আজ দেবীর বোধন, মহাষষ্ঠীর মধ্য দিয়ে কাল থেকে দুর্গোৎসব শুরু

সালমান হাসান রাজিব
শরৎ এলে আনন্দ মুখর হয়ে ওঠে আমুদে বাঙালি। শারদীয় দুর্গাপূজা দিকে দিকে উৎসবের রঙ ছড়ায়। সার্বজনীন এই উৎসবটির আমেজে বর্ণিল হয় চারপাশ। দেখতে দেখতে চলে এল শরৎকালীন দুর্গাপূজা। আজকে দেবীর বোধন। আর কাল শুক্রবার থেকে শরত শুভ্রতার মাঝে মহাষষ্ঠী পূজার মধ্য দিয়ে শুরু হবে পাঁচ দিন ব্যাপি শারদীয় দুর্গোৎসব। ফলে ঢাক ঢোল আর কাঁসর-ঘণ্টার মুহুর্মুহু বাজনার পাশাপাশি পূজা অর্চনায় মুখরিত হবে যশোরের মন্দির ও পূজামন্ডপ। যশোরের ৮টি উপজেলার ৬৭৮ মন্ডপে এবার দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে।
আজ বৃহস্পতিবার দেবীর বোধন অনুষ্ঠিত হবে। শারদীয় দুর্গোৎসবের প্রারম্ভে বোধনের মাধ্যমে দক্ষিণায়নের নিদ্রিত দেবীর নিন্দ্রা ভাঙার জন্য বন্দনা পূজা করা হবে। বোধন অর্থ জাগরণ বা চৈতন্যপ্রাপ্ত। এটি দূর্গাপুজার অন্যতম একটি আচার।
পঞ্জিকা মতে, এবার দেবী দুর্গা স্বর্গ থেকে মর্ত্যে আসছেন ঘোটকে চড়ে। অর্থাৎ এবার দুর্গা দেবীর পৃথিবীলোকে আগমনের বাহন হলো ঘোড়া। আবার দশমীর দিনও ফিরবেন ঘোড়ায় চেপে। শাস্ত্রজ্ঞরা মনে করেন, দেবীর ঘোড়ায় করে আগমন মোটেও শুভ নয়। এর ফলাফল ছত্রভঙ্গ। অর্থাৎ দেবীর ঘোড়ায় গমনের ফলে নানা ধরণের প্রাকৃতিক দূর্যোগ-বন্যা, খরাসহ দেখা দিতে পারে মহামারী বা রাজনৈতিক অস্থিরতা।
বিশুদ্ধ সিদ্ধান্ত পঞ্চিকা মতে পঞ্চমী তিথি শেষে বৃহস্পতিবার বিকেলে ষষ্টী তিথিতে শাস্ত্রমতে নানা ধর্মীয় মাঙ্গলিক আচার অনুষ্ঠানে বোধনের মধ্য দিয়ে বাঙালি সনাতন ধর্ম বিশ্বাসীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় সার্বজনীণ উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজার কল্পরম্ভ আনুষ্ঠানিকতা শুরু হবে। শুক্রবার সকাল সাড়ে ৬টায় দেবীর মহাষষ্টীতে পূজা কল্পারম্ভ ও বিকেল ৫টায় দেবীর আমন্ত্রণ ও অধিবাস। শনিবার সকাল ৫টা ৫০ মিনিটে মহাসপ্তমি পূজা কল্পারম্ভ। রোববার সকাল সাড়ে ৫টায় মহা অস্টমী পূজা কল্পারম্ভ; অস্টমী পূজা শেষে সকাল ১১টা ১ মিনিটে সন্ধিপূজা শুরু হয়ে ১১টা ৪৯ মিনিটের মধ্যে সমাপন। যশোর রামকৃষ্ণ আশ্রম ও মিশনে দুপুর ১২টায় কুমারী পূজা, ৭ অক্টোবর সোমবার সকাল সাড়ে ৬টায় মহানবমী পূজা কল্পারম্ভ; ৮ অক্টোবর মঙ্গলবার দশমী কল্পারম্ভ সকাল ৭টায় এবং ৯টা ৫০ মিনিটের মধ্যে পূজা সমাপন ও দর্পণ বিসর্জন। এরপর সন্ধ্যা- আরাত্রিকের পর প্রতিমা বিসর্জন ও পরে শান্তিজল গ্রহণ।
এদিকে গতকাল বুধবার সকালে যশোর শহরের লালদীঘির পাড় হরিসভা মন্দিরে এবারকার দুর্গাপূজার নানা প্রস্তুতি তুলে ধরে সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে। বাংলাদেশ পূজা উদ্যাপন পরিষদ যশোর জেলা শাখা ও সদর উপজেলা শাখা এই সংবাদ সম্মেলন করে। সংবাদ সম্মেলণে জানানো হয়, দুর্গাপূজা উদ্যাপনের জন্য জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের সাথে যৌথভাবে পূজা উদ্যাপন পরিষদ জেলা শাখা ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে। লালদীঘির পাড়ে হরিসভা মন্দিরে কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। যেখান থেকে প্রতিটি মন্দিরের কার্যক্রম সার্বক্ষনিক মনিটরিং করা হবে। এছাড়া বরাবরের মতন লালদীঘিতে প্রতিমা নিরঞ্জনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।
লালদীঘির পাড় হরিসভা মন্দিরে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বাংলাদেশ পূজা উদ্যাপন পরিষদ যশোর জেলা শাখান সাধারণ সম্পাদক যোগেশ দত্ত। এসময় উপস্থিত ছিলেন, জেলা সভাপতি অসীম কুন্ডু, সহসভাপতি দীপক রায়, সদর উপজেলা শাখার সভাপতি দেবেন ভাষ্কর, সহসভাপতি রবীন মজুমদার প্রমুখ।

শেয়ার