স্কুলের নৈশ প্রহরীসহ ৭ জনকে মাদকসহ আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ যশোর জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) ও থানা পুলিশের পৃথক অভিযানে প্রাইমারি স্কুলের নৈশ প্রহরীসহ ৭ জনকে আটক করা হয়েছে। এসময় তাদের কাছ থেকে চোরাই মোটরসাইকেল, ইয়াবা ট্যাবলেট, ফেনসিডিল ও গাঁজা উদ্ধার করা হয়েছে।
আটককৃতরা হলো, ঝিকরগাছা উপজেলার নাভারণ কলোনীর মৃত আব্দুল করিম শেখের ছেলে রবিউল ইসলাম, রামচন্দ্রপুর গ্রামের পূর্বপাড়ার বাবলু রহমানের ছেলে হেলাল হোসেন, কৃষ্ণবাটি এলাকার তৈয়ব মেম্বারের বাড়ির পাশের মৃত সিরাজুল ইসলামের ছেলে হাফিজুর রহমান, মণিরামপুর উপজেলার গৌরীপুর গ্রামের মধ্যপাড়ার রবীন নন্দীর ছেলে এবং নেঙ্গুড়াহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নৈশ প্রহরী সন্দীপ কুমার নন্দী, কেশবপুর উপজেলার মধ্যকুল গ্রামের আমতলার ফজর আলীর ছেলে রাজু হোসেন, যশোর শহরের পুরাতন কসবা এলাকার আব্দুস সালামের দুই ছেলে আক্তার হোসেন ও হেমায়েত হোসেন।
ডিবি পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মারুফ আহম্মদ জানিয়েছেন, রোববার গোপন সংবাদের ভিত্তিতে এসআই শামীম হোসেনের নেতৃত্বে ঝিকরগাছা ও সদর উপজেলার বিভিন্ন স্থানে মাদক বিরোধীসহ বিভিন্ন অপরাধীদের আটকের জন্য অভিযান চালানো হয়। এসময় ঝিকরগাছার নাভারণ কলোনী থেকে হেলাল হোসেন ও রবিউল ইসলামকে আটক করা হয়। তাদের দখল থেকে ৩০ পিচ ইয়াবা ট্যাবলেট, ২শ’ গ্রাম গাঁজা এবং চোরাই মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়। এঘটনায় তাদের বিরুদ্ধে ঝিকরগাছা থানায় চুরি ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে পৃথক দুইটি মামলা হয়েছে।
এরপরে ওইদিন রাত ৯টার দিকে যশোরের চাঁচড়া এলাকার গ্রীন ল্যান্ড টেকনোলোজিস লিমিটেডের সামনে থেকে হাফিজুর রহমানকে আটক করা হয়। তার কাছ থেকে ১০ বোতল ফেনসিডিল ও একটি টিভিএস মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়। তার বিরুদ্ধে কোতোয়ালি থানায় মামলা হয়েছে।
একইদিন বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে এসআই সোলায়মান আক্কাসের নেতৃত্বে মণিরামপুর উপজেলার নেংগুড়াহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে অভিযান চালানো হয়। এসময় সেখান থেকে নেংগুড়াহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নৈশ প্রহরী সন্দীপ কুমার নন্দী ও রাজু হোসেনকে আটক করা হয়। তাদের কাছ থেকে ৬০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে মণিরামপুর থানায় মামলা হয়েছে।
এএসআই আল মিরাজের নেতৃত্বে সোমবার দুপুরে শহরের পালবাড়ি এলাকা থেকে আক্তার ও হেমায়েতকে আটক করা হয়। তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয় ২০৩ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট।

শেয়ার