যশোরে জামাই-মেয়ের বিরুদ্ধে থানায় বিধবা নারীর অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ যশোরে মেয়ে-জামাইয়ের বিরুদ্ধে মারপিট, শ্লীলতাহানী ও লুটপাটের অভিযোগে থানায় অভিযোগ দিয়েছেন ফিরোজা খাতুন (৫০) নামে এক নারী। তিনি শহরের ঘোপ নওয়াপাড়া রোড বাবলাতলা মাইক্রোবাস স্ট্যান্ডের পাশের মৃত ফিরোজ শেখের স্ত্রী।
অভিযুক্তরা হলেন, শহরের আব্দুর রহিম রোডের (আরএন রোডের দক্ষিণ পাশে) বর্তমানে হুশতলা মসজিদের পাশের গলির ভাড়টিয়া সাহাবুদ্দিনের ছেলে আহাদ উদ্দিন এবং তার স্ত্রী সোনিয়া পারভীন।
ফিরোজা বেগমের অভিযোগে জানা গেছে, সোনিয়া তার মেয়ে আর আহাদ মেয়ের স্বামী। মেয়ে ও জামাই দীর্ঘদিন ধরে তার জমি ও টাকা জোর করে দখলে নেয়ার ষড়যন্ত্র করে আসছে। ফিরোজা বেগমের নামে সম্পত্তি মেয়ে-জামাইয়ের নামে লিখে দেয়ার কথা বলে। তিনি রাজি না হওয়ায় তাকে নানা ভাবে হুমকি দিয়ে আসছে। গত ২৬ অক্টোবর বেলা ১২টার দিকে তারা বাড়িতে এসে জমি লিখে দিতে বলে। তিনি রাজি না হওয়ায় আহাদ একটি চাকু দিয়ে গলায় আঘাত করতে উদ্যত্ত হয়। তিনি হাত দিয়ে কোন রকম নিজেকে রক্ষা করেন। এতে তার হাত কেটে যায়। মেয়ে সোনিয়া একটি সাইজকাঠ দিয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থানে বেধড়ক মারপিট করে এবং কাপড় কেটে শ্লীলতাহানী ঘটনায়। এরপর শ্বাসরোধে হত্যার চেষ্টা করে। তার চিৎকারে আশেপাশের লোকজন ছুটে আসার কারণে রক্ষা পান। তবে ঘরের মধ্যে রাখা নগদ ৩০ হাজার টাকা, ডাকঘরে রাখা সঞ্চয়পত্রের ৫ লাখ টাকার দলিল, ২ লাখ টাকার পারিবারিক সঞ্চয়পত্রের কাগজপত্র নিয়ে যায়। যাওয়ার সময় ফের হুমকি দিয়ে যায়। এরপর স্থানীয়রা উদ্ধার করে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে। এ ঘটনায় ফিরোজা কোতোয়ালি মডেল থানায় অভিযোগ দিয়েছেন।

শেয়ার