বেনাপোল বন্দরের আমদানি-রপ্তানি গতিবৃদ্ধি ও যাত্রী সেবার মান উন্নয়নে মতবিনিময়

যশোর হোটেল জাবের ইন্টারন্যাশনালে বেনাপোল বন্দর দিয়ে আমদানি-রপ্তানি বৃদ্ধি ও যাত্রী চলাচলের বিষয়ে যশোর জেলা প্রশাসক ও অন্যান্য কর্মকর্তা ও ব্যবসায়ীদের সাথে মতবিনিময় সভা এবং নৈশভোজ অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার ভারতীয় ডেপুটি হাই কমিশনার মি. বিশ্বজিত দে এবং সহকারী হাই কমিশনার রাজেস কুমার রাইনা এর উপস্থিতিতে মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন যশোর জেলা প্রশাসক শফিউল আরিফ, যশোর কাস্টমস এন্ড এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেটের ডেপুটি কমিশনার আলিম, বেনাপোল কাস্টম হাউসের পক্ষে সহকারী কমিশনার উত্তম কুমার, বেনাপোল স্থল বন্দরের পক্ষে উপ-পরিচালক মামুন তরফদার, বেনাপোল সিএন্ডএফ এজেন্টস এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মফিজুর রহমান সজন, যশোর মটরপার্টস মালিক সমিতির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এবং বেনাপোলের ব্যবসায়ী মহসিন মিলন। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন ভারত-বাংলাদেশ চেম্বারের ইম্পোর্ট-এক্সপোর্ট সাব কমিটির চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমান। সভায় মটরপার্টস ইম্পোর্টার এ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সবুজ জানান, ভারতীয় পাশে বনগাঁ এর মেয়রের অসহযোগিতার কারণে একটি আমদানি পণ্যবাহী ট্রাক বেনাপোল বন্দরে প্রবেশ করতে সময় লাগে প্রায় ১৫-২০ দিন। যার ফলে আমদানিকারককে ট্রাক ডিটেনশন চার্জ বহন করতে হয়। এছাড়াও পণ্যচালান বেনাপোলে প্রবেশের পর বন্দর হতে মালামাল খোয়া যায়। ফলে আমদানিকারকগণ বিভিন্নভাবে আর্থিক ক্ষতিগ্রস্থ হয়। বিভিন্ন আলোচনার পরিপ্রেক্ষিতে যশোর জেলা প্রশাসক সমস্যা সমাধানের বিষয়ে যতটুকু সম্ভব চেষ্টা করবেন বলে আশ্বস্ত করেন। এখন থেকে যে কোন ভিসায় ভারতে যেয়ে চিকিৎসা সেবা নেয়া যাবে বলে ভারতীয় ডেপুটি হাই কমিশনার সভায় জানিয়েছেন। এছাড়াও তিনি যাবতীয় সমস্যা লিখিতভাবে জেলা প্রশাসক এবং সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদেরকে জানানোর জন্য ব্যবসায়ী নিকট অনুরোধ করেছেন। -সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

শেয়ার