ড্রোন, ক্রুজ ঠেকাতে ব্যর্থ সৌদির ব্যয়বহুল প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা

সমাজের কথা ডেস্ক॥ বিমান প্রতিরক্ষায় পশ্চিমা সামরিক যন্ত্রপাতির পেছনে শত শত কোটি ডলার ব্যয় করেও কম দামি ড্রোন ও ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র ঠেকাতে পারছে না সৌদি আরব।
শনিবার এ ধরনের স্বল্প খরচের ড্রোন ও ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্রের হামলায়ই দেশটির বিশাল তেল শিল্প আংশিক পঙ্গু হয়ে পড়েছে। এতে দেশটির দৈনিক তেল উৎপাদন কমে অর্ধেকেরও নিচে নেমে গেছে।
এক প্রতিবেদনে বার্তা সংস্থা রয়টার্স বলেছে, প্রতিবেশী ইয়েমেনের গৃহযুদ্ধে জড়িয়ে পড়ার পর থেকে তেল শিল্পক্ষেত্রগুলোতে বারবার হামলা সত্বেও সৌদি আরব এ ধরনের হামলা মোকাবিলায় কতোটা অপ্রস্তুত তা ওই দিনের হামলা দেখিয়ে দিয়েছে।
সৌদি আরব ও যুক্তরাষ্ট্র বলেছে, এ হামলার পেছনে ইরান ছিল বলে তাদের বিশ্বাস।
মঙ্গলবার এক মার্কিন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, হামলাটি ইরানের দক্ষিণপশ্চিমাঞ্চল থেকে চালানো হয়েছে বলে ওয়াশিংটন বিশ্বাস করে। হামলার ড্রোনের পাশাপাশি ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবহার করা হয়েছে বলে তিন মার্কিন কর্মকর্তা জানিয়েছেন।
এ ধরনের অভিযোগগুলো প্রত্যাখ্যান করেছে তেহরান। তারা বলেছে, ইয়েমেনে সৌদি নেতৃত্বাধীন বাহিনীর বিরোধীরাই হামলাটি চালিয়েছে। ইরানঘনিষ্ঠ ইয়েমেনের হুতি বিদ্রোহীরা এককভাবে এ হামলা চালানোর দায় স্বীকার করেছে।
মধ্যপ্রাচ্যে ব্যালিস্টিক ও ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্রের সক্ষমতায় ইরান অনেক এগিয়ে আছে। তারা সৌদি আরবের যেকোনো ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থাকে অকেজো করে দিতে পারবে বলে ভাষ্য থিঙ্ক ট্যাঙ্ক সিআইএসএস এর; এক্ষেত্রে ইরানের বিশাল আয়তন ও মধ্যপ্রাচ্যজুড়ে তাদের সমর্থিত বাহিনীগুলোর শক্তিমত্তাও উল্লেখ করেছে তারা।
কিন্তু এর চেয়ে অনেক দুর্বল হামলাও সৌদি আরবের জন্য অনেক বেশি ক্ষতিকর বলে প্রমাণিত হচ্ছে। এগুলোর মধ্যে সৌদি আরবের বেসামরিক বিমানবন্দর, অয়েল পাম্পিং স্টেশন ও শায়বাহ তেলক্ষেত্রে হুতিদের দাবি করা সাম্প্রতিক সফল হামলাগুলোকে বিবেচনায় নিতে হবে।
“আমরা উন্মুক্ত। কোনো বাস্তব স্থাপনার জন্যই কোনো বাস্তব সুরক্ষা নেই,” বলেছেন সৌদি এক সূত্র।
সৌদি আরবের রাষ্ট্রীয় তেল কোম্পানি সৌদি আরামকোর দুটি প্লান্টে ১৪ সেপ্টেম্বরের হামলাটি ১৯৯০-৯১ সালে উপসাগরীয় সঙ্কটের সময় সাদ্দাম হুসেন কর্তৃক কুয়েতের তেল কূপগুলো জ্বালিয়ে দেওয়ার পর ওই অঞ্চলের তেল স্থাপনায় চালানো সবচেয়ে বড় হামলা।
আরামকো মঙ্গলবার জানিয়েছে, প্রাথমিকভাবে যা ধারণা করা হয়েছিল তার চেয়ে দ্রুততম সময়ের মধ্যে স্বাভাবিক উৎপাদনে ফিরতে পারবে তারা।
প্রাথমিক তদন্তের ফলাফলে হামলায় ব্যবহৃত অস্ত্রগুলো ইরানি বলে ইঙ্গিত পাওয়ার কথা জানিয়েছে রিয়াদ, কিন্তু হামলাটি ঠিক কোন স্থান থেকে চালানো হয়েছে তা নিশ্চিত হতে পারেনি।

শেয়ার