ইরাকে দ্বিতীয় দিনের বিক্ষোভ সহিংসতায় নিহত ১৫

সমাজের কথা ডেস্ক॥ ইরাকে সরকারবিরোধী বিক্ষোভ নতুন করে শুরু হওয়ার পর দুই দিনের সহিংসতায় অন্তত ৬৭ জন ইরাকি নিহত হয়েছেন।

চলতি মাসে প্রধানমন্ত্রী আদেল আবদুল মাহদির সরকারের বিরুদ্ধে দ্বিতীয় পর্যায়ের বিক্ষোভ শুরু হওয়ার পর রাজধানী বাগদাদসহ বিভিন্ন শহরে বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে নিরাপত্তা বাহিনী ও মিলিশিয়া গোষ্ঠীগুলোর সংঘর্ষ হয়েছে, জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

সহিংসতা অব্যাহত থাকায় শনিবার রাতে দেশটির অভিজাত কাউন্টার-টেরোরিজম সার্ভিসের (সিটিএস) সদস্যদের বাগদাদ ও দক্ষিণাঞ্চীয় শহর নাসিরিয়ায় রাস্তায় নামার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী মাহদি।

প্রতিবাদ থামাতে তাদের ‘প্রয়োজনীয় সব ধরনের পদক্ষেপ নেওয়ার’ নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে নিরাপত্তা সূত্রগুলো রয়টার্সকে জানিয়েছে।

প্রায় মধ্যরাতে সিটিএসের সেনারা বাগদাদের কেন্দ্রস্থল তাহরির স্কয়ারের আশপাশের এলাকার চেকপয়েন্টগুলোর নিয়ন্ত্রণ নিতে শুরু করে এবং প্রতিবাদকারীদের তাহরির স্কয়ার থেকে বের করে দিতে শুরু করে। এর আগে নিরাপত্তা বাহিনীগুলো বার বার কাঁদুনে গ্যাস নিক্ষেপ করেও বিক্ষোভকারীদের স্কয়ারটি থেকে সরাতে পারেনি।

নাসিরিয়াতে সিটিএসের সৈন্যরা লাঠি পেটা করে ও বহু প্রতিবাদকারীকে গ্রেপ্তার করে বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করে বলে পুলিশ ও নিরাপত্তা সূত্রগুলো রয়টার্সকে জানিয়েছে।

এই দুই শহরে শনিবার দ্বিতীয় দিনের মতো হাজার হাজার বিক্ষোভকারী রাস্তায় নেমে আসে। বছরের পর বছর ধরে সংঘর্ষ ও কঠিন অর্থনৈতিক অবস্থার পর দুই বছর ধরে চলা স্থিতিশীলতা পরও তাদের জীবনমানের উন্নয়ন না হওয়ায় রাজনৈতিক অভিজাতদের নিয়ে হতাশ হয়ে পড়েন ইরাকিরা। নিজেদের ক্ষোভ জানাতে রাস্তায় নেমে আসার পর নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে জড়ান তারা।

এ দিন বাগদাদে নিরাপত্তা বাহিনীর ছোড়া কাঁদুনে গ্যাসের ক্যানিস্টার সরাসরি মাথায় আঘাত করার পর চার বিক্ষোভকারী নিহত ও আরও বহু আহত হন। নাসিরিয়ায় স্থানীয় নিরাপত্তা বাহিনীর এক কর্মকর্তার বাড়িতে হামলার সময় রক্ষীদের গুলিতে আরও চার বিক্ষোভকারী নিহত হন বলে পুলিশ জানিয়েছে। হামলাকারীরা ওই বাড়িতে আগুন দেওয়ার সময় রক্ষীরা গুলি করে।

আরেক শহর হিল্লায় সাত বিক্ষোভকারী নিহত হন। ইরান-সমর্থিত বদর সংগঠনের দপ্তরের কাছে বিক্ষোভকারীরা সমবেত হলে সংগঠনটির মিলিশিয়া বাহিনীর সদস্যরা তাদের লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ করলে বেশ কয়েকজন নিহত হন।

এর আগে শুক্রবার ইরাকজুড়ে সরকারবিরোধী বিক্ষোভের সময় সহিংসতায় অন্তত ৫২ জন নিহত হন এবং দুই হাজারেরও বেশি লোক আহত হন।

এর আগে চলতি মাসের প্রথমদিকে কয়েকদিন ধরে সরকারবিরোধী বিক্ষোভ চলাকালে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে প্রতিবাদকারীদের সংঘর্ষে ১৫৭ জন নিহত ও ছয় হাজারেরও বেশি লোক আহত হয়েছিল।

শেয়ার