শার্শা ও বেনাপোলে লাইসেন্স ছাড়াই চলছে অর্ধশতাধিক ‘স’ মিল

এম এ রহিম, বেনাপোল ॥ যশোরের শার্শা ও বেনাপোলে নিয়ম বহির্ভুত ভাবে গজিয়ে উঠেছে শতাধিক স মিল। এসব কাঠ ফাঁড়ানো মিলের অধিকাংশের নেই লাইসেন্স ও পরিবেশ সার্টিফিকেট। আবাসিক এলাকায় ’স’ মিলের শব্দে পরিবেশ হচ্ছে দুষিত। কাঠ ফাঁড়াতে গুনতে হচ্ছে অতিরিক্ত অর্থ, প্রতারিত হচ্ছে এলাকার মানুষ।
স্থলবন্দর নগরী বেনাপোলসহ সীমান্তবর্তী উপজেলা শার্শার নাভারন বাঁগআচড়া গোগা ডিহি নিজামপুরসহ বিভিন্ন ইউনিয়নে স মিলগুলোতে কাঠা ফাড়ানোর নামে আদায় করা হচ্ছে অতিরিক্ত অর্থ। ২০ থেকে ৪০ টাকা সেফটি দরে টাকা নেয়া হচ্ছে। শ্রমিকের নামে রেখে দেয়া হচ্ছে শত শত মন ফাড়ানো অবশিষ্ট জালানী কাঠ। কাঠ না দিলে নেয়া হচ্ছে বাড়তি টাকা। কৌশলে কাঠ রেখে দেয়ার অভিযোগও রয়েছে। ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে সাধারণ মানুষ। এসব ’স’ মিলের অধিকাংশ শিশু শ্রমিক কাঠ ফাঁড়ানোর কাজ করে। এতে তাদের জীবনের ঝুঁকি থাকলেও যেন দেখার কেউ নেই। অপরদিকে সমিলের উচ্চ বিকট শব্দ পরিবেশ দুষণ করছে। কাঠের গুড়া উড়ে পথচারীদের চোখের ক্ষতি করছে।
স্থানীয়রা এ ব্যাপারে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

শেয়ার