মহেশপুরে সীমান্তে বিএসএফ’র গুলিতে গরু ব্যবসায়ী নিহত

মহেশপুর (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি ॥ আবারও বাংলাদেশ সীমান্ত পার হয়ে ভারত থেকে গুরু নিয়ে আসার সময় ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) সদস্যদের গুলিতে সুমন রহমান (২৫) নামে বাংলাদেশি এক যুবক নিহত হয়েছেন। হত্যার পর ভারতীয় সীমান্তরক্ষী (বিএসএফ) সদস্যরা নিহত সুমনের লাশ টেনে হেচঁড়ে নিয়ে গেছে।
শুক্রবার ভোর রাতে ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার লড়াইঘাট সীমান্ত এলাকায় এঘটনা ঘটে।
নিহত সুমন মহেশপুর উপজেলার শ্যামকুড় গ্রামের আব্দুল মান্নানের ছেলে।
এলাকাবাসী জানান, বৃহস্পতিবার গভীর রাতে শ্যামকুড় গ্রামের সুমনসহ কয়েকজন ভারতে গরু আনতে যায়। পরে শুক্রবার ভোররাতে তারা গরু নিয়ে আসার পথে ভারতের শীলগেট নামক স্থানে পৌঁছালে ভারতের পাখিউড়া ক্যাম্পের বিএসএফ সদস্যরা তাদের লক্ষ করে কয়েক রাউ- গুলি চালায়। এসময় গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই সুমন মারা যায়।
খালিশপুর ৫৮ বিজিবি’র পরিচালক লে. কর্ণেল কামরুল আহসান জানান, মহেশপুর সীমান্তের লড়াইঘাট এলাকা দিয়ে রাতে ভারতের অভ্যন্তরে গরু আনতে যায় সুমনসহ কয়েকজন। ভোরে গরু নিয়ে ফেরার সময় মেইন পিলার ৬০/১৩৩-১৩৪ আর পিলারের মাঝামাঝি এলাকায় ভারতের অভ্যন্তরে শীলগেট নামক স্থানে পৌঁছালে পাখিউড়া ক্যাম্পের বিএসএফ সদস্যরা তাদের লক্ষ করে গুলি চালায়। এতে গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই সুমন মারা যায়।
তিনি আরো জানান, লাশ ফেরত আনার বিষয়ে এবং প্রতিবাদ জানাতে বিএসএফ এর কাছে পতাকা বৈঠকের জন্য যোগাযোগের চেষ্টা চলছে।
উল্লেখ্যঃ গত সোমবার (৪নভেম্বর) মহেশপুর উপজেলার পলিয়ানপুর সীমান্ত দিয়ে বাউলি গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেমের ছেলে আব্দুর রহিম ভারতে গরু আনতে গেলে ভারতীয় বিএসএফ সদস্যরা করে হত্যা করে। এমনকি ঘটনার ৫ দিন পার হলেও নিহতের লাশ ফেরত দেয়নি বিএসএফ।

শেয়ার