মণিরামপুরে মাদরাসা শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ মামলার আসামি দুই শিক্ষক আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক, মণিরামপুর (যশোর) ॥ যশোরের মণিরামপুরে দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামি মাদরাসা শিক্ষক তরিকুল ইসলাম (২৮) ও সহযোগী অপর শিক্ষক নজরুল ইসলামকে (৫২) আটক করেছে পুলিশ। আটক তরিকুল উপজেলার বালিয়াডাঙ্গা খানপুর গ্রামের মোন্তাজের ছেলে। অপর শিক্ষক নজরুল ইসলাম একই উপজেলার ঝাঁপা গ্রামের মৃত আব্দুল মজিদের ছেলে।
গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় গণমাধ্যম কর্মীদের উপস্থিতিতে এক প্রেস ব্রিফিং-এই আটকের তথ্য নিশ্চিত করেন সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার রাকিব হাসান। তিনি সাংবাদিকদের জানান, ঘটনার পর থেকে দুই আসামি পলাতক ছিল। তাদের ধরতে তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহারসহ পুলিশ ব্যাপক তৎপরতা চালায়। এরই ধারবাহিকতায় ধর্ষণের সাথে জড়িত মাদরাসা শিক্ষক নজরুল ইসলামকে খুলনা জেলার ডুমুরিয়া বাজার থেকে সোমবার বিকেলে আটক করা হয়। প্রধান আসামি তরিকুলকে আটকের স্বার্থে কৌশলগত কারণে নজরুলকে আটকের বিষয়টি প্রকাশ করা হয়নি। মঙ্গলবার বিকেলে থানার এসআই জহির রায়হান ও আকিকুর রহমান গোপন সংবাদের ভিত্তিতে যশোর সদর উপজেলার চাঁচড়া এলাকা থেকে তরিকুল ইসলামকে আটক করেছেন।
জানাযায়, গত ৩০ সেপ্টেম্বর কোচিং শেষে বাড়ি ফেরার পথে ওই শিক্ষার্থীকে কৌশলে আটকে রাখে দুই শিক্ষক তরিকুল ইসলাম ও নজরুল ইসলাম। এক পর্যায় শিক্ষার্থী ধর্ষণের শিকার হলে রক্তাক্ত ও অচেতন অবস্থায় মাদরাসার বাতরুমের পাশ থেকে উদ্ধার করে যশোর ২শ’৫০ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি করেন স্বজনরা। গত ৩ অক্টোবর সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরলে ঘটনা প্রকাশ পায়। এরপর তোড়পাড় সৃষ্টি হয়। এক পর্যায় শিক্ষার্থীর স্বজনসহ বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসি মাদরাসা ঘেরাও করে ঘটনার সাথে জড়িত নজরুল ইসলামকে মারধর করে ও মাদরাসা সুপারকে অবরুদ্ধ করে রাখে। পরে ওই শিক্ষার্থীর পিতা বাদি হয়ে ২ শিক্ষকের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের করেন।
এদিকে গত ৬ অক্টোবর শনিবার ওই শিক্ষার্থীর ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্নসহ আদালতে ২২’ধারায় জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়।

শেয়ার