ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’র প্রভাবে যশোরে ইলশাগুঁড়ি বৃষ্টি

সুরাইয়া খাতুন
বাংলাদেশের উপকূলের দিকে ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’। শনিবার (৯ নভেম্বর) সন্ধ্যা থেকে মধ্যরাতের মধ্যে বুলবুল বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে আঘাত হানতে পারে। এর প্রভাব সারা দেশের মত যশোরেও পড়েছে। বৃহস্পতিবার রাত থেকেই ছিল গুমোট ভাব। শুক্রবার সকাল থেকে যশোরের আকাশ ছিল মেঘাচ্ছন্ন। দুপুর থেকে শুরু হওয়া ইলশাগুঁড়ি বৃষ্টি ক্রমশ বাড়ে। এমন বৃষ্টির কারণে ছন্দপতন ঘটে যশোরের জনজীবনে।
আবহাওয়া অধিদপ্তর সূত্র মতে, ঘূর্ণিঝড় বুলবুল বর্তমানে বঙ্গোপসাগরের পূর্ব-মধ্য দিকে অবস্থান করছে এবং ক্রমশ খুলনা ও বরিশাল উপকূলে ধেয়ে আসছে। শনিবার রাতে অথবা রোববার সকালে উপকূলীয় অঞ্চলে এটি আঘাত হানতে পারে। এজন্য নৌবন্দরগুলোতে ৪ নম্বর সতর্ক সংকেত দেয়া হয়েছে। তবে যশোর ঝুঁকিমুক্ত এলাকা বলছেন প্রশাসনের কর্মকর্তারা। তবে তারা জনস্বার্থে সতর্ক রয়েছেন।
জানতে চাইলে যশোর জেলার ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা নুরুল ইসলাম বলেন, জেলায় তেমন ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা নেই। তবে দুর্যোগ মোকাবিলায় তাদের প্রস্তুতি রয়েছে। জেলা অফিসে তারা কন্ট্রোলরুম খুলেছেন। উপজেলা অফিসগুলোও ২৪ ঘণ্টা খোলা রয়েছে।
তিনি আরও বলেন, যশোরে ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা নেই মনে করলেও প্রয়োজনে ব্যবহার করার মতো পর্যাপ্ত ত্রাণ মজুদ রয়েছে।
এদিকে, ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’র প্রভাবে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টিতে রাস্তা কর্দমাক্ত হয়। বিশেষ করে নির্মাণাধীন যশোর-খুলনা মহাসড়ক ও যশোর-বেনাপোল মহাসড়ক ছিল পিচ্ছিল। যশোর সদরের বসুন্দিয়া এলাকার বাসিন্দা শেখ রিপন বলেন, শুক্রবার বিকালে যশোর শহরে আসতে তার দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে। নির্মাণাধীন রাস্তা পিচ্ছিল হওয়ায় ঝুঁকি নিয়ে শহরে এসে কাজ শেষে বাসায় ফিরতে হয়েছে। অন্যদিকে বৃষ্টির কারণে শহরে লোকজনের উপস্থিতিও ছিল কম। শুক্রবার ছুটির দিন বিকালে পার্ক ও বিনোদন কেন্দ্রগুলো ছিল ফাঁকা।