শরণখোলায় ‘রায়বাড়ি’ পূজা মন্দিরে নির্মাণ করা হয়েছে ৭১ প্রতিমা

শরণখোলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি॥ বাগেরহাটের শরণখোলায় ২৭টি মন্ডপের মধ্যে সর্ববৃহৎ শারদীয় দুর্গোৎসব উদযাপিত হচ্ছে রায়বাড়ি পুজামন্ডপে। ৭১টি দেবদেবীর মূর্তি দিয়ে সাজানো হয়েছে পুরো মন্ডপ। যা শরণখোলার ইতিহাসে সবচেয়ে বৃহত্তম। এ যাবৎকালে উপজেলার কোনো মন্দির বা মন্ডপে এতো বেশি প্রতিমা তৈরি করা হয়নি। উপজেলার রায়েন্দা ইউনিয়নের উত্তর কদমতলা গ্রামের বিলাশ রায় কালুর বাড়িতে এই প্রতিমা স্থাপন করা হয়েছে।
মন্ডপ ঘুরে দেখা গেছে, মা’ দুর্গার মূতির পর বাড়ির আঙিনার পুরোটা জুড়ে আলাদা আলাদা সেটে সাজানো হয়েছে মূর্তিগুলো। নিপুণ কর্মশৈলীর মাধ্যমে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে প্রত্যেক দেবদেবীর নিজস্ব কর্মবৈশিষ্ট ও তাদের জীবানাচরণ। উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে প্রতিদিন নানা বয়সী মানুষ আসছেন ব্যতিক্রমি এই মন্ডপ পুজো দেখতে।
ব্যবসায়ী বিলাশ রায় কালু জানান, ইতিহাস খ্যাত বাগেরহাটের শিকদার বাড়ি মন্দির দেখে অনুপ্রাণিত হয়েই তিনি এগিয়ে যাচ্ছেন। তার জানামতে জেলার মধ্যে প্রতিমার সংখ্যা অনুসারে তার ‘রায়বাড়ি’ পুজামন্ডপ চতুর্থ স্থানে রয়েছে। প্রতিমা তৈরি ও আনুসাঙ্গিক মিলিয়ে খরচ হয়েছে প্রায় ১০ লাখ টাকা। খুলানার বটিয়াঘাটা এলাকার মৃৎশিল্পী তপন ভাস্কর আটজন কারিগর নিয়ে তিন মাস বসে এই প্রতিমাগুলো তৈরি করেছেন। দুই বছর ধরে এই রায় বাড়িতে দুর্গাপুজা উদযাপিত হচ্ছে। আগামী বছর ১০১টি দেবদেবীর প্রতিমা দিয়ে মন্ডপ সাজানো হবে। প্রতিমার সংখ্যা প্রতিবছরই বাড়বে বলে বিলাশ রায় কালু জানান।
শরণখোলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসকে আব্দুল্লাহ আল সাইদ বলেন, উপজেলায় সার্বজনিন ও ব্যক্তিগত মিলিয়ে মোট ২৭টি মন্ডপের মধ্যে রায় বাড়িতে প্রতিমা বেশি। এর মধ্যে কোনোটিই ঝুঁকিপুর্ণ নেই, তারপরও মন্দিরগুলোতে পুলিশি নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। শান্তিপুর্ণ দুর্গোৎসব পালন ও নিরাপত্তার জন্য সব ধরণের প্রস্তুতি তাদের রয়েছে।

শেয়ার