বাঘারপাড়া মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার ‘ঘুষ গ্রহণের’ তদন্ত আজ

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ যশোরের বাঘারপাড়া মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার ঘুষ বাণিজ্যের সংবাদ পত্রিকায় প্রকাশের পর এবার উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ নড়েচড়ে বসেছে। যে কারণে দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা নুর মোহাম্মদ তেজারতের ঘুষ গ্রহণ অনিয়মের অভিযোগে আজ বৃহস্পতিবার তদন্ত শুরু হবে বলে জেলা শিক্ষা অফিস নিশ্চিত করেছে। এ বিষয়ে গত বৃহস্পতিবার জেলা শিক্ষা অফিসারের কার্যালয় থেকে ৩৭.০২.৪১০০.০০১.৩১.০০১.১৮/৮২৩ স্মারকে সহকারী জেলা শিক্ষা অফিসার আব্বাস উদ্দিনের স্বাক্ষরিত চিঠিতে তদন্তের বিষয়ে জানানো হয়েছে। বেলা সাড়ে ১১টায় জেলা শিক্ষা অফিসারের কার্যালয়ে এ তদন্ত কার্যক্রম শুরু হবে।
অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ২০১৯ সালের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের নির্বাচনী পরীক্ষার পর স্থানীয় ইন্দ্রা মাধ্যমিক বিদ্যালয় পরিদর্শনে গিয়ে প্রতিষ্ঠানটির খুঁটিনাটি অনিয়ম খুঁজে বাঘারপাড়ার এ শিক্ষা কর্মকর্তা প্রধান শিক্ষকের নিকট ১ লাখ টাকা উৎকোচ দাবি করেন। প্রধান শিক্ষক জমি বিক্রয় করে ৩০ হাজার টাকা ওই কর্মকর্তার হাতে তুলে দেন। বাকি ৭০ হাজার টাকা না দেওয়ায় প্রধান শিক্ষককে বিভাগীয় মামলার ভয় দেখান। নিরুপায় হয়ে প্রধান শিক্ষক গত ২৩ জুলাই উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট ঘুষের টাকা ফেরত চেয়ে আবেদন করেন। যার সংবাদ গত ৩০ জুলাই দৈনিক সমাজের কথা পত্রিকায় প্রকাশিত হয় এবং গত ৪ সেপ্টেম্বর একই পত্রিকায় তার ঘুষ বাণিজ্যের অডিও ফাঁসের সংবাদও প্রকাশিত হয়। আর এ সকল অভিযোগের প্রেক্ষিতে জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তাকে তদন্তের নির্দেশ দেন।
তদন্তের বিষয়ে জানতে জেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা আব্বাস উদ্দিনের সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি জানান, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নুর মোহাম্মদ তেজারতের ঘুষ গ্রহণের ব্যাপারে পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা তাকে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। ইতিমধ্যে এ সংক্রান্ত চিঠি সরকারি বিভিন্ন দপ্তরে পাঠানো হয়েছে। পাশাপাশি অভিযুক্ত ও অভিযোগকারীদের চিঠির মাধ্যমে জানানো হয়েছে। আজ বেলা সাড়ে ১১টায় জেলা শিক্ষা অফিসারের কার্যালয়ে তদন্ত শুরু হবে।

শেয়ার