃতি সংঘ (নীল) ইমামুজ্জামান, সৌখিন ক্রীড়া চক্র (ব্লু) পার্থ প্রতিম দেবনাথ রথি, চৌগাছা ক্রিকেট ক্লাবের সাইফুল ইসলাম, আছিয়া ক্রিকেট ইন্সটিটিউটের শেখ আশরাফুর রহমান, দেশ ক্রিকেট একাডেমীর আব্দুল মজিদ, উষা স্পোর্টিং ক্লাব মণিরামপুরের মাহমুদ মোল্লা, কেশবপুর ক্রীড়া প্রশিক্ষণ কেন্দ্র এমরান খান, এসএস ক্রিকেট একাডেমী সামছুদ্দিন শাহাজী নন্টু
রুদ্র ঝটিকা ক্রিকেট একাডেমী কুমার কল্যাণ, স্বর্ণলতা ক্লাব মীর মোশাররফ হোসেন বাবু, বদরুল আলা স্মৃতি সংঘ গোপিনাথ দাস, সিরাজুল ইসলাম স্মৃতি সংসদ তানভিরুল ইসলাম সোহান, বজলুল করিম স্মৃতি সংসদ সৈয়দ সাজ্জাদুল কবির কাবুল, অগ্রণী সংসদ সাহিদা আক্তার, সিটি ক্রীড়া চক্র হাবিবুর রহমান রুবেল, এপিক বাস্কেটবল কোচিং সেন্টার সাবিনা সিদ্দিকী ডেইজী, গোলাম মোস্তফা সিদ্দিকী স্মৃতি সংঘের এম এ মতিন সিদ্দিকী, কাজল স্মৃতি সংঘ এ্যাডঃ বোরহান উদ্দিন সিদ্দিকী, ঝিকরগাছা ক্রিকেট একাডেমী শাহানুর কবীর হ্যাপী।
রুদ্র ঝটিকা ক্রিকেট একাডেমীর প্রতিনিধি কুমার কল্যাণ বলেন, একাডেমির জন্য জেলা প্রশাসকের বরাবর আবেদন করি। পরে চার সদস্যের কমিটি আমার একাডেমিকে পরির্দশনসহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নেয়। এনএসসি’র সকল শর্ত পূরর্ণে মাধ্যমে রুদ্র ঝটিকা ক্রিকেট একাডেমীকে অনুমোদন দেয়। কিন্তু আমার একাডেমিকে কেন বাতিল করা হলো ? বুঝতে পারছি না।
যশোর জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাবেক যুগ্ম সম্পাদক এবিএম আখতারুজ্জামান বলেন, গঠন্ত্রত অনুযায়ী ক্লাবগুলো অনুমোদন পেয়েছেন। এই ৪৫ ক্লাবের মধ্যে অনেক ক্লাব দ্ইু-তিনবার ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন। আবার নিয়মিত লিগ খেলেন। এনএসসিতে অভিযোগকারীরা প্রভাবে দেখিয়ে ক্লাব প্রতিনিধিত বাতিল করেছেন। এইর মধ্যে তাড়াতাড়ি নির্বাচন দেওয়ার জন্য জেলা প্রশাসকের সাথে কথা বলেছি।

শেয়ার