মণিরামপুরের ৫শ’ আসনের শহীদ মসিয়ূর রহমান অডিটোরিয়াম

উদ্বোধনের ২০ মাস পরেও চালু হয়নি

নকশা বহির্ভূত বাণিজ্যিক মার্কেট নির্মাণ শুরু
থাকছে না গাড়ি পার্কিংয়ের জায়গা

শহীদ মসিয়ূর রহমান অডিটোরিয়ামমোতাহার হোসেন, মণিরামপুর (যশোর) ॥ উদ্বোধনের ২০ মাস পার হলেও আজ অবধি চালু হয়নি যশোরের মণিরামপুরে শহীদ মসিয়ূর রহমান জেলা পরিষদ অডিটরিয়াম-কাম-মাল্টি পারপাস হল। উপরুন্তÍ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের কোন অনুমোদন ছাড়াই অডিটরিয়ামের নকশা বহির্ভূত বানিজ্যিক মার্কেট নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। মার্কেট নির্মাণ হলে সেখানে গাড়ি পার্কিয়ের জায়গা থাকছে না বলেও অভিযোগ রয়েছে।
২০১৭ সালের ৩১ ডিসেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জেলা পরিষদের বাস্তবায়নে প্রায় সাড়ে তিন কোটি ব্যয়ে নির্মিত এ অডিটরিয়মের উদ্বোধন করেন। জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার দাবি ‘হেবি ওয়েটের এসি (শীতাতাপ নিয়ন্ত্রিত যন্ত্র) থাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ না পাওয়ায় অডিটরিয়াম চালু হয়নি।’
জানা যায়, দীর্ঘদিন ট্রাক শ্রমিকদের দখলে থাকা পৌরশহরের প্রাণকেন্দ্রের এ জায়গাটি দখলমুক্ত করে ২০১৩ সালের ৩০ নভেম্বর প্রায় সাড়ে তিন কোটি টাকা ব্যয়ে ৫শ’ আসন বিশিষ্ট এ অডিটরিয়াম নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন তৎকালীন স্থানীয় এমপি প্রয়াত অ্যাডভোকেট খান টিপু সুলতান। যশোর জেলা পরিষদের বাস্তবায়নে এ অডিটরিয়াম নির্মাণ কাজ করেন জাহিদুল ইসলাম নামের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। এরপর ২০১৭ সালের ৩১ ডিসেম্বর উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। উদ্বোধনের ২০ মাস পার হলেও চালু হয়নি অডিটরিয়াম। এ নিয়ে স্থানীয়দের মধ্যে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।
ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের অপু নামের একজন জানান, কাজ শেষে ভবন বুঝিয়ে দেয়ার পরও চালু না হওয়া জেলা পরিষদের গাফিলতি বলে তিনি মনে করেন। এদিকে, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন ছাড়াই নকশা বহির্ভূত বাণিজ্যিক মার্কেট নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে। স্থানীয়দের আশংকা মার্কেট নির্মাণ হলে অডিটরিয়ামের বাইরে গাড়ি পার্কিংয়ের জায়গা থাকছে না।
এসব ব্যাপারে জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা রফিকুন্নবীর কাছে মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন, হেবি ওয়েটের এসি থাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ না পাওয়ায় অডিটরিয়াম চালু করতে বিলম্ব হচ্ছে। বিদ্যুৎ সংযোগে প্রায় ১০ লাখ টাকা প্রয়োজন, যা অনুমোদনে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে।
অপর এক প্রশ্নের জবাবে জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী বলেন, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের মৌখিক অনুমোদনে সেখানে মার্কেট নির্মাণ করা হচ্ছে। তবে, অডিটরিয়ামের সৌন্দর্য্য বিঘিœতসহ গাড়ি পাকিংয়ে সমস্যা হলে তা পুনর্বিবেচনা করা হবে।
যশোর পল্লী বিদ্যুত সমিতি-২ এর সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্মকর্তা পরিতোষ কুমার দাস বলেন, এ ব্যাপারে জেলা পরিষদের পক্ষ থেকে তাদের জানানো হয়নি।
জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুজ্জামান পিকুল বলেন, মার্কেট নির্মাণে কোন সমস্যা হবে না।

শেয়ার