ভারতে নিষিদ্ধ হচ্ছে ই-সিগারেট নিয়ম ভাঙলে জরিমানা লাখ রূপি

সমাজের কথা ডেস্ক॥ ভারতে ই-সিগারেট নিষিদ্ধ করার ঘোষণা দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন। এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায় সিদ্ধান্ত হওয়ার কথা জানিয়েছেন তিনি।
নির্মলা বলেন, ইউনিয়ন মন্ত্রিসভা থেকে এ সংক্রান্ত একটি অধ্যাদেশ অনুমোদন পাওয়ার পর তা এখন প্রেসিডেন্ট রাম নাথ কোবিন্দের কাছে পাঠানো হয়েছে। প্রেসিডেন্টের সাক্ষরের পর অধ্যাদেশটি নিয়ে পার্লামেন্টে বিতর্ক হবে এবং সেখানে পাস হলে তা আইনে পরিণত হবে।
ইউনিয়ন মন্ত্রিসভা বুধবার ই-সিগারেট উৎপাদন, আমদানি বা রপ্তানি, পরিবহন, বিক্রি, বাজারজাতকরণ, মজুদ এবং এ সংক্রান্ত সব ধরনের বিজ্ঞাপন নিষিদ্ধের প্রস্তাব অনুমোদন করেছে বলে জানান নির্মলা।
তিনি বলেন, ই-সিগারেট মানুষের জন্য স্বাস্থ্য ঝুঁকি বিশেষ করে তরুণদের জন্য ক্ষতিকর হওয়ায় মন্ত্রিসভা এটি নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তামাকের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের অংশ হিসেবে এ উদ্যোগ বলেও জানান তিনি।
“শিশুদের ধূমপানে আসক্ত হওয়ার ঝুঁকি যেভাবে বাড়ছে তাতে ভবিষ্যতে এটা বড় ধরনের সমস্যায় পরিণত হবে। তাই ই-সিগারেট এবং ধূমপানের অন্যান্য পণ্য নিষদ্ধ হচ্ছে।”
নতুন নিয়মে ই-সিগারেটের উপর নিষেধাজ্ঞা ভঙ্গ করলে প্রাথমবার ১ লাখ রূপি জরিমানা এবং এক বছরের জেল হতে পারে।
ভারতে চারশ’র বেশি ব্র্যান্ডের এবং দেড়শতাধিক ফ্লেভারের ই-সিগারেট পাওয়া যায়। তার কোনোটিই ভারতে ‘উৎপাদিত হয় না বলেও জানান অর্থমন্ত্রী নির্মলা।
স্বাস্থ্যমন্ত্রীর প্রস্তাবের ভিত্তিতে এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। মন্ত্রিসভায় এ প্রস্তাব রাখার সময় স্বাস্থ্যমন্ত্রী শিশু ও তরুণদের মধ্যে ই-সিগারেট মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেন।
এনডিটিভি জানায়, ভারতের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে পাওয়া নির্দেশ অনুসারে মন্ত্রীদের একটি দল ‘প্রহিবিশন অব ই-সিগারেট অর্ডিনেন্স-২০১৯’ যাচাই বাছাই করেছেন।
খসড়া অধ্যাদেশে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে শাস্তি হিসেবে প্রথমবার আইন লঙ্ঘনের শাস্তি একবছরের কারাদ-সহ এক লাখ রুপি জরিমানা এবং পুনরায় আইন লঙ্ঘনের শাস্তি তিন বছরের কারাদ- এবং পাঁচ লাখ রুপি পর্যন্ত জরিমানার প্রস্তাব করা হয়।
আগামী নভেম্বরে ভারতের পার্লামেন্টের পরবর্তী অধিবেশন শুরু হবে। যেখানে এই অর্ডিন্যান্স নিয়ে আলোচনা হওয়ার কথা।

শেয়ার