ঝিকরগাছা সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের কেরানি রবিউল দুদ’র হাতে আটক, পৌনে দু’লাখ টাকা উদ্ধার

ঝিকরগাছা (যশোর) প্রতিনিধি॥ যশোরের ঝিকরগাছা সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের আলোচিত কেরানি রবিউলকে পৌনে দু’লাখ টাকাসহ আটক করেছে দুদক। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রেজিস্ট্রি অফিসে আড়াই ঘণ্টা অভিযান চালিয়ে রবিউলকে আটক ও ওই টাকা উদ্ধার করা হয়। উদ্ধারকৃত টাকা ‘ঘুষের’ বলে প্রাথমিকভাবে নিশ্চিত হয়েছেন দুদক কর্মকর্তারা।
দুদক সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক নাজমুচ্ছায়াদাত সাংবাদিকদের জানান, গোপন তথ্যের ভিত্তিতে তারা ঝিকরগাছায় অভিযান চালান। এ সময় রেজিস্ট্রি অফিসের কেরানি রবিউলকে আটক করা হয়। আটকের পর রবিউলের কাছ থেকে এক লাখ তেত্রিশ হাজার সাতাশ টাকা এবং অফিস থেকে আরও বিয়াল্লিশ হাজার দুইশত পয়ষট্টি টাকা উদ্ধার করা হয়। বিয়াল্লিশ হাজার দুইশত পয়ষট্টি টাকা অফিসের দাবি করলেও এক লাখ তেত্রিশ হাজার সাতাশ টাকার কোনো হিসাব তিনি দিতে পারেননি। তাকে আটক করে নিয়ে আসা হয়েছে।
এদিকে, সূত্র জানিয়েছে, সন্ধ্যায় দুদকের অভিযান টের পেয়ে আরেকটি টাকার ব্যাগসহ জহুরুল মহুরি নামে একজন সরে পড়েছে। অভিযোগ রয়েছে, দীর্ঘদিন ধরে ঝিকরগাছা রেজিস্ট্রি অফিসে কেরানি রবিউলের নেতৃত্বে একটি ঘুষ সিন্ডিকেট খুব বেপরোয়া হয়ে উঠেছিলো। এ নিয়ে প্রায়ই ভোগান্তির শিকার হয়ে চলেছেন সাধারন মানুষ এবং মুহুরীরাও। কেরানী রবিউলের সিন্ডিকেটে ঘুষের দুটি ভাগ করা ছিল। যার একটি পার্টেও ঘুষের টাকা থাকে কেরানী রবিউলের কাছে এবং অপর পার্টটি থাকে জহুরুল মহুরীর কাছে। আটক কেরানী রবিউল প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জহুরুলের কাছে অপর একটি অংশের ঘুষের টাকা থাকার কথা স্বীকার করেন। প্রতি সপ্তাহে তিনদিন এভাবে ঘুষের টাকা সপ্তাহে কমপক্ষে ওই দুজনের কাছে জমা হয়। যার পরিমাণ প্রায় ৭ লাখ টাকা। প্রায় আড়াই ঘন্টা জিজ্ঞাসাবাদে কেরানী রবিউল দুদক কর্মকর্তাদের কাছে ঝিকরগাছায় তার ও জহুরুলের নিকট থেকে ওই ঘুষের টাকায় ভাগা নেয়া কয়েকজনের নাম প্রকাশ করলেও দুদক কর্মকর্তারা তদন্তের স্বার্থে নামগুলি বলতে রাজি হননি। কেরানী রবিউল এই চাকরি করেও যশোরের শংকরপুরে আলিশান তিন তলা বাড়ি করেছেন। সম্প্রতি কেরানী রবিউলের দুর্নীতির তথ্য রানা নামে একজন মহুরী সাংবাদিকদের নিকট ফাঁস করে দেন।

শেয়ার